মোঃ কাওছার উদ্দিন শরীফ, ঈদগাঁও :

কক্সবাজার সদরের ঈদগাঁও বাজারের শাপলা চত্বরটি এখন ভাসমান ব্যবসায়ীদের দখলে। ফলে সৃষ্টি হচ্ছে অসহনীয় যানজট। দুর্ভোগ পোহাচ্ছে সর্বস্তরের জনগণ।

সোমবার ১৪ ই ডিসেম্বর সরেজমিনে দেখা  যায়,   ট্রাফিক ব্যবস্থার হ-য-ব-র-ল অবস্থার কারণে পুরো এলাকা জুড়ে সৃষ্টি হয় তীব্র যানজটের।ফুটপাত দখল করে এ এলাকায় হকারদের ব্যবসা দীর্ঘদিনের। গেলো বছরে উচ্ছেদ অভিযানে দখল কিছুটা কমলেও এখন তা দিন দিন বেড়েই চলছে। ফলে ফুটপাত পুরোটা দখল হয়ে যাচ্ছে। পথচারীরা বাধ্য হয়েই সড়কে চলাচল করছেন।ডিসি সড়কের যানবাহন চলাচলে বিশৃঙ্খলা। , হাই স্কুল গেইট, শাপলা চত্বরের মোড়, তেলিপাড়ার মোড়, বঙ্গিমবাজার বাঁশ ঘাটা সড়ক দখল করে এলোপাতাড়ি রাখা হচ্ছে ব্যাটারি চালিত অটো রিকশা টমটম সিএনজি। এসব গাড়িতে যাত্রী তুলতে চালকদের চলে তুমুল প্রতিযোগিতা। যাত্রী তুলে গাড়ি পূর্ণ হওয়ার পর স্থান ত্যাগের পূর্বে কবি নুরুল হুদা সড়কে পনের টাকা দিতে দেখা যায় চালককে। টাকা নেওয়ার বিষয়ে জানতে চাইলে তিনি জানান, ‘প্রতি টমটম থেকে পনের টাকা করে আমরা লাইন চার্জ নিই। ’ তবে এসব টাকা কিসের জন্য, আর কারা এর ভাগ নেন জানতে চাইলে তিনি এ বিষয়ে কিছু বলতে অস্বীকৃতি জানান।

অন্যদিকে ঈদগাঁও বাজারগামী সড়কের প্রবেশমুখে গিয়ে দেখা মিললো সড়কের ওপর রাখা ব্যাটারি চালিত অটো রিকশা টমটম সিএনজি সেগুলো অনেকটা যেমন খুশি তেমনভাবে দাঁড়িয়ে যাত্রী তুলতে ব্যস্ত। পাশে দাঁড়িয়ে থাকা ট্রাফিক কনস্টেবলের সামনে এ ঘটনা ঘটলেও রহস্যজনক কারণে তারা থাকেন নিরব। এ সময় সেখানে সৃষ্টি হয় প্রায় আধা ঘণ্টাব্যাপী যানজটের।

শাপলা চত্বরটি ভাসমান ব্যবসায়ী মোহাম্মদ কালুর সাথে কথা হলে তিনি জানান, ইজারাদার দৈনিক চড়া দামের হাসিল নিয়ে তাদেরকে রাস্তার উপর বসিয়ে দেয়। এতে তাদের কিছুই করার থাকে না।

যানজটে আটকে থাকা সাহাব ঊদ্দীন বলেন,ঈদগাঁও স্টেশনের প্রবেশপথ থেকে হাইস্কুল গেইট পর্যন্ত দুপাশে তরকারীসহ ভ্রাম্যমান ব্যবসায়ীদের নিয়ন্ত্রনে। কোন প্রকার নিয়ম ও শৃংখলা বলতে কিছু নাই। ‘চালকরা যেভাবে ইচ্ছে সেভাবে গাড়ি চালাচ্ছেন। ট্রাফিক আইন না মেনে গাড়ি চালানোর কারণে যানজট এখন অসহনীয় পর্যায়ে চলে গেছে। যেন আমাদের সময়ের দামই নেই ।

এ ব্যাপারে বাজার ব্যবসায়ী পরিচালনা পরিষদের সাধারন সম্পাদক রাজিবুল হক চৌধুরী রিকুর সাথে কথা হলে তিনি জানান, আমরা যানজট নিরসনে ফুতপাত থেকে দোকান উচ্ছেদ করতে ২৯ অক্টোবর সদর উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা বরাবর লিখিত অভিযোগ দায়ের করার পরেও প্রশাসনের কোন অভিযান না থাকার কারনে এ সব সৃষ্টি হচ্ছে। সড়ক দখলকারীদের উচ্ছেদ করতে প্রশাসনের অভিযান দরকার। ব্যবসায়ীরা ফুতপাত দখলমুক্ত করে বাজারকে যানজটমুক্ত করতে সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষের হস্তক্ষেপ কামনা করেছেন।

এ বিষয়ে সদর উপজেলা নিবার্হী কর্মকর্তা সুমাইয়া আক্তার সুইটি’র সাথে কথা হলে তিনি জানান, এ অভিযোগ পেয়েছি, অতি দ্রুত সময়ের মধ্যে এবাজারের ভাসমান ব্যবসায়ীদের ফুতপাত থেকে দখলমুক্ত করে বাজারকে যানজটমুক্ত করা হবে ।

  •  
  •  
  •  
  •  
  •   
  •  
  •