সংবাদ বিজ্ঞপ্তি :

১৪ ডিসেম্বর শহীদ বুদ্ধিজীবী দিবস উপলক্ষে কক্সবাজার সিটি কলেজ মিলনায়তনে সোমবার সকাল ১০ টার সময় সিএসই ডিপার্টমেন্টের বিভাগীয় প্রধান এবং শহীদ বুদ্ধিজীবী দিবস উদযাপন কমিটির আহবায়ক সহযোগি অধ্যাপক আবুল কালাম এর সভাপতিত্বে এবং প্রভাষক রোমেনা আকতারের সঞ্চালনায় আলোচনা সভা অনুষ্ঠিত হয়।

এতে প্রধান অতিথি হিসাবে উপাস্থিত ছিলেন কক্সবাজার সিটি কলেজের অধ্যক্ষ শিক্ষাবন্ধু  প্রফেসর ক্য থিং অং।

প্রধান অতিথি  বক্তব্যে বলেন,বুদ্ধিজীবীদের হত্যা করে  বাংলাদেশকে দমাতে পারে নাই। বাংলাদেশের মানুষ জানে কিভাবে ঘুরে দাড়াতে হয় ।আজ আমরা ঘুরে দাড়িয়েছি।

৯১৬ জন বুদ্ধিজীবী হত্যা করেছিলো বর্বর পাকিস্তানী, কিন্তু তাদের হত্যা করার পিছনে মূল কারিগর ছিল রাজাকার, আল বদর, আল শামস বাহনী। আজ তারা ধিক্কৃত। আগামীর সৈনিকদের বলবো তোমরা যদি মুক্তিযোদ্ধাদের সম্মান করতে চাও, শহীদ বুদ্ধিজীবীদের সম্মান দিতে চাও তাহলে আগে মুক্তিযুদ্ধের সঠিক ইতিহাস, গণহত্যার সঠিক ইতিহাস জানতে হবে। বেশি বেশি বই পড়তে হবে।

তিনি পদ্মা সেতু নির্মাণে সফল ভূমিকা পালন করায় মাননীয় প্রধানমন্ত্রীকে ধন্যবাদ জ্ঞাপন করেন।

বিশেষ অতিথির বক্তব্যে উপাধ্যক্ষ আবু মোঃ জাফর সাদেক বলেন,” শহীদ বুদ্ধিজীবী মানে বাংলাদেশ। আর বাংলাদেশ মানে বঙ্গবন্ধু। তাই আগামীর বুদ্ধিজীবীর প্রতি তিনি বলেন, তোমরা সঠিক ইতিহাস পড়ো, সঠিক ইতিহাস জানো, আর একজন পরিপূর্ণ বাংলাদেশির অবশ্যই বাংলাদেশের সঠিক ইতিহাস জানা দরকার। আজ প্রধানমন্ত্রীর দৃঢ়তার কারণে আমরা পদ্মা সেতুর মতো সেতু তৈরি করতি পেরেছি, করোনা মোকাবেলা প্রায় সফলতা অর্জন করেছি।

এতে আরো বক্তব্য রাখেন অধ্যাপক শাহানুর আকতার, শিক্ষক ক্লাবের সম্পাদক অধ্যাপক হাসেম উদ্দীন, অধ্যাপক নুরুল ইসলাম, অধ্যাপক মইনুল হাসান চৌধুরী, অধ্যাপক শহীদুল ইসলাম চৌ, অধ্যাপক নুরুল আজিম, অধ্যাপক নাসরিন সুলতানা, প্রভাষক এহসান উদ্দীন, কর্মচারীদের পক্ষে নুরুল ইসলাম, শিক্ষার্থীদের পক্ষে মিজানুর রহমান।

অনুষ্ঠানের শুরুতে পবিত্র কোরআনে পাক থেকে তেলাওয়াত করেন প্রভাষক রশিদ আহমদ, পবিত্র গীতা পাঠ করেন প্রভাষক উজ্জ্বল দেব, পবিত্র ত্রিপিটক পাঠ করেন ক্য খিন রাখাইন।

উক্ত অনুষ্ঠানে এছাড়াও উপস্থিত ছিলেন কক্সবাজার সিটি কলেজের শিক্ষকমন্ডলী, কর্মচারীবৃন্দ এবং সকল শিক্ষার্থীবৃন্দ।

আলোচনা অনুষ্ঠানের পুর্বে সকাল ৯টার দিকে সকল, শহীদ বুদ্ধিজীবীদের প্রতি কক্সবাজার সিটি কলেজ শহীদ মিনারে পুষ্পস্তবক অর্পনের মধ্যে দিয়ে শ্রদ্ধাজ্ঞাপন করেন অধ্যক্ষ, উপাধ্যক্ষ ও সকল শিক্ষক-কর্মচারীবৃন্দ।

সার্বক্ষণিক সহযোগিতায় ছিলেন সহকারী অধ্যাপক মেঘলা দেব, প্রভাষক নুরুল হুদা, প্রভাষক কামরুন্নার, প্রভাষক জাহাঙ্গীর আলম, প্রভাষক জমির উদ্দীন, প্রভাষক আব্দুল মান্নান, শরীরচর্চার শিক্ষক রহমত উল্লাহ।

  •  
  •  
  •  
  •  
  •   
  •  
  •