আবুল কালাম , চট্টগ্রাম :

কুষ্টিয়ায় বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের নির্মাণাধীন ভাস্কর্য ভাঙচুরের প্রতিবাদে চট্টগ্রাম নগরীতে বিভিন্ন এলাকায় গুরুত্বপূর্ণ পয়েন্টে ছাত্রলীগ ও যুবলীগের যৌথ উদ্যোগে বিক্ষোভ মিছিল মিছিল করেছেন নেতাকর্মীরা।
শনিবার (৫ ডিসেম্বর) রাতের দিকে নগরীর হালিশহর ও জিইসি মোড় এলাকায় এ বিক্ষোভ মিছিল অনিষ্ঠত হয়।

উক্ত বিক্ষোভ মিছিলে কেন্দ্রীয় ছাত্রলীগের সাবেক সহ-সম্পাদক ও ওমরগনি এমইএস কলেজ ছাত্রলীগ সভাপতি হাবিবুর রহমান তারেকের নেতৃত্বে জিইসি মোড়ে মশাল মিছিল বের করা হয়। মিছিলটি নগরের বিভিন্ন গুরুত্বপূর্ণ জায়গা প্রদক্ষিণ করে জিইসি মোড়ে এসে শেষ হয়।

পরে সংক্ষিপ্ত সমাবেশে বক্তারা বলেন, ২৪ ঘন্টার মধ্যে বঙ্গবন্ধুর ভাস্কর্য ভাঙচুরকারীদের খুঁজে বের করতে হবে। অন্যথায় ছাত্রলীগে তাদের খুঁজে বের করে দেশ ছাড়া করবে।

তারা বঙ্গবন্ধুর ভাস্কর্য ভাঙচুর করে, কোটি কোটি বঙ্গবন্ধুর সৈনিকদের হৃদয়ে আঘাত করেছে। সবার হৃদয়কে রক্তাক্ত করেছে।
এ আঘাত কিছুতেই সহ্য করা হবে না।
এ সময় উপস্থিত ছিলেন ছাত্রলীগ নেতা সাইদুর রহমান শাকিল, এম হাসান আলী, শরফুল আনাম জুয়েল, আনিসুর রহমান, কামরুল ইসলাম, জাহেদুল ইসলাম, আরজু ইসলাম বাবু, ইমাম উদ্দিন নয়ন, সুলতান মাহমুদ ফয়সাল, মো. সালাউদ্দিন, সালাউদ্দিন বাবু, ইমতিয়াজ মনি, আনসার উল্লাহ সৌরভ, কাজী মাহমুদুল হাসান, রুবেল সরকার, ইমরান হোসেন, ইমান হোসেন ইমন, শাহদাত হোসেন হীরা, মাহাফুজ হোসেন, অর্পন চক্রবর্তী, আব্দুল হাকিম ফয়সাল, নুর উদ্দিন তুফান, জনি বড়ুয়া, আবু সাইদ মুন্না, সালাউদ্দিন কাদের আর্জু, শেখ নিয়াজ উদ্দিন আহমেদ ফাহাদ প্রমুখ।
হালিশহর থানা যুবলীগ ও ছাত্রলীগের বিক্ষোভ

এদিকে বঙ্গবন্ধুর ভাস্কর্য ভাঙচুরের প্রতিবাদে হালিশহরেও যুবলীগ-ছাত্রলীগের উদ্যোগে বিক্ষোভ মিছিল ও সমাবেশ অনুষ্ঠিত হয়েছে। রাতে হালিশহরের বিডিআর মাঠ প্রাঙ্গণে এ বিক্ষোভ মিছিল অনুষ্ঠিত হয়।

থানা ছাত্রলীগ নেতা মাহফুজ আহমেদ ফাহিমের নেতৃত্বে মিছিলটি হালিশহরের বিভিন্ন সড়ক প্রদক্ষিণ করে নয়াবাজার মোড়ে এসে শেষ হয়।

সংক্ষিপ্ত সমাবেশে বক্তব্য দেন নগর ছাত্রলীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক গোলাম সামদানি জনি, সাবেক ছাত্রনেতা সাজ্জাত হোসেন, মহানগর যুবলীগ নেতা মোহাম্মদ নুরুজ্জামান, হালিশহর থানা যুবলীগ নেতা সুফিয়ান রুবেল, শামীম হোসেন, সম্রাট মোস্তফা রিগেন, মোহাম্মদ মিজান, হালিশহর থানা ছাত্রলীগ নেতা এ আর অপু, আকিব আহমেদ, মোহাম্মদ রনি, ইসমাইল হোসেন, সৌরভ রহমান, সাব্বির আহমেদ শামীম, মেহেরাজ ইসলাম বাবুল, ইব্রাহিম গাজী হ্দয়, একে মুন্না, রুবেল মাহমুদ প্রমুখ।
বক্তব্যে গোলাম ছামদানী জনি বলেন, যারা আওয়ামী লীগ বিরোধী, বঙ্গবন্ধুকে যারা মানতে পারে না; তারাই এ ঘটনা ঘটিয়েছে। এ ধরনের স্বাধীনতা বিরোধী কাজ কোনোভাবেই মেনে নেওয়া হবে না। যারা এ ঘটনা ঘটিয়েছে এবং মদদ দিয়েছে, তাদের প্রত্যেককেই খুঁজে বের করে কঠিন শাস্তি দিতে হবে।

  •  
  •  
  •  
  •  
  •   
  •  
  •