প্রেস বিজ্ঞপ্তি :

চকরিয়া উপজেলার বমুবিলছড়ি ইউনিয়নের নির্মানাধীন গার্ডার ব্রীজ ও বিদ্যালয় উন্নয়ন কাজের ভিত্তিপ্রস্তর স্থাপন করেছেন চকরিয়া-পেকুয়া আসনের সংসদ সদস্য ও চকরিয়া উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি আলহাজ্ব জাফর আলম এমএ। বমুবিলছড়িতে দিনব্যাপী কমসূচির অংশ হিসেবে তিনি বিভিন্ন এলাকায় গণসংযোগ, ধর্মীয় প্রতিষ্ঠান, স্বাস্থ্য সেবা কেন্দ্র পরিদর্শন করেন।

এছাড়াও তিনি ইউনিয়নের দূরারোগ্য ব্যধিতে আক্রান্ত রোগীদের ব্যক্তিগত তহবিল থেকে অর্থ সহায়তা প্রদান করেন। ৬ডিসেম্বর (রোববার) সকাল থেকে বিকেল পর্যন্ত বমুবিলছড়ি ইউনিয়নের বিভিন্ন এলাকায় তিনি এসব কার্যক্রমের ভিত্তিপ্রস্তর স্থাপন করেন। এরআগে সকালে চকরিয়া শহর থেকে এমপি জাফর আলম চকরিয়া ছিটমহল খ্যাত বমুবিলছড়ি ইউনিয়নে পৌঁছান।

এরআগে সকালে বমুবিলছডি ইউনিয়নের গুরুত্বপূর্ণ সড়ক বমুবিলছড়ি ইউপি-ফাদুখোলা-নন্দিরবিল সড়কের ‘নন্দিরবিল খালের’ উপর ৪ কোটি ২০ লক্ষ টাকা ব্যয়ে নির্মিতব্য গার্ডার ব্রীজের উন্নয়ন কাজের ভিত্তিপ্রস্তর স্থাপন করেন তিনি। এরপর ২ কোটি ৮৮ লক্ষ টাকা ব্যয়ে নির্মানাধীন ইউনিয়নের একমাত্র মাধ্যমিক বিদ্যালয় ‘শহীদ আব্দুল হামিদ মাধ্যমিক বিদ্যালয়’র ৪ তলা বিশিষ্ট একাডেমিক ভবনের ভিত্তিপ্রস্তর স্থাপন করেন।

এছাড়াও তিনি বমুবিলছড়ি ইউনিয়নের বিভিন্ন গ্রাম ও ওয়ার্ডে ঘুরে দেখেন। দিনব্যাপী গনসংযোগকালে বিভিন্ন ধর্মীয় শিক্ষা প্রতিষ্ঠান, স্বাস্থ্য সেবা কেন্দ্র পরিদর্শন ও সহায়তা প্রদান করেন। ইউনিয়নের বিভিন্ন এলাকায় দূরারোগ্য ব্যাধিতে আক্রান্ত রোগীদের বাড়িতে গিয়ে তাদের শারীরিক খোঁজখবর নিয়ে ব্যক্তিগত তহবিল থেকে নগদ অর্থ সহায়তা প্রদান করেন।

চকরিয়া-পেকুয়া আসনের এমপি জাফর আলম বমুবিলছড়ি ইউনিয়নের মানুষকে সুখবর দিয়ে বলেন, ‘এই এলাকার মানুষের যোগাযোগ ব্যবস্থা আগে অনেক কষ্টদায়ক ছিল। অতি দ্রুত সময়ে মধ্যে যোগাযোগ ব্যবস্থা উন্নত করা হবে। বমুবিলছড়ি ইউনিয়নের কোন কাঁচা রাস্তা থাকবে না। জননেত্রী শেখ হাসিনার সরকারের প্রতি আস্থা রাখুন। দেশে যেভাবে উন্নয়ন কাজ চলছে, কয়েক বছর পর দেশের চেহারা পাল্টে যাবে।’

কুষ্টিয়ায় বঙ্গবন্ধুর নিমার্ণাধীন ভাস্কর্য ভাঙচুর’র কথা উল্লেখ করে এমপি জাফর আলম বলেন, ‘এ ধরনের নোংরা কাজ কোনোভাবেই বরদাশত করা হবে না। যারাই এ ঘটনা ঘটিয়েছে এবং মদদ দিয়েছে, তাদের প্রত্যেককেই খুঁজে বের করে কঠিন শাস্তি প্রদান করা হবে। যে বা যারা ভাঙচুর করেছে তাদের কাউকে এক চুলও ছাড় দেওয়া হবে না।’

এসময় উপস্থিত ছিলেন, লামা পৌরসভার মেয়র ও লামা উপজেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক জহিরুল ইসলাম, কক্সবাজার জেলা আওয়ামী লীগের সদস্য আমিনুর রশিদ দুলাল, কক্সবাজার জেলা কৃষকলীগের সিনিয়র সহসভাপতি আনিসুল হক চৌধুরী, যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক মুজিবুর রহমান, সাংগঠনিক সম্পাদক রিয়াজ মোরর্শেদ, চকরিয়া উপজেলা কৃষকলীগের সভাপতি ও চিরিঙ্গা ইউপি চেয়ারম্যান জসিম উদ্দিন বিএ, বমুবিলছড়ি ইউপি চেয়ারম্যান আব্দুল মতলব, চকরিয়া উপজেলা আওয়ামী লীগের প্রচার সম্পাদক আবু মুছা, উপজেলা কৃষকলীগের সাধারণ সম্পাদক আমির হোসেন আমু, এমপি জাফর আলমের ব্যক্তিগত সহকারী আমিন চৌধুরী, বমুবিলছড়ি ইউনিয়ন আওয়ামী লীগ নেতা কফিল উদ্দিন, মনছুর, মোজাফফ্রসহ প্রমুখ।

এছাড়াও ইউনিয়ন যুবলীগ, ছাত্রলীগ, কৃষকলীগসহ অঙ্গ ও সহযোগী সংগঠনের নেতৃবৃন্দরা উপস্থিত ছিলেন।

  •  
  •  
  •  
  •  
  •   
  •  
  •