সিবিএন ডেস্ক:

আইন-শৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীর সার্বিক্ষণিক তৎপরতার মধ্যেও দেশজুড়ে বন্ধ নেই ইয়াবার চোরাচালান। তবে দেশের গণ্ডি পেরিয়ে এবার ডাকযোগে আমেরিকায় ইয়াবা পাচারের তথ্য পেয়েছে পুলিশ।

পোস্ট অফিসের মাধ্যমে পার্সেলযোগে আমেরিকার নিউইয়র্কে ইয়াবা পাচারের ঘটনায় চার মাদকবিক্রেতাকে গ্রেফতার করেছে ঢাকা মেট্রোপলিটন পুলিশের (ডিএমপি) খিলগাঁও থানা পুলিশ। পরে তাদের জিজ্ঞাসাবাদে বেরিয়ে আসে ইয়াবা পাচারের এই অভিনব পন্থার তথ্য।

তাদের দেওয়া তথ্য অনুযায়ী তাৎক্ষণিকভাবে রাজধানীর গুলিস্তানের জিপিওতে সহায়তা চায় পুলিশ। সেখানকার কর্মকর্তাদের সহায়তায় পার্সেলটি খুঁজে বের করা হয়।

ফলে দেশে থাকতেই বিপুল পরিমাণ ইয়াবার চালানটি আটকে দেওয়া সম্ভব হয়।
সংশ্লিষ্টরা জানান, আমেরিকার অরিন মাহজাবিন নামে একজনের কাছে ইয়াবার পার্সেলটি পাঠানো হচ্ছিল।

প্রাপকের বিষয়ে প্রাথমিকভাবে এর চেয়ে বেশি কিছু জানা যায়নি। এর আগেও একবার পোস্ট অফিসের মাধ্যমে নিউইয়র্কে ইয়াবা পাচারের তথ্য পাওয়া গেছে। তবে গ্রেফতারদের রিমান্ডে এনে জিজ্ঞাসাবাদ করলে এ বিষয়ে বিস্তারিত জানা যাবে।
এ ঘটনায় গ্রেফতাররা হলেন- নাহিদ পারভেজ তাহিন (৩৭), মিজানুর রহমান জুয়েল (৩৮), এনাম হোসেন খান রাহাত (৪০) ও রাজিব হাওলাদার (২৮)।

রোববার (০৬ ডিসেম্বর) খিলগাঁও থানাধীন বনশ্রী এলাকায় অভিযান চালিয়ে তাদের আটক করা হয়। সে সময় তাৎক্ষণিকভাবে তাদের কাছ থেকে ৮০ পিস ইয়াবা উদ্ধার করা হয়। সোমবার (০৭ ডিসেম্বর) খিলগাঁও থানায় দায়েরকৃত একটি মামলায় গ্রেফতার দেখিয়ে তাদের আদালতে পাঠানো হয়।

পুলিশ জানায়, গ্রেফতার চারজন সম্প্রতি কক্সবাজার থেকে এস এ পরিবহনের মাধ্যমে পার্সেল আকারে আসা ইয়াবার চালানটি সংগ্রহ করেন। এরপর গত ০৬ ডিসেম্বর ইয়াবার চালানটি নিউইয়র্কে পাঠানোর উদ্দেশ্যে জিপিওতে জমা দেওয়ার বিষয়টি স্বীকার করেন। তাদের দেওয়া তথ্যের ভিত্তিতে জিপিও কর্তৃপক্ষের সহযোগিতায় ওই পার্সেলটি শনাক্ত করা হয়।

জিপিও কর্তৃপক্ষের উপস্থিতিতে পার্সেলটি খোলা হয়। পার্সেলের মধ্যে দু’টি জিন্স প্যান্টের কোমরের ফাঁকা জায়গায় এবং লেগ হোলের সেলাইয়ের ভেতর ফাঁকা জায়গায় পলিথিন দিয়ে অভিনব পন্থায় প্যাকিং করা ৬৮টি স্ট্রাইক পাওয়া যায়। ওই দু’টি জিন্স প্যান্ট থেকে পাওয়া ৬৮টি স্ট্রাইক থেকে মোট ২ হাজার ৪০ পিস ইয়াবা উদ্ধার করা হয়।

মঙ্গলবার (০৮ ডিসেম্বর) মামলার তদারকী কর্মকর্তা খিলগাঁও জোনের সহকারী পুলিশ কমিশনার (এসি) জুলফিকার আলী বাংলানিউজকে জানান, বনশ্রী এলাকায় কয়েকজন মাদকবিক্রেতা অবস্থান করছেন, এমন গোপন তথ্যের ভিত্তিতে অভিযান চালিয়ে ওই চার জনকে গ্রেফতার করা হয়। তাদের কাছ থেকে ৮০ পিস ইয়াবা উদ্ধার করা হয়। পরে তাদের জিজ্ঞাসাবাদে আমেরিকার নিউইয়র্কে পার্সেলযোগে ইয়াবা পাচারের তথ্য বেরিয়ে আসে।

তিনি জানান, গত ০৯ নভেম্বর আমেরিকার একই ঠিকানায় আরও একটি ইয়াবার চালান পাঠানো হয়েছিল বলে প্রাথমিকভাবে জানতে পেরেছি। কিন্তু পার্সেলটি রিসিভারের হাতে পৌঁছেছে কি-না আমরা নিশ্চিত হতে পারিনি। রিসিভারের বিষয়েও এখনো বিস্তারিত জানা সম্ভব হয়নি।

তিনি আরও বলেন, তারা এর আগে ঠিক কতটি চালান পাঠিয়েছিল এবং এই সিন্ডিকেটে অর্থ লগ্নিকারী এবং পৃষ্ঠপোষকদের বিষয়ে যাবতীয় তথ্য সংগ্রহের চেষ্টা অব্যাহত রয়েছে। গ্রেফতারদের রিমান্ডে এনে জিজ্ঞাসাবাদ করলে এ বিষয়ে আরও বিস্তারিত জানা যাবে।

  •  
  •  
  •  
  •  
  •   
  •  
  •