এম.মনছুর আলম, চকরিয়া:
চট্রগ্রাম-ককসবাজার মহাসড়কে এক ছেলেকে বাঁচাতে গিয়ে নিয়ন্ত্রণ হারিয়ে সৌদিয়া পরিবহনের যাত্রীবাহী বাস উল্টে গিয়ে আফরোজা হাসনাইন (৪৫) নামের এক নারীর মৃত্যু হয়েছে।

এছাড়াও ওই গাড়ির অন্তত ৭-৮ ব্যক্তি গুরুতর আহত হয়। আহত যাত্রীদে ঘটনাস্থল থেকে উদ্ধার করে বিভিন্ন হাসপাতালে প্রেরণ করা হয়।

বুধবার (৯ ডিসেম্বর) দুপুর ২ টার দিকে কক্সবাজার মহাসড়কের চকরিয়া পাগলিরবিল নামক এলাকায় এ দূর্ঘটনা ঘটে।

নিহত আফরোজা হাসনাইন চট্টগ্রামের আনোয়ারা উপজেলার বারকাইন ইউনিয়নের সেলাইভরা এলাকার হাসনাইন জলিল চৌধুরী স্ত্রী।

টনায় আহত যাত্রীরা হলেন- নিহত আফরোজা হাসনাইন এর ছেলে আজমাইল জলিল(১৭) তার মেয়ে মাশরুবা(১৩), লোহাগাড়া উপজেলার মৃত আব্দুল হাফেজের ছেলে আবুল হোসেন(৫০) সহ আরো ৪-৫ জন যাত্রীকে ঘটনাস্থল থেকে উদ্ধার করে তাৎক্ষণিক হাসপাতালে প্রেরণ করায় তাদের পরিচয় নেওয়া সম্ভব হয়নি।

স্থানীয় ও প্রত্যক্ষদর্শীরা জানায়, কক্সবাজার মহাসড়কের চকরিয়া উপজেলার খুটাখালীস্থ পাগলিরবিল নামক এলাকায় ছোট্ট একটি বাচ্চা দৌড়ে মহাসড়ক পারাপার করছিল। এসময় দ্রুতগামী কক্সবাজারমূখী সৌদিয়া পরিবহণের একটি বাস ছেলেটিকে বাচাঁতে গিয়ে গাড়িটি নিয়ন্ত্রণ হারিয়ে সড়কের পাশে উল্টে যায়। ওই সময় গাড়িতে থাকা অন্তত ৮-৯জন যাত্রী গুরুতর আহত হয়। সড়ক দুর্ঘটনার খবর পেয়ে হাইওয়ে পুলিশের একটি দল ঘটনাস্থলে পৌঁছে স্থানীয়দের সহায়তায় তাদেরকে উদ্ধার করে মালুমঘাট মেমোরিয়াল খ্রীষ্টান হাসপাতালসহ বিভিন্ন হাসপাতালে চিকিৎসার জন্য প্রেরণ করেন। তৎমধ্যে গুরুতর আহত আফরোজা হাসনাইন (৪৫) নামের এক নারীকে মুমূর্ষ অবস্থায় হাসপাতালে নেওয়ার পথে মারা যান।

মহাসড়কের মালুমঘাট হাইওয়ে পুলিশ ফাঁড়ির (এস আই) নওফেল বলেন, মহাসড়কে যাত্রীবাহি সাদিয়া পরিবহণের একটি গাড়ী নিয়ন্ত্রণ হারিয়ে উল্টে ৭-৮ জন যাত্রী আহত হয়। দুর্ঘটনার খবর পেয়ে দ্রুত ঘটনাস্থলেপৌঁছে স্থানীয় জনতার সহায়তায় আহতদেরকে বিভিন্ন হাসপাতালে চিকিৎসার জন্য পাঠানো হয়েছে। দুর্ঘটনা কবলিত গাড়িটি জব্দ করে পুলিশ ফাঁড়িতে রাখা হয়। এনিয়ে আইনগত ব্যবস্থা নেওয়া হচ্ছে বলে তিনি জানান।

  •  
  •  
  •  
  •  
  •   
  •  
  •