প্রেস বিজ্ঞপ্তি
প্রধানমন্ত্রী কৃষকরত্ন শেখ হাসিনাকে আন্তরিক কৃতজ্ঞতা ও ধন্যবাদ জানিয়ে আনন্দ মিছিল ও সমাবেশ করেন
কক্সবাজার জেলা মডেল কৃষকলীগ।

একই সাথে খাদ্যমন্ত্রী সাধন চন্দ্র মজুমদার এম.পি, বাংলাদেশ কৃষকলীগের সভাপতি কৃষিবিদ সমীর চন্দ ও সাধারণ সম্পাদক অ্যাড. উম্মে কুলসুম স্মৃতি এমপিকেও ধন্যবাদ জানানো হয়।

মঙ্গলবার (২৪ নভেম্বর) সকাল ১১ টায় শহরের শহীদ দৌলত ময়দান (পাবলিক লাইব্রেরি মাঠ) থেকে মিছিলটি শুরু হয়।

সাবেক জাতীয় পরিষদ সদস্য এম.এ হাসেমের সভাপতিত্বে মিছিলোত্তর সমাবেশে প্রধান অতিথির বক্তব্য রাখেন, কক্সবাজার জেলা মডেল কৃষকলীগের সাধারণ সম্পাদক আতিক উদ্দিন চৌধুরী।

তিনি বলেন, শেখ হাসিনা সরকার কৃষিবান্ধব সরকার। কৃষকদের সাথে নিয়ে দেশ উন্নয়নের স্বপ্ন দেখেন তিনি।
এলক্ষে কৃষকদের সাথে নিয়ে কাজ করতে কৃষক লীগকে প্রয়োজনীয় দিকনির্দেশনা দেন কৃষকরত্ন শেখ হাসিনা।
আওয়ামী লীগ সরকারের আমলে ধান বীজ, কীটনাশক ও সার বিনামূল্যে কৃষকের দৌঁড়গোড়ায় পৌঁছে দেয়া হয়।
কৃষককে মুল্যায়ন করেন বলে কৃষকরাও শেখ হাসিনার আস্থা ও ভালবাসা অর্জন করেছেন বলে দাবী করেন তিনি।
কৃষকদের ভালবাসেন বলেই কৃষকের অধিকার রক্ষায় কাজ করার জন্য ধান চাল ক্রয় কমিটিতে জেলা ও উপজেলা পর্যায়ে কৃষক সংগঠনের প্রতিনিধি সম্পৃক্ততা করায় প্রধানমন্ত্রী কৃষকরত্ন শেখ হাসিনা এবং খাদ্যমন্ত্রী সাধন চন্দ্র মজুমদার এম.পিকে কক্সবাজার মডেল কৃষকলীগের পক্ষ থেকে আন্তরিক কৃতজ্ঞতা ও ধন্যবাদ জানান তিনি।

সাংগঠনিক সম্পাদক রিয়াজ মোরশেদের সঞ্চালনায় সমাবেশে বক্তব্য রাখেন -জেলা কৃষকলীগের সহ-সভাপতি এড মোস্তাক, রফিক উদ্দীন, আনিসুল হক চৌধুরী, যুগ্ম-সাধারণ সম্পাদক সঞ্জিত চক্রবর্তী,
সাংগঠনিক সম্পাদক আনিসুর রহমান বাচ্চু,শহর আহবায়ক এরশাদুজ্জামান সুমন, জেলার সহ-প্রচার সম্পাদক ফারুক আহমদ, সদরের যুগ্ম-আহবায়ক জসিম উদ্দিন মুকুল, শহরের যুগ্ম-আহবায়ক জয়নাল আবেদীন, আবু তাহের হেলালী।

এতে উপস্থিত ছিলেন- জেলার দপ্তর সম্পাদক হোসাইন মাসুম, জেলা নেতা নুরুল আলম, সজীব দাশ, নুরুল আলম, শফিকুল হক রানা, শফি উল্লাহ শফি, জাবেদ মোস্তফা, দেলোয়ার হোসেন চৌধুরী, সদর আহবায়ক সেলিম উল্লাহ সেলিম, যুগ্ম-আহবায়ক ইয়াকুব আলী ইমন, সদর নেতা আমান উল্লাহ আমিন, জাহাঙ্গীর আলম, ফরিদুল আলম এবং শহরের বিভিন্ন ওয়ার্ড় ও সদরের বিভিন্ন ইউনিয়নের সভাপতি ও সাধারণ সম্পাদকসহ হাজার হাজার নেতা-কর্মী।

মিছিলটি শহরের প্রধান সড়ক প্রদক্ষিণ করে হোটেল হলিডের মোড় হয়ে আবারো পাবলিক লাইব্রেরির মাঠে গিয়ে শেষ হয়।

  •  
  •  
  •  
  •   
  •  
  •  
  •  
  •