কফিল উদ্দিন , রামু:

রামুর প্রত্যন্ত অঞ্চলের কিশোরী  ( নাম গোপন ) (১২) কে ধর্ষন মামলায় দীর্ঘদিন পলাতক থাকার পর ধর্ষক নুর আহাম্মদ (৫৭) পিতা – মৃত কাশেম আলীকে বান্দরবান জেলার লামা উপজেলার মেয়ের জামাইর বাড়ি হতে পলাতক অবস্থায় গ্রেফতার করেছে রামু থানা পুলিশ।

১৬/৪০৭ নং মামলা তারিখ : ১৯/১০/২০২০ এর আদেশমুলে আসামীকে গ্রেফতার করেছে বলে জানিয়েছেন রামু থানা পুলিশ।

রামু থানা পুলিশ এক প্রেস বিজ্ঞপ্তির মাধ্যমে সাংবাদিকদের নিশ্চিত করে বলেন,মামলার এজাহার অনুসারে রামু থানাধীন ভিকটিম (নাম গোপন) (১২) তার পিতা : কালু (ছদ্মনাম) এর জন্য গত ১৩ মে আনুমানিক দুপুর ০১:৩০ ঘটিকার সময় বাবার জন্য পাহাড়ের জমিতে দুপুরের খাবার নিয়ে যাবার সময় বিবাদী নুর আহাম্মদ(৫৭) পিতা – মৃত কাশেম আলী জোরপূর্বক পথরোধ করে বিবাদীর নিজ বাড়িতে নিয়ে গিয়ে বিবাদীর বসতঘরে পরনের পায়জামা খুলে জোরপূর্বক ধর্ষণ করে।এরপর ভিকটিম কে বিভিন্ন সময় ভয়ভীতি ও হুমকি প্রদর্শন করে রাস্তা ঘাটে একা পাইলে বিভিন্ন সময় বিবাদীর বসতবাড়ি তে নিয়ে গিয়ে জোরপূর্বক ধর্ষণ করে।

তারই ধারাবাহিকতায় গত ১৪ অক্টোবর সন্ধ্যায়  বিবাদী বাদীর নিজ বাড়িতে ভিকটিম কে পুনরায় ধর্ষণ করার জন্য চেষ্টা করে, তখন ভিকটিম চিৎকার করলে এলাকার লোকজন এগিয়ে আসলে ধর্ষক পালিয়ে যায়। পরবর্তী তে মামলার বাদী ভিকটিমসহ রামু থানায় এসে একটি ধর্ষন মামলা দায়ের করে। ধর্ষক পলাতক থাকায় তাকে তৎক্ষণাৎ গ্রেফতার করা সম্ভব হয় নাই। অদ্য ২৮ অক্টোবর  বিবাদী দীর্ঘদিন পলাতক থাকার পর গোপন সংবাদের ভিত্তিতে আসামি নুর আহাম্মদ কে বান্দরবান জেলার লামা থানার বিবাদীর মেয়ের জামাই’র বাড়ী হতে রামু থানার এস আই মোহাম্মদ কামরুল ইসলাম বিপি নং: ৯০১৯২২৩৯৫৩ পলাতক অবস্থায় আসামীকে গ্রেফতার করেন।

  •  
  •  
  •  
  •  
  •   
  •  
  •