প্রেস বিজ্ঞপ্তি :

আনসারুল করিম বাড়ি কক্সবাজার সদর উপজেলা পিএমখালী ইউনিয়নের তোতকখালী তাহের মোহাম্মদঘোনা এলাকায়। ছোট বেলায় বাবা (আবদুস সুবাহান) মারা গেছে অভাবের সংসারে দু‘বেলা খাওয়া দাওয়ায় ছিল মুখ্য। পরে ঠাই হয়েছে কক্সবাজার বায়তুশ শরফ জব্বারিয়া এতিম খানায়। সেখান থেকে চলে লেখা পড়া। পরে বায়তুশ শরফ স্কুলে নিজস্ব হকি দলে খেলার সুবাধে ভাল খেলে সবার নজরে আসে আনসার। স্কুল এবং জেলা হকি দলের হয়ে খেলেছেন দ্বিতীয় বিভাগ লীগ, স্কুল হকি, সহ বিভিন্ন জাতীয় হকি প্রতিযোগিতায়। পরে নজরে পড়ে ট্যালেন্টহান্ট ক্ষুদে খেলোয়াড় বাছাই কার্যক্রমে বিকেএসপি কর্মকর্তাদের। অনেকে মন্ত্রী পর্যায়ের তদবির করে সে বিকেএসপিতে সুযোগ পায়না সেখানে নিজের যোগ্যতায় বিকেএসপি (বাংলাদেশ ক্রীড়া শিক্ষা প্রতিষ্টান) ঢুকে পড়ে নিবৃত গ্রাম েেথকে উঠে আসা এই এতিম ছেলেটি। সেখানেও ভাল চলছিল সব কিছু কিন্তু ২০১৯ সালে নভেম্বরে অনুশীলন চলাকালীন ডান পায়ের রগ বা লিগামেন্ট ছিড়ে ব্যাথা পেলে আর মাঠে ফিরা হয়নি। পরে বাধ্যতামূলক ছুটি জোটেছে বিকেএসপি থেকে। এখন এতিম এই ছেলেটি আর মাঠে ফিরতে পারছেনা। তিনি জানান ঢাকার কয়েকজন ডাক্তারের সাথে কথা হয়েছে তারা বলেছে ভারতে গিয়ে অপারেশন করাতে পারলে ভাল হওয়ার সম্ভবনা আছে তার জন্য খরচ পড়বে কমপক্ষে দেড় লাখ টাকা। অনেকের কাছে দেড় লাখ টাকা মাত্র হলেও এতিম আনসারুলের কাছে তা অনেক বড় স্বপ্ন। তাই আবারো মাঠে ফিরতে নিজ এলাকা সহ জেলা ক্রীড়া সংস্থা এবং জেলার বিত্ত্ববানতে সহযোগিতা চেয়েছেন এই প্রতিভাবান ক্রীড়াবিদ।

  •  
  •  
  •  
  •  
  •   
  •  
  •