ইউসুফ আরমান:
দীর্ঘদিন ধরে কক্সবাজারে অনলাইনে জন্ম নিবন্ধন কার্যক্রম বন্ধ থাকায় ভোগান্তির শেষ নেই স্থানীয়দের। ভোটার তালিকা হালনাগাদ থেকে শুরু করে চাকুরির আবেদন, শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে ভর্তিসহ জন্ম নিবন্ধন সনদ দরকার হওয়া সকল কাজ নিয়ে দুর্ভোগ চরমে উঠে সেবা প্রার্থীদের।

২০১৭ সালের ২৫ আগস্টের পর থেকে প্রতিবেশী মিয়ানমারের সেনাবাহিনী কর্তৃক নির্যাতনের শিকার হয়ে বাংলাদেশে আশ্রয় নেয় প্রায় ১০ লাখ রোহিঙ্গা। পুরোনোসহ দেশে আশ্রিত রোহিঙ্গার সংখ্যা দাঁড়িয়েছে প্রায় ১২ লাখ। আশ্রিত এসব রোহিঙ্গাদের বায়োমেট্রিক নিবন্ধন করার জন্য বন্ধ করে দেওয়া হয় কক্সবাজারসহ কয়েকটি জেলার অনলাইন জন্ম নিবন্ধন কার্যক্রম। এর মধ্যে কেটে গেছে প্রায় ৩ বছর। কিন্তু এখনো সচল হয়নি অনলাইনে জন্ম নিবন্ধন কার্যক্রম। এরই মধ্যে প্রায় ১১ লাখ ৪০ হাজার রোহিঙ্গার বায়োমেট্রিক নিবন্ধন কার্যক্রম শেষ হয়েছে।

জন্ম নিবন্ধন একজন নাগরিকের জাতীয়তা, বয়স, নামকরণ, স্থায়ী ঠিকানা, পিতা-মাতার নাম ইত্যাদি মৌলিক বিষয়ের নিশ্চয়তা দেয়। বয়স প্রমাণের ক্ষেত্রে জন্ম সনদের গুরুত্ব অপরিসীম। পাসপোর্ট, বিবাহ, শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে নিয়োগ দান, ভোটার তালিকা প্রণয়ন, জমি রেজিস্ট্রেশনসহ বিভিন্ন ক্ষেত্রে জন্ম নিবন্ধন সনদ প্রদর্শন সরকার আইনের দ্বারা বাধ্যতামূলক রয়েছে। অথচ প্রয়োজনী কাজে জন্ম নিবন্ধন সনদ দিতে না পারায় প্রতিনয়িত সমস্যায় পড়তে হচ্ছে কক্সবাজারবাসীকে।

অনেক ভোটার উপযুক্ত ছেলে মেয়ে আছে যারা ভোটার হতে পারছেন না। রোহিঙ্গাদের কারনে স্থানীয়দের সমস্যা হচ্ছে অথচ রোহিঙ্গারা বেশ আরামে আছে এটা কোন ভাবেই মেনে নেওয়া যায়না। তাই দ্রুত জন্ম নিবন্ধন সার্ভার খুলে দেওয়া জরুরি।

বিনীত
ইউসুফ আরমান
শিক্ষানবিশ আইনজীবী
দক্ষিণ সাহিত্যিকাপল্লী
০৬ নং ওয়ার্ড, পৌরসভা
কক্সবাজার
০১৬১৫৮০৪৩৮৮
yousufarmancox@gmail.com

  •  
  •  
  •  
  •  
  •   
  •  
  •