UNHCR-এর সহায়তায় সদর হাসপাতালে এনেক্স ভবনের ভিত্তিপ্রস্তর স্থাপন বৃহস্পতিবার

প্রকাশ: ১৬ ডিসেম্বর, ২০২০ ০৯:২৫ , আপডেট: ১৬ ডিসেম্বর, ২০২০ ০৯:২৮

পড়া যাবে: [rt_reading_time] মিনিটে


কক্সবাজার জেলা সদর হাসপাতাল এনেক্স ভবন নকশা
cbn  

মুহাম্মদ আবু সিদ্দিক ওসমানী :

কক্সবাজার জেলা সদর হাসপাতালে এনেক্স ভবন (বর্ধিত ভবন) নির্মাণ করতে যাচ্ছে- জাতি সংঘ উদ্বাস্তু বিষয়ক হাই কমিশন (UNHCR)। কক্সবাজার-৩ (সদর-রামু) আসনের সংসদ সদস্য ও জেলা সদর হাসপাতাল ব্যবস্থাপনা কমিটির সভাপতি সাইমুম সরওয়ার কমল বৃহস্পতিবার ১৭ ডিসেম্বর সকাল সাড়ে ১০ টায় প্রধান অতিথি হিসাবে উপস্থিত থেকে বহুতল বিশিষ্ট আধুনিক এই এনেক্স ভবনের নির্মাণ কাজের ভিত্তি প্রস্তর স্থাপন করবেন। কক্সবাজারের জেলা প্রশাসক মোঃ কামাল হোসেন অনুষ্ঠানে সভাপতিত্ব করবেন। বিশ্বস্ত সুত্র এ তথ্য নিশ্চিত করেছে।

সুত্রমতে, ভার্চুয়ালে এ ভিত্তি প্রস্তর অনুষ্ঠান করা হবে। অনুষ্ঠানে কউক চেয়ারম্যান লে: কর্নেল (অব:) ফোরকান আহমদ (এলডিএমসি-পিএসসি), UNHCR এর কক্সবাজার অফিস প্রধান মারিন বিন, সিভিল সার্জন ডা. মাহবুবর রহমান, কক্সবাজার মেডিকেল কলেজের অধ্যক্ষ প্রফেসর ডা. অনুপম বড়ুয়া, অতিরিক্ত জেলা ম্যজিস্ট্রেট (এডিএম) মোহা. শাজাহান আলি, কেন্দ্রীয় আওয়ামীলীগের ধর্ম বিষয়ক এডভোকেট সিরাজুল মোস্তফা, জেলা আওয়ামীলীগের ভারপ্রাপ্ত সভাপতি এডভোকেট ফরিদুল ইসলাম, সাধারণ সম্পাদক ও কক্সবাজার পৌরসভার মেয়র মুজিবুর রহমান, সদর হাসপাতালের ভারপ্রাপ্ত তত্বাবধায়ক ডা. রফিকুস সালেহীন, বিএমএ’র সভাপতি ডা. পুচনু সহ জেলার বিশিষ্ট ব্যক্তিবর্গ ভার্চুয়াল ভিত্তি প্রস্থর অনুষ্ঠানে যুক্ত হওয়ার কথা রয়েছে।

জেলা সদর হাসপাতালের উত্তর পার্শ্বের খালি ভূমিতে ১০ তলা ফাউন্ডেশন দিয়ে বহুমুখী অত্যাধুনিক সুবিধা সম্বলিত এই এনেক্স ভবনটি নির্মাণ করা হবে। প্রায় ২২ কোটি টাকা প্রাক্কলিত ব্যয় ধরে ১০তলা ফাউন্ডেশনের আপাতত ৩ তলা পর্যন্ত নির্মাণ করে দেবে UNHCR। ইতিমধ্যে ১০তলা বিশিষ্ট প্রস্তাবিত ভবনটির ভূমি ব্যবহার, নকসা, ডিজাইন কক্সবাজার উন্নয়ন কর্তৃপক্ষের চেয়ারম্যান লে: কর্নেল (অব:) ফোরকান আহমদ (এলডিএমসি-পিএসসি) অনুমোদন দিয়েছেন। জেলা সদর হাসপাতালে এনেক্স ভবন (বর্ধিত ভবন) নির্মাণ কাজের সাথে সম্পৃক্ত একটি সুত্র জানিয়েছেন, ভবনের ভূমি ব্যবহার, নকসা, ডিজাইন অনুমোদন দেওয়ার জন্য নিয়মানুযায়ী অনেক শর্ত পূরণ না হওয়া সত্বেও বৃহত্তর জনস্বার্থে কউক চেয়ারম্যান লে: কর্নেল (অব:) ফোরকান আহমদ (এলডিএমসি-পিএসসি) অত্যন্ত আন্তরিকতার সাথে নকসা, ডিজাইন অনুমোদন দিয়েছেন।

বৃহস্পতিবার নির্মাণ কাজ শুরু হতে যাওয়া সদর হাসপাতালের এনেক্স ভবনটির বিষয়ে কক্সবাজারের অতিরিক্ত জেলা ম্যাজিস্ট্রেট (এডিএম) মোহা. শাজাহান আলি বলেন-কক্সবাজারের চিকিৎসা ব্যবস্থার সার্বিক উন্নয়নের কথা চিন্তা করে জেলা প্রশাসক মোঃ কামাল হোসেন এটা বাস্তবায়নের জন্য পিছনে লেগে ছিলেন। স্বপ্নবাজ জেলা প্রশাসক মোঃ কামাল হোসেনের সেই স্বপ্ন এখন বাস্তবায়িত হচ্ছে।

কক্সবাজার জেলা সদর হাসপাতালে রোগির ক্রমবর্ধ্বমান আধিক্যের কথা চিন্তা করে প্রায় আড়াই বছর আগে থেকে কক্সবাজার জেলা প্রশাসন, কক্সবাজার জেলা সদর হাসপাতাল ও কক্সবাজার আরআরআরসি অফিস কর্তৃপক্ষ কক্সবাজার জেলা সদর হাসপাতালের বর্তমান মূল ভবনের উত্তর পার্শ্বে পূর্বে মসজিদ, পশ্চিমে অস্থায়ী গোডাউন, দক্ষিণে মূল ভবনের সাথে লাগোয়া, উত্তরে নতুন গেইট থেকে একটু জায়গা রেখে একটি নতুন ভবন নির্মাণের চিন্তাভাবনা করে। এ উদ্যোগের অংশ হিসাবে কক্সবাজারের জেলা প্রশাসক মোঃ কামাল হোসেন সহ সরকারি সংস্থা গুলো কক্সবাজার UNHCR কর্তৃপক্ষকে হাসপাতালের উল্লেখিত খোলা জায়গায় আরেকটি বর্ধিত ভবন নির্মাণ করে দেওয়ার অনুরোধ জানায়। কক্সবাজার UNHCR কর্তৃপক্ষ বিষয়টি ইতিবাচক হিসাবে নিয়ে ১০তলা বিশিষ্ট একটি এনেক্স ভবন নির্মাণের ডিজিইন ড্রয়িং করে।

এ বিষয়ে কক্সবাজার জেলা সদর হাসপাতাল কর্তৃপক্ষ সুত্রে জানা যায়, হাসপাতালে রোগী সংকুলান হচ্ছেনা, ডাক্তার বসার জায়গা নেই। হাসপাতালে ৬১ জন চিকিৎসকের পোস্টের মধ্যে এখন মাত্র ৪০ জন চিকিৎসক রয়েছেন। তাদের সকলকেও হাসপাতালে বসার ঠিকমতো জায়গা করে দেওয়া যাচ্ছেনা। রোহিঙ্গা শরনার্থী সহ স্থানীয় রোগীর আধিক্যের কারণে হাসপাতালটির এখন ত্রাহি ত্রাহি অবস্থা। ২৫০ শয্যা বিশিষ্ট হাসপাতালে এখন সবসময় ৪ শতাধিক রোগী ভর্তি থাকে। এ অবস্থায় বৃহস্পতিবার ১৭ ডিসেম্বর ভিত্তি প্রস্থর স্থাপিত হতে যাওয়া নতুন ভবনটি নির্মাণ কাজ শেষ হলে পুরো জেলা সদরের চিকিৎসা ব্যবস্থায় আমুল পরিবর্তন আসবে বলে জেলা সদর হাসপাতাল কর্তৃপক্ষ আশাবাদ ব্যক্ত করেছেন।

এদিকে, বিশ্বস্ত সুত্র জানিয়েছে, বৃহস্পতিবার নির্মাণ কাজ শুরু হতে যাওয়া অত্যাধুনিক বহুমুখী সুবিধা সম্বলিত প্রস্তাবিত এনেক্স ভবনটি প্রায় ২২ কোটি টাকা প্রাক্কলিত ব্যয় ধরে ডিজাইন ড্রইং করা হয়েছে। প্রস্তাবিত এনেক্স ভবনটি’তে একাধিক লিফট, র‍্যাম সহ জাতীয় মানের সকল সুবিধাদির অপশন রাখা হয়েছে। এনেক্স ভবনটি নির্মাণের পর UNHCR তাদের নিজস্ব অর্থায়নে সেখানে প্রয়োজনীয় আসবাবপত্র, চিকিৎসা সরঞ্জাম সহ সবকিছু সরবরাহ দেবে বলে সুত্র গুলো নিশ্চিত করেছেন। বর্তমান মসজিদ, পার্কিং সহ সমুদয় সুবিধাদি বহাল রেখে প্রস্তাবিত এনেক্স ভবনটি নির্মাণ করা হবে জানান সুত্রটি।

প্রসঙ্গত, প্রায় ৩৩ কোটি টাকা ব্যয় করে কক্সবাজার জেলা সদর হাসপাতালে UNHCR কর্তৃপক্ষ প্রায় ৭ মাস আগে ১০বেডের ICU এবং ৮বেডের HDU নির্মাণ করে দিয়েছে। যেখানে এগুলোর চিকিৎসক, নার্স, স্বাস্থ্য কর্মী, ওয়ার্ডবয় সহ প্রায় ৩২ লক্ষ টাকা জনবল ও ব্যবস্থাপনার ব্যয় প্রতিমাসে UNHCR নিয়মিত বহন করছে। এছাড়া জাতিসংঘের শিশু বিষয়ক সংস্থা UNICEF ৫৫ লক্ষ টাকা ব্যয়ে কক্সবাজার জেলা সদর হাসপাতালে একটি সেন্ট্রাল অক্সিজেন প্ল্যান্ট নির্মাণ করে দিয়েছে।

  •  
  •  
  •  
  •  
  •   
  •  
  •