গত ২৫ নভেম্বর ২০২০ খ্রিস্টাব্দে ‘এবার ট্যুরিস্ট পুলিশের জমি অধিগ্রহনে অনিয়মে জড়িয়েছে সেই পিবিআই সিন্ডিকেট’ শিরোনামে দৈনিক হিমছড়ি, দৈনিক ইনানী, দৈনিক সাগরদেশ, দৈনিক সমুদ্রকন্ঠসহ বেশ কয়েকটি পত্রিকা ও অনলাইনে সম্পূর্ণ মিথ্যা, ভিত্তিহীন, উদ্দেশ্যপ্রনোদিত, উস্কানিমূলক, মানহানিকর সংবাদ প্রকাশ করা হয়েছে। আমি নিম্নস্বাক্ষরকারি উক্ত সংবাদের তীব্র নিন্দা ও প্রতিবাদ জানাচ্ছি। মূলত: আমি নিম্নস্বাক্ষরকারি কক্সবাজার জেলা ও দায়রা জজ আদালতের একজন নিয়মিত আইনজীবী। ট্যুরিস্ট পুলিশের জমি অধিগ্রহন বিষয়ে আমার দূরতম সর্ম্পকও নেই। এটি পুলিশের নিজস্ব ব্যাপার। সেখানে আমাকে জড়ানো হাস্যকর। প্রথমত: প্রকাশিত সংবাদে যে মাজেদা বেগমের উদ্ধৃতি দিয়ে সংবাদ প্রকাশ করা হয়েছে সেই মাজেদা বেগম এ সর্ম্পকে কিছুই জানেন না। তিনি গণমাধ্যমে কোন বক্তব্য দেননি। এছাড়া সেলিম রেজা গং জাল-জালিয়াতির মাধ্যমে দীর্ঘদিন ধরে আমার জমি দখলের চেষ্টা করছে। যার কারণে জাল-জালিয়াতির আশ্রয় নেয়া সেলিম রেজা গং এর পক্ষে এইচ এম নুরুল আলম প্রকাশ এন আলম এর ১১৩৩৪ নম্বর বিএস খতিয়ান বিগত ১১/১০/২০২০ ইংরেজী তারিখে নামজারি মামলা নম্বর ৫৪/২০২০ মুলে মাননীয় অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক (রাজস্ব) বাতিল করেছেন। এতে ক্ষিপ্ত হয়ে আইনগতভাবে মোকাবেলা না করে সংবাদপত্রে মিথ্যা ও মানহানিকর অপপ্রচার চালিয়ে তথ্য সন্ত্রাসের আশ্রয় নিয়েছেন। ওই চক্রের সরবরাহকৃত মিথ্যা ও মানহানিকর সংবাদ কোন ধরণের যাচাই-বাছাই ব্যতিত উল্লেখিত সংবাদপত্রগুলোতে প্রকাশ করা হয়েছে। যার কোন ভিত্তি ও প্রমান নেই। এছাড়া একজন আইনজীবীসহ সমাজের স্বনামধন্য ব্যক্তির বিরুদ্ধে তথ্য প্রমান ব্যতিত এবং আত্মপক্ষ সমর্থনে কোন বক্তব্য ছাড়া মানহানিকর সংবাদ প্রকাশ আইনত অপরাধ। এ অবস্থায় প্রকাশিত মিথ্যা সংবাদ প্রত্যাহার এবং ভবিষ্যতে এ ধরণের সংবাদ প্রকাশে যাচাই-বাছাই করার জন্য সংশ্লিষ্ট সাংবাদিকদের অনুরোধ জানানো হচ্ছে। সাংবাদিকদের সাথে আমার ব্যক্তিগত কোন বিরোধ নেই । এরপরও কেউ উদ্দেশ্যপ্রনোদিতভাবে মিথ্যা সংবাদ প্রকাশ করলে আইনগত ব্যবস্থা গ্রহন করা হবে।

নিবেদক
এডভোকেট নুরুল হক
আইনজীবী
কক্সবাজার জেলা ও দায়রা জজ আদালত।

  •  
  •  
  •  
  •  
  •   
  •  
  •