মুহাম্মদ আবু সিদ্দিক ওসমানী :

মহেশখালীকে আন্তর্জাতিক মানের পর্যটন স্পট হিসেবে গড়ে তুলতে অনতিবিলম্বে প্রাকৃতিক সৌন্দর্য অক্ষত রেখে ইকো-ট্যুরিজম পার্ক গড়ে তোলা হবে।

বুধবার ৯ ডিসেম্বর “আদিনাথ পর্যবেক্ষণ টাওয়ার” এর নির্মাণ কাজের ভিত্তিপ্রস্তর স্থাপন অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তব্যে কক্সবাজারের জেলা প্রশাসক মোঃ কামাল হোসেন একথা বলেন।

জেলা প্রশাসক মোঃ কামাল হোসেন আরো বলেন, মহেশখালী আথিনাথ মন্দির মৈনাক পর্বতের চূড়ায় নব নির্মিত পর্যবেক্ষণ টাওয়ার কক্সবাজারের পর্যটন শিল্পে নতুনত্ব আনবে। এ টাওয়ার পর্যটনে নতুন মাত্রা যোগ হয়েছে। এ টাওয়ারের মাধ্যমে পর্যটকেরা পুরো কক্সবাজারের অপরূপ শোভা দেখার সুযোগ পাবে।

অনুষ্ঠানে অন্যান্যের মধ্যে অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক (সার্বিক) মোহাম্মদ মাসুদুর রহমান মোল্লা, মহেশখালী উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান শরীফ বাদশা, মহেশখালীর উপজেলা নির্বাহী অফিসার মোঃ মাহফুজুর রহমান, উপজেলা প্রকৌশলী সবুজ কুমার দে, মহেশখালীর পিআইও রাশেদুল ইসলাম প্রমুখ উপস্থিত ছিলেন।

জেলা প্রশাসক মোঃ কামাল হোসেন এসময় টাওয়ারটির নির্মাণ কাজের ব্যয়ের চেক প্রদান করেন। মহেশখালীতে পর্যটন শিল্পের প্রসারে কক্সবাজার জেলা প্রশাসনের নির্দেশনায় মহেশখালী উপজেলা প্রশাসন টাওয়ারটি নির্মাণ করছে। সুদৃশ্য ও নান্দনিক এ টাওয়ারটির ডিজাইন করেছেন- মহেশখালীর সন্তান স্থাপত্যবিদ নাজমুল আসিফ রিশাত।

হিন্দু ধর্মের বিভিন্ন ধর্ম গ্রন্থানুযায়ী হাজার বছর পূর্বে ত্রেতাযুগে প্রতিষ্ঠিত আদিনাথ মন্দির ধর্মীয় ও ঐতিহাসিকভাবে যেমন গুরুত্বপূর্ণ তেমনি পর্যটনের দিক দিয়েও অপার সম্ভাবনাময়। দূর-দূরান্ত হতে হাজার হাজার পর্যটক প্রতিদিন বাংলাদেশের একমাত্র পাহাড়ি দ্বীপ মহেশখালী বেড়াতে আসেন। ঘুরে যান মৈনাক পর্বতের চূড়ায় স্থাপিত এ তীর্থস্থান।

বাংলাদেশের একমাত্র পাহাড়ি দ্বীপ মহেশখালী পর্যটন সম্ভাবনায় ভরপুর। মহেশখালীতে পর্যটনের প্রসারের লক্ষ্যে পর্যটন স্পট বাড়ানো, পর্যটকদের বিভিন্ন সুযোগ সুবিধা বাড়ানো সহ কক্সবাজার জেলা প্রশাসনের নির্দেশনায় মহেশখালী উপজেলা প্রশাসন বিভিন্ন বিষয় নিয়ে কাজ করে যাচ্ছে বলে অনুষ্ঠানে জানানো হয়।

  •  
  •  
  •  
  •  
  •   
  •  
  •