আন্তর্জাতিক ডেস্ক:
সময় যত গড়াচ্ছে, ভোট ব্যবধানে ক্রমেই এগিয়ে যাচ্ছেন জো বাইডেন। ইতোমধ্যেই জয়ের সুবাস পেতে শুরু করেছেন তিনি। ফলে কপাল পুড়ছে ডোনাল্ড ট্রাম্পের। টানা দ্বিতীয় মেয়াদে হোয়াইট হাউস দখলের স্বপ্ন অধরাই থেকে যাচ্ছে তার।

৩ নভেম্বর ভোটগ্রহণের পর গণনার শুরু থেকেই পপুলার ভোটে এগিয়ে ছিলেন ডেমোক্র্যট প্রার্থী জো বাইডেন। ২০১৬ সালের নির্বাচনে হিলারি ক্লিনটনের মতো অবশ্য আশাভঙ্গ হয়নি তার। ইলেকটোরাল কলেজ ভোটেও অনেকটাই এগিয়ে তিনি।

ফল বাকি থাকা পাঁচ রাজ্যের মধ্যে এখনও তিনটিতে এগিয়ে বাইডেন। এর মধ্যে মাত্র একটিতে জিতলেই যুক্তরাষ্ট্রের ৪৬তম প্রেসিডেন্ট হচ্ছেন তিনি।

ব্রিটিশ সংবাদমাধ্যম দ গার্ডিয়ানের সবশেষ তথ্যমতে, জর্জিয়ায় ৯৯ শতাংশ ভোট গণনা শেষে ৪ হাজার ২২৪ ভোটে এগিয়ে রয়েছেন জো বাইডেন। সেখানে এখনও ৫০ হাজারের মতো ভোট গণনা বাকি।

যুক্তরাষ্ট্রের অন্যতম জনবহুল অঙ্গরাজ্য ও ব্যাটলগ্রাউন্ড পেনসিলভানিয়াতেও ব্যবধান বাড়িয়েছে ডেমোক্র্যাটরা। ভোটের তিনদিনের মাথায় শুক্রবার চূড়ান্ত নাটকীয়তা দেখিয়ে এ অঙ্গরাজ্যটিতে এগিয়ে যান বাইডেন। এখন পর্যন্ত সেখানে ১৯ হাজার ৬২৫ ভোট বেশি পেয়েছেন তিনি। রাজ্যটিতে অবশ্য এখনও দেড় লাখের কাছাকাছি ভোট গণনা বাকি।

ডেমোক্র্যাট শিবির এগিয়ে রয়েছে নেভাদাতেও। শুরু থেকে এই রাজ্যে বাইডেন এগিয়ে থাকলেও ভোটের ব্যবধান ছিল বেশ কম। কিন্তু শুক্রবার থেকে সেটি ক্রমেই ঊর্ধ্বমুখী। সেখানে এপর্যন্ত ট্রাম্পের চেয়ে ২২ হাজার ৬৫৭ ভোটে এগিয়ে বাইডেন।

তবে রিপাবলিকান দুর্গ বলে পরিচিত নর্থ ক্যারোলিনায় এখনও লিড ধরে রেখেছেন ডোনাল্ড ট্রাম্প। ৯৯ শতাংশ ভোট গণনা শেষে সেখানে ৭৬ হাজার ৫৮৭ ভোটে এগিয়ে রয়েছেন তিনি। অঙ্গরাজ্যটিতে আর ৫০ হাজারেরও কম ভোট গুনতে বাকি রয়েছে। ফলে সেখানে এবারও রিপাবলিকানরাই জিতছে ধরে নেয়া যায়।

ভোট গণনায় চূড়ান্ত ধীরগতি দেখা যাচ্ছে আলাস্কায়। রাজ্যটিতে এখন পর্যন্ত মাত্র ৫০ শতাংশ ভোট গোনা হয়েছে। সেখানে ৫৪ হাজার ৬১০ ভোটে এগিয়ে রয়েছেন ট্রাম্প। অবশ্য মাত্র তিনটি ইলেকটোরাল ভোট থাকায় খুব একটা আলোচনায় নেই রাজ্যটি।

পেনসিলভানিয়ায় ইলেকটোরাল ভোট রয়েছে ২০টি, জর্জিয়ায় ১৬, নেভাদায় ৬টি। ফলে এখন পর্যন্ত ২৬৪ ইলেকটোরাল ভোট পাওয়া জো বাইডেন এ তিনটির যেকোনও একটিতে জিতলেই প্রেসিডেন্ট হতে প্রয়োজনীয় ২৭০-এর মাইলফলক সহজেই ছাড়িয়ে যাবেন।

তবে আশা রয়েছে ট্রাম্পেরও। কোনওভাবে যদি তিনি ফল বাকি থাকা পাঁচটি রাজ্যেই জিততে পারেন, তবে তিনিই হবেন যুক্তরাষ্ট্রের পরবর্তী প্রেসিডেন্ট।

যদিও পপুলার ভোটের পাশাপাশি এ বছর ১০ কোটির বেশি আগাম ভোট পড়েছে। সেগুলো যোগ হলে ব্যবধান কম থাকা অঙ্গরাজ্যগুলোতে ফল বদলেও যেতে পারে।

  •  
  •  
  •  
  •  
  •   
  •  
  •