অনলাইন ডেস্ক : রাজশাহীতে প্রকাশ্যে ধূমপান করে তোপের মুখেপড়া এক তরুণীর ভিডিও ভাইরাল হওয়ার পর দেশব্যাপী তোলপাড় চলছে।

ভাইরাল হওয়া ওই ভিডিওতে তরুণীর ঠোঁটে সিগারেট দেখে ঘিরে ধরে একদল লোক। তারা ওই তরুণীকে সিগারেট ফেলে দিয়ে স্থান ত্যাগ করতে বাধ্য করেন। ওই তরুণীর সঙ্গে একজন তরুণও ছিলেন। তবে ওই তরুণীকে হেনস্তাকারী ব্যক্তিকে শনাক্ত করেছে পুলিশ।

সংশ্লিষ্ট সূত্রে জানা গেছে, রাজশাহী মহানগরীর সার্কিট হাউস এলাকায় রোববার বিকালে এ ঘটনা ঘটে।

ওই তরুণ-তরুণীকে হেনস্তা করার সময় কয়েকজন ব্যক্তি সেটি ভিডিও করেন। এর পর সামাজিক যোগাযোগমাধ্যম ফেসবুকে ভিডিওটি ছাড়া হয়। ইতিমধ্যে তা সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে ভাইরাল হয়েছে। বিষয়টি নিয়ে দেশব্যাপী তোলপাড় চলছে। ইতিমধ্যে অনেক ব্যক্তিই ফেসবুকে পোস্ট দিয়ে হেনস্তাকারী ব্যক্তির শাস্তির দাবি জানিয়েছেন।

ভিডিওতে দেখা যায়, রাজশাহী সার্কিট হাউসের পাশে ফুটপাতে ওই তরুণ-তরুণী বসে ধূমপান করছিলেন। মেয়েটি শাড়ি ও ছেলেটি টিশার্ট-প্যান্ট পরা ছিলেন। তাদের দুজনের হাতেই সিগারেট ছিল। এ ঘটনা দেখে প্রথমে মাঝবয়সী এক ব্যক্তি তাদের সিগারেট ফেলে দিয়ে সেখান থেকে চলে যেতে বলেন। এ নিয়ে তাদের মধ্যে তর্কবিতর্ক শুরু হয়ে যায়।

হেনস্তাকারী ব্যক্তি তাদের ধমকাতে শুরু করেন। মেয়েটি প্রতিবাদ করে তাকে গলা নামিয়ে কথা বলতে বলেন। তার পরিচয় জানতে চান। মুহূর্তের মধ্যে সেখানে ১৫-২০ জন মানুষ জোড় হন। সবাই একজোট হয়ে ওই তরুণ-তরুণীকে ওই স্থান ত্যাগ করার জন্য চাপ দিতে থাকেন। তাদের মধ্য থেকে এক ব্যক্তি এসে বিষয়টি মিটমাট করে দেয়ার চেষ্টা করেন।
তিনি প্রথম থেকে আক্রমণকারী ব্যক্তিকে নিবৃত্ত করার চেষ্টা করেন। তখন তাদের উভয়ে মধ্যে বিতর্ক শুরু হয়ে যায়।

এ সময় মেয়েটি বলেন, মেয়ে বলেই তাকে বাধা দেয়া হচ্ছে। এ সময় একজন বলেন, এভাবে প্রকাশ্যে মেয়েমানুষ ধূমপান করলে তাদের পাড়ার মেয়েরা নষ্ট হয়ে যাবে। মধ্যস্থতাকারী লোকটি তরুণ-তরুণীকে বোঝান, বুঝছেন না যে, মেয়ে বলেই আপনাকে উঠে যেতে বলছে। আপনারা উঠে যান।

একপর্যায়ে ওই তরুণ-তরুণী উঠে যেতে বাধ্য হন। যাওয়ার সময় মেয়েটি পেছন ফিরে তাকান। তা দেখে হেনস্তাকারী লোকটি চেঁচিয়ে বলেন, আবার ট্যারা চোখে তাকাচ্ছে।

এদিকে সার্কিট হাউসে প্রকাশ্যে ধূমপানের জের ধরে তরুণীকে হেনস্তার পেছনের ব্যক্তির পরিচয় পাওয়া গেছে। তার নাম শহীদ হোসেন বারেক (৪৪)। তিনি উগ্র ভাষা ব্যবহার করে ওই তরুণীকে স্থান ত্যাগ করতে বাধ্য করেন। বর্তমানে পুলিশ খোঁজ নিচ্ছে হেনস্তা করা ওই ব্যক্তির।

জানা গেছে, শহীদ হোসেন বারেক রাজশাহী সিটি কর্পোরেশনের ৮ নম্বর ওয়ার্ড কাউন্সিলর পদে দুবার নির্বাচন করে জামানত হারান। নির্বাচনে তার ভরাডুবি ঘটে। বর্তমানে তিনি ঠিকাদারি করেন।

এ বিষয়ে রাজশাহী মহানগর পুলিশ (আরএমপি) কমিশনার আবু কালাম সিদ্দিক বলেন, ঘটনার সঙ্গে কারা জড়িত তা জানতে পুলিশ খোঁজ নিচ্ছে। ইতোমধ্যে হেনস্তাকারী ব্যক্তিকে চিহ্নিত করা হয়েছে। ওই ব্যক্তির দ্বারা যারা হেনস্তার শিকার হয়েছেন, তারা অভিযোগ দিলে আইনগত ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে।

 

  •  
  •  
  •  
  •  
  •   
  •  
  •