অনলাইন ডেস্ক :

ফুটবলের জাদুকর ডিয়েগো ম্যারাডোনা সমাহিত হবার ২৪ ঘণ্টা পার না হতেই নিজেকে তার সন্তান হিসেবে দাবি করেছেন ১৯ বছর বয়সী এক তরুণ। শুধু তাই নয়, আর্জেন্টাইন বিশ্বকাপ জয়ী অধিনায়কের মরদেহ তুলে ডিএনএ নমুনা সংগ্রহ করতে আদালতের শরণাপন্ন হয়েছেন তিনি।
ডেইলি মিরর জানিয়েছে, আর্জেন্টিনার রাজধানী বুয়েন্স আয়ার্সের অদূরে অবস্থিত লা প্লাতার একটি পারিবারিক আদালতে এই সংক্রান্ত একটি অভিযোগ দায়ের করেছেন সান্তিয়াগো লারা। তার পক্ষে আইনজীবী জোসে নুনেজ অভিযোগে বলেছেন, ম্যারাডোনার মরদেহ উত্তোলন করে ডিএনএ পরীক্ষা করাতে চান তারা। এমনকি এই দাবি নিয়ে টিভির পর্দাও হজির হয়েছেন।
ম্যারাডোনার কথিত এই সন্তান দীর্ঘ ছয় বছর ধরে নিজের বাবার পরিচয় খুঁজছেন। ২০১৩ সালে প্রথমবারের মতো টের পান, ম্যারাডোনার সঙ্গে তার চেহারার মিল রয়েছে।
২০০৬ সালে মাত্র ২৩ বছর বয়সে সান্তিয়াগো লারার মায়ের মৃত্যু হয়। তখন তার বয়স ছিল তিন বছর। নাতালিয়া গারাথ নামের ওই নারী ওয়েট্রেস হিসেবে কাজ করতেন। তার সঙ্গে ম্যারাডোনার সাত বছরের সম্পর্ক ছিল। সান্তিয়াগোর দাবি, মৃত্যুর সময় হাসপাতালে আইনজীবীদের কাছে বলে গিয়েছিলেন, তিনি ম্যারাডোনারই সন্তান।
ডেইলি মেইল জানাচ্ছে, নাতালিয়ার বন্ধু মার্সেলো লারার কাছে বড় হয়েছেন সান্তিয়াগো ।
আর্জেন্টাইন গণমাধ্যমকে সান্তিয়াগো বলেন, ‘আমার সঙ্গে বাবার অনেক মিল রয়েছে। আমি দেখতে তারই মতো। চেহারা থেকে কোঁকড়া চুল সব কিছুই। আমি মার্সেলোনার দিকে তাকিয়েছি আমি জানি তার সঙ্গে আমার কোনও মিল নেই।’

  •  
  •  
  •  
  •  
  •   
  •  
  •