মুহাম্মদ আবু বকর ছিদ্দিক :
ঐতিহাসিক বিজয় দিবস উপলক্ষে রামু লেখক ফোরামের আলোচনা সভা ও দু’আ মাহফিল অনুষ্ঠিত হয়েছে। ১৬ ডিসেম্বর (বুধবার) সকাল ১০ টায় রামু চৌমুহনীস্থ কবি কাজী মোহাম্মদ আলীর বৈঠকখানায় এ সভা অনুষ্ঠিত হয়।
সংগঠনের সভাপতি, তরুণ লেখক হাফেজ মুহাম্মদ আবুল মঞ্জুরের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত সভায় প্রধান অতিথি ছিলেন, স্বভাব কবি আলহাজ্ব কাজী মোহাম্মদ আলী।
প্রধান আলোচক ছিলেন, সংগঠনের উপদেষ্টা প্রাবন্ধিক, সমাজ ও রাজনীতি বিশ্লেষক আখতারুল আলম।
প্রচার সম্পাদক হাফেজ জয়নাল আবেদীনের সঞ্চালনায় এ অনুষ্ঠানে শুরুতে পবিত্র কুরআন তিলাওয়াত করেন, অর্থ সম্পাদক মাওলানা মুহাম্মদ দিদারুল আলম। অনুষ্ঠানে বক্তব্য রাখেন, সংগঠনের উপদেষ্টা মাওলানা এম. আতাউর রহমান, সহ-সভাপতি সাংবাদিক মুহাম্মদ আবু বকর ছিদ্দিক, মাসিক সাহিত্যকলি সম্পাদক এহছানুল হক, সহযোগী সদস্য মুহাম্মদ আব্দুল্লাহ হোসাইনী প্রমুখ।
অনুষ্ঠানে আলোচকবৃন্দ বলেন, বাংলার বীর সন্তানেরা পাকিস্তানী শাসকগোষ্ঠির চরম বৈষম্য ও লাঞ্ছনা-বঞ্চনার অবসান ঘটাতে ১৯৭১ সালে ঝাঁপিয়ে পড়েন মাতৃভূমির স্বাধীনতা সংগ্রামে। প্রিয় মাতৃভূমির স্বাধীনতার জন্য স্থাপন করতে হয়েছে আত্মদানের বিরল দৃষ্টান্ত, পেশ করতে হয়েছে ত্যাগের সর্বোচ্চ নজরানা। লাখো শহীদের তাজা রক্তের বিনিময়ে ১৯৭১ এর ১৬ ডিসেম্বর এসেছে স্বাধীনতা, এসেছে বিজয়, পেয়েছি লাল-সবুজের পতাকা। বিশ্ব মানচিত্রে আসন গড়ে নেয় বাংলাদেশ নামক একটি নতুন রাষ্ট্র। তাজা রক্তের বিনিময়ে পাওয়া আমাদের এ স্বাধীনতা-সার্বভৌমত্ব রক্ষা ও অর্থবহ করার লক্ষ্যে নাগরিকের মৌলিক ও মানবাধিকার সুপ্রতিষ্ঠিত করতে হবে। ভিনদেশি আগ্রাসন ও অপসংস্কৃতি রুখে দাড়াতে হবে।
আলোচকবৃন্দ বলেন, বৃটিশ বিরোধী আযাদী আন্দোলনের কারণে আমাদের দেশের স্বাধীনতা সংগ্রামের পথ সুগম হয়েছে। আর সেই আযাদী আন্দোলনসহ বাংলাদেশের স্বাধীনতা সংগ্রামে স্বচ্ছধারার ওলামায়েকেরামের গৌরবোজ্জ্বল অবদান রয়েছে। স্বাধীনতার মূল তাৎপর্য, চেতনা ও ইতিহাস নবপ্রজন্মকে জানাতে হবে।
সভায় কবি কাজী মোহাম্মদ আলী “বিজয় দিবস” শীর্ষক স্বরচিত কবিতা আবৃত্তি করেন।
সভায় স্বাধীনতা সংগ্রামের বীর শহীদান ও মরহুম মুক্তিযোদ্ধাদের রুহের মাগফিরাত এবং দেশ ও জাতির শান্তি -সমৃদ্ধি কামনায় করে মহান আল্লাহর দরবারে বিশেষ মুনাজাত করা হয়।

  •  
  •  
  •  
  •  
  •   
  •  
  •