মুহাম্মদ আবু সিদ্দিক ওসমানী :

সড়ক ও জনপথ বিভাগের উন্নয়ন কাজের জন্য বৈদ্যুতিক লাইন ও খুঁটি সরাতে এবং বৈদ্যুতিক লাইন ও খুঁটির উপর পড়ে থাকা গাছপালার ডাল কাটতে গিয়ে কক্সবাজার শহরের বিভিন্ন এলাকায় শনিবার ৭ নভেম্বর সকাল ৭টা থেকে বিকেল ৪টা পর্যন্ত বিদ্যুৎ সরবরাহ বন্ধ থাকবে। কক্সবাজার বিদ্যুৎ বিতরণ বিভাগের উপ সহকারী প্রকৌশলী মোঃ মাহবুব আলম সিবিএন-কে এ তথ্য জানিয়েছেন।

তিনি জানান, সড়ক ও জনপথ বিভাগের রাস্তার উন্নয়নের জন্য উল্লেখিত সময়ে বৈদ্যুতিক লাইন ও খুঁটি স্থানান্তর কাজ চলবে। এসময়ে কক্সাবাজার বিদ্যুৎ উন্নয়ন বোর্ডের বিতরণ বিভাগের আওতাধীন নাপাঞ্জাপাড়া, উত্তর হাজীপাড়া, লিংক রোড, জানারঘোনা, দক্ষিন মুহুরীপাড়া, সাদর পাড়া এবং বিসিক এরিয়া সহ তৎসংলগ্ন এলাকায় বিদ্যুৎ সরবরাহ উল্লেখিত সময়ে সাময়িকভাবে বন্ধ থাকবে। একইভাবে বৈদ্যুতিক লাইন ও খুঁটির উপর পড়ে থাকা গাছপালার ডাল কাটতে গিয়ে কক্সবাজার শহরের বাহারছড়া, উত্তর তারাবনিয়ার ছরা পুরাতন কমার্স কলেজ রোড, টেকপাড়া, চাউলবাজার, বড় বাজার, বাজারঘাটা, পরান পান বাজার রোড, লালদীঘির পাড়, সিনেমা রোড, এন্ডারসন রোড, কস্তুরা ঘাট, পেশকার পাড়া সহ সংশ্লিষ্ট এলাকায় বিদ্যুৎ সরবরাহ উল্লেখিত সময়ে সাময়িকভাবে বন্ধ থাকবে।

প্রকৌশলী মোঃ মাহবুব আলম আরো জানান, বৈদ্যুতিক খুঁটি সরানোর কাজ দ্রুত করতে, বৈদ্যুতিক লাইন ও খুঁটির উপর পড়ে থাকা গাছপালার ডাল কাটতে কক্সবাজার বিদ্যুৎ বিতরণ বিভাগ সর্বোচ্চ প্রস্তুতি নিয়েছে। তবে আবহাওয়া অনুকূলে থাকলে এ কাজ করা হবে। বেশি বৃষ্টি হলে, ঝড়ো হাওয়া থাকলে কাজ করা করা যাবেনা। তখন বিদ্যুৎ সরবরাহ স্বাভাবিক থাকবে।

তিনি জানান, ক্ষুদ্র ক্ষুদ্র এলাকা বিদ্যুৎ সরবরাহ বন্ধ রেখে তারা বৈদ্যুতিক খুঁটি গুলো সরানোর চেষ্টা করবেন। তবে কোন কোন জায়গায় তা সম্ভব না হলে পুরো এরিয়া বিদ্যুৎ সরবরাহ বন্ধ রেখে কাজ করতে হবে। সম্ভব হলে শনিবার বিকেল ৪টার আগেই তারা বিদ্যুৎ সরবরাহ চালু করার জন্য প্রাণান্ত চেষ্টা করবেন বলে জানান। তবে পর্যায়ক্রমে প্রতিটি এলাকায় ৩ঘন্টা করে বিদ্যুৎ সরবরাহ বন্ধ রেখে গাছের ডালপালা কাটার কাজ করা হবে। একটি এলাকায় গাছের ডালপালা কাটার সময় অন্য এলাকায় বিদ্যুৎ সরবরাহ স্বাভাবিক থাকবে।

এদিকে, উন্নয়ন কাজ করতে গিয়ে জনসাধারণের সাময়িক অসুবিধা হওয়ায় কক্সবাজার বিদ্যুৎ বিতরণ বিভাগের পক্ষে প্রকৌশলী মোঃ মাহবুব আলম নাগরিকদের কাছে দুঃখ প্রকাশ করেছেন।

  •  
  •  
  •  
  •  
  •   
  •  
  •