অনলাইন ডেস্ক : কুষ্টিয়ায় জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের ভাস্কর্য ভাঙচুরের প্রতিবাদে রাজধানীতে বিক্ষোভ করেছেন আওয়ামী লীগ ও এর সহযোগী সংগঠনগুলোর নেতাকর্মীরা।

সমাবেশে বক্তারা ভাস্কর্য অবমাননাকারীদের দ্রুত গ্রেপ্তার করে দৃষ্টান্তমূলক শাস্তির দাবি জানিয়েছেন।

শনিবার সন্ধ্যা ৬টায় বঙ্গবন্ধু এভিনিউতে বাংলাদেশ আওয়ামী লীগ কেন্দ্রীয় কার্যালয়ে সামনে বিক্ষোভ সমাবেশ করে ঢাকা মহানগর দক্ষিণ আওয়ামী লীগ।

সমাবেশে যারা জাতির পিতার ভাস্কর্য ভেঙ্গেছে তাদের কোনোভাবেই ছাড় দেয়া হবেনা বলে হুঁশিয়ারি দেন মহানগর দক্ষিণ আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক হুমায়ুন কবির। তিনি বলেন, পাকিস্তানের প্রেতাত্মারা ফের সক্রিয় হয়ে উঠেছে। এদের বিরুদ্ধে কঠোর আন্দোলন গড়ে তুলতে হবে, প্রতিহত করতে হবে।

এদিকে সন্ধ্যায় ধানমণ্ডিতে আওয়ামী লীগ সভানেত্রীর রাজনৈতিক কার্যালয়ের সামনের রাস্তায় বিক্ষোভ মিছিল ও সমাবেশ করে ঢাকা মহানগর উত্তর আওয়ামী লীগ ও স্বেচ্ছাসেবক লীগ।

সমাবেশে সাম্প্রদায়িক উগ্রতা দেখাতে চাইলে মৌলবাদী অপশক্তিকে দাঁতভাঙ্গা জবাব দেওয়া হবে জানিয়ে মহানগর উত্তরের সভাপতি বজলুর রহমান বলেন, একাত্তরে এই মৌলবাদী অপশক্তিকে মুক্তিযোদ্ধারা জবাব দিয়েছে, এখন আবার তারা মাথাচাড়া দিয়ে উঠতে চায়। তারা আবার সাম্প্রদায়িক উগ্রতা দেখাতে চাইলে দাঁতভাঙ্গা জবাব দেওয়া হবে।

স্বেচ্ছাসেবক লীগের কেন্দ্রীয় কমিটির সাধারণ সম্পাদক ফজলুর রহমান বাবু বলেন, ভাস্কর্য ভাঙচুর এবং বঙ্গবন্ধুর ভাস্কর্য বিরোধীদের অবিলম্বে গ্রেপ্তার করে আইনের আওতায় নিয়ে আসতে হবে।

অপরদিকে বঙ্গবন্ধুর ভাস্কর্য ভাঙচুরের প্রতিবাদে সন্ধ্যা ৬টায় জাতীয় প্রেস ক্লাবের সামনে থেকে বিক্ষোভ মিছিল বের করেন বাংলাদেশ কৃষক লীগের নেতাকর্মীরা। সন্ধ্যা ৭টায় আওয়ামী লীগ কার্যালয়ের সামনে বিক্ষোভ মিছিল শেষে সমাবেশ করে ছাত্রলীগ।

সমাবেশে ছাত্রলীগ সভাপতি আল নাহিয়ান খান জয় বলেন, যারা রাতের অন্ধকারে চোরের মতো জাতির পিতার ভাস্কর্য ভেঙেছেন, দিনের আলোয় পারলে সামনে আসেন, যদি আপনাদের এত ঈমানী শক্তি থাকে।

এ সময় ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদক লেখক ভট্টাচার্য বলেন, এর আগে আমরা প্রতিবাদ করেছি। এবার প্রতিরোধের সময় এসেছে।

কুষ্টিয়ায় জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের নির্মাণাধীন ভাস্কর্য ভাঙার প্রতিবাদে একইদিন মশাল মিছিল করেছে মুক্তিযুদ্ধ মঞ্চ।

সন্ধ্যায় ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের টিএসসি থেকে এই মিছিল শুরু হয়ে ক্যাম্পাসের গুরুত্বপূর্ণ সড়ক প্রদক্ষিণ শেষে রাজু ভাস্কর্যের পাদদেশে সমাবেশে মিলিত হয়। এসময় ভাস্কর্য ভাঙার সঙ্গে জড়িতদের অবিলম্বে গ্রেপ্তার ও দৃষ্টান্তমূলক শাস্তির দাবি জানানো হয়।
-বিডি জার্নাল

  •  
  •  
  •  
  •  
  •   
  •  
  •