cbn  

সংবাদ বিজ্ঞপ্তি :
শহীদ বুদ্ধিজীবী দিবস উপলক্ষ্যে কক্সবাজার পৌর আওয়ামী লীগের উদ্যোগে আলোচনা সভা ও দোয়া মাহফিল অনুষ্ঠিত হয়েছে। সোমবার  (১৪ ডিসেম্বর) বিকালে জেলা আওয়ামী লীগ কার্যালয়ে পৌর আওয়ামী লীগের সভাপতি মো. নজিবুল ইসলামের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত আলোচনা সভা ও দোয়া মাহফিলের প্রধান অতিথির বক্তব্য রাখে জেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি (ভারপ্রাপ্ত) এড. ফরিদুল ইসলাম চৌধুরী।
প্রধান অতিথির বক্তব্যে তিনি বলেন, ‘অসাম্প্রদায়িক, ধর্মনিরপেক্ষ মানবিক মূল্যবোধের স্বাধীন—সার্বভৌম পরবর্তী বাংলাদেশকে মেধাশূন্য করতেই বর্বর পাকিস্তানি হানাদার বাহিনীর সাথে স্বাধীনতাবিরোধী রাজাকার আলবদর বাহিনী পরিকল্পিতভাবে এ দেশের স্বাধীনতাকামী বুদ্ধিজীবীদের হত্যাযজ্ঞের যে নীলনকশা প্রণয়ন করেছিল, তা আজও অব্যাহত রয়েছে’।
তিনি আরও বলেন, ‘স্বাধীনতার ঊষালগ্নে বর্বর পাকিস্তানি আর স্বাধীনতাবিরোধী রাজাকার—আলবদর বাহিনী সেদিন তাদের পরাজয় নিশ্চিত জেনেই বিশ্ববিদ্যালয় শিক্ষক, চিকিৎসক, শিল্পী, লেখক, সাংবাদিকসহ বহু খ্যাতিমান বাঙালিকে বাসা থেকে তুলে নিয়ে নির্মমভাবে হত্যা করেছে। এখন প্রগতিশীল বুদ্ধিজীবী লেখক, ব্লগারদের আস্তিক, নাস্তিক, মুরতাদ ট্যাগ লাগিয়ে বিতর্কিত করার অপচেষ্টা করছে।’
জেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি (ভারপ্রাপ্ত) এড. ফরিদুল ইসলাম চৌধুরী আরও বলেন, ‘স্বাধীনতার ৫০ বছরের আজকের এই দিনেও স্বাধীনতাবিরোধী মৌলবাদীদের আস্ফালন, বঙ্গবন্ধুর ভাস্কর্যকে ইস্যু করে দেশের শিল্প, সাহিত্য, সংস্কৃতি, ইতিহাস—ঐতিহ্য ধ্বংস করার যে ঐদ্ধত্য, দেশের জাতীয় রাজনৈতিক ব্যক্তিত্ব আর বুদ্ধিজীবীদের বিরুদ্ধে বিষোদগার—অসাম্প্রদায়িক রাজনৈতিক চর্চা আর মানবিক মূল্যবোধের সাংস্কৃতিক জাগরণের ব্যর্থতার পদচিহ্ন, যা ভবিষ্যৎ গণতন্ত্র, অসাম্প্রদায়িক চেতনা ও উন্নয়নের বাংলাদেশের গতিরোধক। বুদ্ধিজীবীদের রক্তের ঋণ কখনোই শোধ হবে না। তাদের দেশের জন্য যে আত্মত্যাগ সেটিকে সার্থক করতে সবাইকে ঐক্যবদ্ধভাবে কাজ করতে হবে।’
সভায় প্রধান বক্তার বক্তব্য রাখেন জেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক পৌর মেয়র মুজিবুর রহমান।
বক্তব্যে তিনি বলেন, ‘পাকিস্তানিরা যখন পরাজয়ের শেষ প্রান্তে ছিল, তখন পরিকল্পিতভাবে বাংলাদেশ যেন মাথা উঁচু করে না দাঁড়াতে পারে সেজন্য ইতিহাসের সবচেয়ে জঘন্যতম হত্যাকাণ্ড চালিয়েছিল। এই বুদ্ধিজীবীদের অবদানে আমরা স্বাধীন বাংলাদেশে বসবাস করছি। বুদ্ধিজীবীদের অবদানে আমাদের দেশ আরও সমৃদ্ধ হতে পারতো। কিন্তু পাকিস্তানিরা তা দেয়নি, তাই আমরা পিছিয়ে পড়েছি। তাদের ষড়যন্ত্রের পরেও প্রধানমন্ত্রী জননেত্রী শেখ হাসিনার নেতৃত্বে বাংলাদেশ এখন অনেক এগিয়েছে।’
এতে বিশেষ অতিথির বক্তব্যে আশেক উল্লাহ রফিক এমপি বলেন, ‘ বঙ্গবন্ধু যে গতিশীল বাংলাদেশের স্বপ্ন দেখেছিলেন তারই ধারাবাহিকতায় দেশকে এগিয়ে নিয়ে যাচ্ছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। তাই শত প্রতিকূলতা পেরিয়ে সফল হওয়ার যে সংস্কৃতি তিনি গড়ে তুলেছেন সেটিই আমাদের সাহস যোগাচ্ছে জাতীয় উন্নয়নের স্বপ্ন পূরণের লড়াইয়ে এগিয়ে যাওয়ার। বঙ্গবন্ধুর পূণ্য আত্মার প্রতি শপথ রেখে এবং শহীদ বুদ্ধিজীবীদের আত্মার প্রতি শপথ রেখে আসুন আমরা বঙ্গবন্ধুর স্বপ্ন ও বঙ্গবন্ধু কন্যার স্বপ্ন পূরণে নিবেদিত থাকি এবং বাংলাদেশকে সামনের দিকে এগিয়ে নিয়ে যাই।’
পৌর আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক উজ্জ্বল করের সঞ্চালনায় অনুষ্ঠিত সভায় বক্তব্য রাখেন জেলা আওয়ামী লীগের সাবেক সাধারণ সম্পাদক সালাহ উদ্দিন আহমদ সিআইপি, যুগ্ন সাধারণ রণজিত দাশ, ত্রাণ ও সম্পাদক ইউনুছ বাঙালী, জেলা যুবলীগের সভাপতি সোহেল আহমদ বাহাদুর, পৌর আওয়ামী লীগের সহ—সভাপতি আছিফুল মাওলা, সাইফুল ইসলাম চৌধুরী শাহনেওয়াজ চৌধুরী, ডা. পরিমল কান্তি দাশ, পৌর আওয়ামী লীগ নেতা সেলিম নেওয়াজ, জানে আলম পুতু, এড. রিদুয়ান আলী ও ইয়াহিয়া খান।
সভায় উপস্থিত ছিলেন পৌর আওয়ামীলীগ নেতা মিজানুর রহমান, জিয়া উল্লাহ চৌধুরী, জাফর আলম, ওয়াহিদ মুরাদ সুমন, নুরুল আলম পেটান, ফয়সাল হুদা, উখিয়া উপজেলা যুবলীগের যুগ্ন সম্পাদক ইমরুল কায়েস ও জেলা ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদক মারুফ আদনান।

পরে শহীদ বুদ্ধিজীবীদের আত্মার মাগফেরাত কামনায় দোয়া ও বিশেষ মোনাজাত করা হয়।

  •  
  •  
  •  
  •  
  •   
  •  
  •