সিবিএন ডেস্ক:

‘প্রয়োজনে কেবল গণসংহতি আন্দোলনই নয়, দেশের গণতন্ত্র পুনরুদ্ধারের জন্য আমরা বিএনপির সাথেও জোট তৈরি করব’

গণসংহতি আন্দলনের জোনায়েদ সাকি ও বাংলাদেশ ছাত্র অধিকার পরিষদের আহ্বায়ক এবং প্রাক্তন ডাকসুর সাবেক ভিপি নুরুল হক নুরের নেতৃত্বে একটি নতুন রাজনৈতিক জোট গঠিত হতে যাচ্ছে।

গত শনিবার (২৮ নভেম্বর) কেন্দ্রীয় শহীদ মিনারে মাওলানা আবদুল হামিদ খান ভাসানীর ৪৪তম মৃত্যুবার্ষিকী কর্মসূচির পর দুই নেতার নেতার মধ্যে অনুষ্ঠিত বৈঠকে নতুন রাজনৈতিক জোট গঠন করার বিষয়ে আলোচনা হয়।

নতুন উদ্যোগ সম্পর্কে গণসংহতি আন্দোলন প্রধান সমন্বয়কারী জোনায়েদ সাকি ঢাকা ট্রিবিউনকে বলেন, “আমরা….ভাসানী অনুসারী পরিষদ, রাষ্ট্রচিন্তা, গণসংহতি আন্দোলন এবং বাংলাদেশ ছাত্র অধিকার পরিষদ… মাওলানা আবদুল হামিদ খান ভাসানীর মৃত্যুবার্ষিকী উপলক্ষে একটি কর্মসূচি পালন করেছি ।”

“বাংলাদেশে গণতন্ত্রকে পুনঃপ্রতিষ্ঠা করতে আমরা আরও বৃহত্তর ঐক্য প্রতিষ্ঠার পাশাপাশি একটি বিস্তৃত আন্দোলন করতে চাই এবং এ লক্ষ্যে আমরা একে অপরের সাথে আলোচনা করছি, আমরা যারা সরকারের দমন-পীড়নের বিরুদ্ধে দাঁড়িয়েছি- কীভাবে আমরা একসাথে কাজ করতে পারি।”

তিনি বলেন, “রাজনৈতিক নতুন জোট গঠনের সিদ্ধান্ত এখনও নেওয়া হয়নি; আমরা এখন আরও বৃহত্তর স্বার্থের জন্য কাজ করার বিষয়ে আলোচনা চালিয়ে যাচ্ছি।”

“আমরা গণতন্ত্র পুনঃপ্রতিষ্ঠার দিকে মনোনিবেশ করছি। এখন নতুন কিছু জোট বা নতুন দল গঠনের মতো কিছু সম্ভব – একই মতাদর্শের লোকদের সাথে নিয়ে।”

“কেবল সময়ই বলবে ভবিষ্যতে কী করা হবে,” যোগ করেন সাকি।

এদিকে, রাজনৈতিক দলের মর্যাদা হারানো জামায়াতে ইসলামীকে বাদ দিয়ে আওয়ামী লীগ বিরোধী বৃহত্তর রাজনৈতিক ঐক্য প্রতিষ্ঠায় নুর রাজি হয়েছেন বলে জানিয়েছে একটি সূত্র।

“আমরা যদি ক্ষমতাসীন অগণতান্ত্রিক ও স্বৈরাচারি সরকারের দমনমুক্ত হতে চাই তবে আমাদের ঐক্যবদ্ধ হওয়া দরকার” মন্তব্য করে বাংলাদেশ ছাত্র অধিকার পরিষদের যুগ্ম আহ্বায়ক নূর বলেন, “যদিও আমরা বড় রাজনৈতিক দল নই, তবে সুযোগ পেলে আমরা আরও বৃহত্তর ঐক্যের জন্য কাজ করব।”

“আমাদের মধ্যে অন্তত কিছুটা বোঝাপড়া থাকার কারণে আমরা মাওলানা ভাসানীর মৃত্যুবার্ষিকীর অনুষ্ঠানে অংশ নিয়েছি ও আয়োজন করেছি। প্রয়োজনে কেবল গণসংহতি আন্দোলনই নয়, দেশের গণতন্ত্র পুনরুদ্ধারের জন্য আমরা বিএনপির সাথেও জোট তৈরি করব, ” বলেন নুর।

এর আগে ২০১৮ সালের সাধারণ নির্বাচনের আগে গঠিত “ঐক্য ফ্রন্ট” এর সমালোচনা করে নুর বলেছিলেন, “ঐক্য ফ্রন্টের ভেতরে ঐক্যের পরিবেশ নেই।”

যোগাযোগ করা হলে, বাংলাদেশ ছাত্র অধিকার পরিষদের ভারপ্রাপ্ত আহ্বায়ক মো. রাশেদ খান বলেন, “আমরা এখনও গণসংহতি আন্দোলন নিয়ে জোট করিনি, তবে আমরা ‘গণ অধিকার পরিষদ’ নামে নিজস্ব একটি রাজনৈতিক দল গঠনের জন্য কাজ করছি।”

“যৌথ স্বার্থে সব দল ও সংগঠনের ঐক্যবদ্ধ হওয়া প্রয়োজন। তাদের যুবকদের নেতৃত্বে একটি সাধারণ প্ল্যাটফর্মের আওতায় আনা যেতে পারে,” যোগ করেন রাশেদ। -ঢাকা ট্রিবিউন।

  •  
  •  
  •  
  •  
  •   
  •  
  •