বার্তা পরিবেশক:

বেসরকারি শিক্ষক নিবন্ধনের সনদ জালিয়াতির প্রমাণ পাওয়ায় আটককৃত কাজী নোমানুল হককে আটক করা হয়েছে। রোববার (১৪ ডিসেম্বর) কক্সবাজার সদর মডেল থানা পুলিশ তাকে আটক করেছে।
তার বিরুদ্ধে মামলা করার নির্দেশ দিয়েছে এনটিআরসিএ। আটককৃত শিক্ষক কক্সবাজারের মহেশখালী উপজেলার তাজিয়াকাটার সুমাইয়া র. বালিকা দাখিল মাদ্রাসার সাবেক সুপার ও মহেশখালী উপজেলার কুতুবজোম ইউনিয়নের নয়াপাড়া এলাকার মৃত শামসুল ইসলামের পুত্র।

গত ২৯ জুন বেসরকারি শিক্ষক নিবন্ধন ও প্রত্যায়ন কর্তৃপক্ষ (এনটিআরসিএ) এই নির্দেশ দেয়। সনদ যাচাই প্রতিবেদনের পর ভুয়া সনদধারীদের বিরুদ্ধে মামলারও নির্দেশ দেওয়া হয়েছে বলে জানা গেছে।

মামলার তদন্তকারী পুলিশ কর্মকর্তা কক্সবাজার সদর মডেল থানার উপ-পরিদর্শক জামিরুল ইসলাম বলেন, আটককৃত আসামির বিরুদ্ধে শিক্ষক নিবন্ধন সনদ জালিয়াতির অভিযোগে মামলা রয়েছে। বাংলাদেশের প্রচলিত আইনে তার বিরুদ্ধে ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে।

শিক্ষক নিবন্ধন সনদ যাচাইক্রমে আটককৃত শিক্ষক মোঃ নোমানুল কাজীর সনদ জালিয়াতির প্রমাণ পাওয়া গেছে।

আদেশে বলা হয়, ‘সনদধারী ব্যক্তি জালিয়াতির আশ্রয় নিয়েছেন মর্মে দালিলিকভাবে প্রমাণিত হয়েছে। সংশ্লিষ্ট প্রতিষ্ঠানের পক্ষ থেকে মামলা করে এনটিআরসিএ-কে অবহিত করতে আদেশে নির্দেশ দেওয়া হয়।’

জাল সনদধারীদের বিষয়ে এনটিআরসিএ আদেশে দেখা গেছে, কারও সনদ অন্যের সনদের নম্বর ব্যবহার করে জাল করা হয়েছে। আবার ফলফলের তালিকায় উত্তীর্ণ না থাকলেও পাসের সনদ তৈরি করা হয়েছে সংশ্লিষ্ট রেজিস্ট্রেশন ও রোল নম্বরের ভিত্তিতে।

  •  
  •  
  •  
  •  
  •   
  •  
  •