সৈয়দুল কাদেরঃ
আশেক উল্লাহ রফিক এমপি বলেছেন, বাঙ্গালী জাতি ও আওয়ামী লীগকে নেতৃত্ব শূণ্য করতেই ষড়যন্ত্রকারিরা জাতীয় চার নেতাকে হত্যা করে।
জাতির জনক বঙ্গবন্ধুকে হত্যার পর বাঙ্গালী জাতি যাতে আর মাথাচাড়া দিয়ে উঠতে না পারে তাই এই হত্যাকান্ড সংঘটিত করেছে স্বাধীনতা বিরোধী শক্তি।
এই রক্ত পিপাসুরা একই কায়দায় ২১ আগষ্ট গ্রেনেড হামলা করেও হত্যা করতে চেয়েছিল প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনাকে। কিন্তু মহান রাব্বুল আলামিনের অশেষ কৃপায় তিনি রক্ষা পেয়ে দেশ সেবায় কাজ করে যাচ্ছেন।
তিনি বলেন, জাতীয় চার নেতা সৈয়দ নজরুল ইসলাম, তাজউদ্দিন আহমদ, ক্যাপ্টেন মনসুর আলী ও কামরুজ্জামান ছিলেন জাতির জনকের ঘনিষ্ট সহচর। ঘাতকরা নানা ভাবেই প্রলুব্ধ করে জাতীয় চার নেতাকে নীতি ভ্রষ্ট করতে পারেনি। পরবর্তীতে তাদের ঢাকা কেন্দ্রিয় কারাগারে নৃশংসভাবে হত্যা হয়।
৩ নভেম্বর দুপুর ১২টায় মহেশখালী উপজেলা আওয়ামী লীগের জেল হত্যা দিবসের আলোচনা সভায় প্রধান অতিথির বক্তব্যে এমপি আশেক এসব কথা বলেন।
উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি আনোয়ার পাশা চৌধুরীর সভাপতিত্বে ও উপপ্রচার সম্পাদক এহছানুল করিমের সঞ্চালনায় অনুষ্ঠিত সভায় পবিত্র কোরআন থেকে তেলোয়াত করেন উপজেলা আওয়ামী লীগের ধর্ম বিষয়ক সম্পাদক কুতুব উদ্দিন ইলাহী।
বক্তব্য রাখেন- জেলা আওয়ামী লীগের উপদেষ্টা ডাঃ নুরুল আমিন, জেলা আওয়ামী লীগের সহসভাপতি এম আজিজুর রহমান, জেলা আওয়ামী লীগ সদস্য মহেশখালীর পৌর মেয়র মকছুদ মিয়া, উপজেলা আওয়ামী লীগের সহসভাপতি ফরিদুল আলম, মহিলা আওয়ামী লীগের সভাপতি জেলা পরিষদ সদস্য মশরফা জান্নানত, উপজেলা আওয়ামী লীগের সহসভাপতি নুরুল আলম, উপজেলা মুক্তিযোদ্ধা বিষয়ক সম্পাদক ছালেহ আহমদ, কুতুবজুমের চেয়ারম্যান মোশারফ হোসেন খোকন, উপজেলা যুবলীগের আহবায়ক সাজেদুল করিম, যুগ্ম আহবায়ক এডঃ শেখ কামাল, যুগ্ম আহবায়ক সেলিম উল্লাহ সেলিম, উপজেলা আওয়ামী লীগের তথ্য ও গবেষণা বিষয়ক সম্পাদক প্রণব কুমার দে, মৎস্যজীবী লীগের সভাপতি জাবের আহমেদ, পৌর আওয়ামী লীগের যুগ্ম আহবায়ক এম রফিকুল ইসলাম, হোয়ানক আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক জাফর আলম জফুর, ছোট মহেশখালী আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক এনামুল করিম, একরামুল হক, বড় মহেশখালী আওয়ামী লীগের সভাপতি সিরাজ মিয়া বাশি, কুতুবজুম আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক রবিউল আলম, বড় মহেশখালীর সাধারণ সম্পাদক নুরুল আমিন, সাবেক কাউন্সিলর প্রীতিকণা শর্মা, উপজেলা শ্রমিকলীগের সভাপতি আবদু শুক্কুর, সাধারণ সম্পদক সরওয়ার আলম, মহিলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক সেলিনা আকতার, পৌর মহিলা আওয়ামী লীগের সভাপতি অনিকা আকতার রুমা, উপজেলা ছাত্রলীগের সভাপতি হালিমুর রশিদ ও ছাত্রনেতা শাহনেওয়াজ সানু।
সভায় জেলা মুক্তিযোদ্ধা সংসদের সাবেক কমান্ডার মোঃ শাহজাহানের মৃত্যুতে শোক প্রস্তাব গৃহীত হয়।
আলোচনা সভার আগে ১৫ আগস্ট ও ৩ নভেম্বর শহীদদের স্মরণে দোয়া মাহফিল অনুষ্ঠিত হয়।

  •  
  •  
  •  
  •  
  •   
  •  
  •