চ্যানেল২৪ : বঙ্গবন্ধুর ভাস্কর্য নির্মাণ ইস্যুতে রাজনীতি যখন উত্তপ্ত, তখন ফতোয়া দিলো দেশের একশো আলেমের একটি প্লাটফর্ম। তারা বলেন, পূজার উদ্দেশ্যে না হলেও; ভাস্কর্য নাজায়েজ। দাবি করেন, হাইকোর্টের নির্দেশনা মেনে, যোগ্য ব্যক্তিদের দিয়েই এমন ফতোয়া।

সেই সাথে অভিযোগ করেন, আল কুরআন আর হাদিসের অপব্যাখ্যা দিয়ে একটি গোষ্ঠী ভাস্কর্য নির্মাণকে জায়েজ করতে চাচ্ছে।

বৃহস্পতিবার (৩ ডিসেম্বর) ঢাকা রিপোর্টার্স ইউনিটি মিলনায়তনে সংবাদ সম্মেলনে বলা হয়, সম্প্রতি সরকারি উদ্যোগে ভাস্কর্য নির্মাণের পদক্ষেপ গ্রহণ করায় আলোচনা-সমালোচনা চলছে। ভাস্কর্যের পক্ষে-বিপক্ষে বিভিন্ন কথা হচ্ছে। ফলে জাতীয়ভাবে এ সংক্রান্ত জিজ্ঞাসার সৃষ্টি হয়েছে। ভাস্কর্য ও মূর্তির বিধান নিয়ে তৈরি করা হচ্ছে বিভ্রান্তি।

কোরআন এবং হাদিসের আলোকে মূর্তি বা ভাস্কর্য নির্মাণ হারাম দাবি করে তারা বলেছেন, এসব মূর্তি-ভাস্কর্য ভাঙার দায়িত্ব সরকারের।

ওলামায়ে কেরামের পক্ষ থেকে সংবাদ সম্মেলনে ফতোয়াটি উপস্থাপন করেন ইসলামিক রিসার্চ সেন্টারের প্রধান মুফতি এনামুল হক কাসেমী।

লিখিত ফতোয়ায় তিনি বলেন, ‘মানুষ বা অন্য যেকোনো প্রাণীর ভাস্কর্য আর মূর্তির মধ্যে শরীয়ত কর্তৃক নিষিদ্ধ হওয়ার ব্যাপারে কোনো পার্থক্য নেই। পূজার উদ্দেশ্যে না হলেও তা সন্দেহাতীতভাবে নাজায়েজ ও স্পষ্ট হারাম এবং কঠোর আজাবযোগ্য গুনাহ। ইসলামের সুস্পষ্ট বিধানকে পাশ কাটিয়ে প্রাণীর ভাস্কর্য আর মূর্তির মধ্যে পার্থক্য করে প্রাণীর ভাস্কর্যকে বৈধতা বলে সত্য গোপন করা এবং কোরআন ও সুন্নাহর বিধান অমান্য করার নামান্তর।’

  •  
  •  
  •  
  •  
  •   
  •  
  •