বার্তা পরিবেশক :
বহুল প্রত্যাশিত কক্সবাজার জেলা ছাত্রলীগের কমিটি নিয়ে ছাত্রলীগ নেতা নামধারী ভুঁইফোড়দের দৌড়ঝাঁপ শুরু হয়েছে। এসব ভুঁইফোড় নেতারা জেলা ছাত্রলীগের গুরুত্বপূর্ন পদ বাগিয়ে নিতে জেলা আওয়ামীলীগের কতিপয় নেতাকে মোটা অংকের টাকায় ম্যানেজ করেছে বলে গুঞ্জন ছড়িয়ে পড়েছে। আর এসব শীর্ষ নেতারা তাদের সেই মিশন বাস্তবায়ন করতে কেন্দ্রীয় নেতাদের দ্বারে দ্বারে ঘুরছে বলে খবর ছড়িয়ে পড়েছে পুরো কক্সবাজার জুড়ে। শুধু তাই নয় এসব হাইব্রীড নেতাদের জেলা ছাত্রলীগের কমিটিতে সভাপতি-সাধারণ সম্পাদকসহ গুরুত্বপুর্ন পদে পদায়ন করতে নানা ধরনের অপকৌশল চালিয়ে যাচ্ছে বলে অভিযোগ করেছেন কক্সবাজারের ত্যাগী ও আদর্শবান ছাত্রলীগ কর্মীরা।
পছন্দের ছাত্রলীগ নেতাদের পদে আনার জন্য কোটি টাকার মিশনে নিয়ে এখন ঢাকায় অবস্থান করছেন কক্সবাজার জেলা আওয়ামীলীগের কতিপয় শীর্ষ স্থানীয় নেতাকর্মীরা। তারা টাকার বস্তা নিয়ে ঢাকায় অবস্থান করছেন প্রায় ৭ দিন। ধরনা দিচ্ছেন বাংলাদেশ আওয়ামীলীগের প্রভাবশালী নেতাকর্মীদের কাছে। ভূঁইফোড় নেতাকর্মীদের টাকার বিনিময়ে পদ পাইয়ে দিতে মরিয়া তারা। কক্সবাজার জেলা ছাত্রলীগের ত্যাগী, শিক্ষিত মাঠ পর্যায়ের নেতাকর্মীদের কোন লবিং না থাকায় দুশ্চিন্তার মধ্যে দিনাতিপাত করছেন।
নিজেদের প্রাপ্য পদ পাবে কিনা সে ব্যাপারে চরম সন্দিহানে রয়েছেন তাঁরা। যে কোন সময় কেন্দ্রীয় ছাত্রলীগের নেতারা কক্সবাজার জেলা কমিটির তালিকা প্রকাশ করতে পারে। এই গ্রীণ সিগন্যাল পাওয়ার পর প্রায় ৭ দিন যাবত কক্সবাজারের কতিপয় শীর্ষস্থানীয় নেতা এবং কয়েকজন এমপি ঢাকায় অবস্থান করছেন ভূঁইফোড় নেতাদের টাকার বিনিময়ে পদ পাইয়ে দিতে। বিষয়টি এখন টক অব দ্যা কক্সবাজারে পরিণত হয়েছে।
খোঁজ নিয়ে জানা গেছে, ত্যাগী, শিক্ষিত মার্জিত চরিত্রবান, এবং আওয়ামী রাজনৈতিক পরিবারের সন্তানদের পাশ কাটিয়ে কক্সবাজার জেলার চিহ্নিত মাদক কারবারি, মাদকসেবী, উশৃংখল, চরিত্রহীন, ভূঁইফোড় নেতাদের পদ পাইয়ে দিতে রীতিমতো টাকার বস্তা নিয়ে কেন্দ্রীয় আওয়ামীলীগ নেতা এবং কেন্দ্রীয় ছাত্রলীগের প্রভাবশালী নেতাদের দ্বারে দ্বারে ঘুরছে কক্সবাজারের শীর্ষ স্থানীয় আওয়ামীলীগ নেতা এবং কয়েকজন এমপি।
নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক ত্যাগী এক ছাত্রলীগ নেতা বলেন,দীর্ঘ দিন যাবত ছাত্রলীগের সাথে জড়িত। বঙ্গবন্ধুর আদর্শে উজ্জীবীত সৈনিক হয়ে কক্সবাজার জেলার সকল মিটিং মিছিলে ভূমিকা পালন করে আসছি। কিন্তু এখন শুনছি ছাত্রলীগের আদর্শের সাথে যাদের বিন্দুমাত্র সংস্পর্শ নেই, মিটিং মিছিলে যাদের কোন ভূমিকা নেই, তাদের কক্সবাজার জেলা ছাত্রলীগের বড় বড় পদ পাইয়ে দিতে কক্সবাজার জেলা আওয়ামীলীগের কতিপয় নেতাকর্মী এবং কয়েকজন এমপি নানা তদবিরে উঠে পড়ে লেগেছে। এমনকি বিভিন্ন মামলার আসামী, চাঁদাবাজ, টানা গাড়ির ব্যবসায়ী, মোটরসাইকেল চোরের সিন্ডিকেট নিয়ন্ত্রণকারী, মাদকাসক্ত, বাবা মায়ের অবাধ্য সন্তানদের জেলা ছাত্রলীগের সভাপতি, সাধারণ সম্পাদকহ অন্যান্য পদগুলো পাইয়ে দিতে কোটি টাকার মিশন বাস্তবায়নে জেলা আওয়ামীলীগের কতিপয় নেতাকর্মীরা বদ্ধপরিকর।
ফলশ্রুতিতে নকল ছাত্রলীগ নেতাকর্মীদের ঠেলায় হারিয়ে যাচ্ছে আসল ছাত্রলীগ নেতাকর্মীরা।
প্রবীন রাজনীতিবিদরা জানান, এসব নেতাকর্মীরা কক্সবাজার ছাত্রলীগের নেতৃত্বে আসলে বাংলাদেশ আওয়ামীলীগের ভাবমূর্তি নষ্ট হবে। পাশাপাশি ত্যাগী ,আসল ও আদর্শ ছাত্রলীগ নেতা-কর্মীদের মাঝে চরম ক্ষোভ বিরাজ করবে।
কক্সবাজার জেলা ছাত্রলীগের তৃনমূল পর্যায়ের নেতাকর্মীদের একটাই দাবি- ত্যাগী আদর্শবান পরিশ্রমী, মেধাবী ছাত্রলীগ কর্মীরা নেতৃত্বে আসুক । তাহলেই বাংলাদেশ ছাত্রলীগের আদর্শ বাস্তবায়ন হবে, আপন মহিমায় মহিমান্বিত হবে বাংলাদেশ আওয়ামীলীগের অঙ্গসংগঠনের একটি অংশ বাংলাদেশ ছাত্রলীগ। বাস্তবায়িত হবে বঙ্গবন্ধুর স্বপ্নের সোনার বাংলাদেশ।

  •  
  •  
  •  
  •  
  •   
  •  
  •