নিজস্ব প্রতিবেদকঃ
১৯ অক্টোবর সোমবার থেকে কক্সবাজার জেলায় অনির্দিষ্টকালের ধর্মঘটের ডাক দিয়েছে এলপি গ্যাস ব্যবসায়ীরা।
সম্প্রতি সমিতির সভাপতি সরওয়ার কামাল সিকদার এবং সাধারণ সম্পাদক গোলাম আরিফ লিটনের বিরুদ্ধে কক্সবাজার সদর মডেল থানায় জিডি করেন জেলা ভোক্তা অধিকার সংরক্ষণ অধিদপ্তরের সহকারি পরিচালক মোহাম্মদ ইমরান হোসাইন।
এর প্রতিবাদে কক্সবাজার জেলা এল.পি গ্যাস ব্যবসায়ী সমিতির বৈঠকে এই সিদ্ধান্ত গ্রহণ করা হয়।
এ বিষয়ে রবিবার বিকেলে শহরের খুরুশকুল সংযোগ সড়কস্থ সমিতির কার্যালয়ে অনুষ্ঠিত জরুরী সভা করে ব্যবসায়ীরা।
সমিতির সভাপতি সরওয়ার কামাল সিকদারের সভাপতিত্বে এবং সাংগঠনিক সম্পাদক শাহাদাত হোসেনের সঞ্চালনায় অনুষ্ঠিত সভায় অন্যান্যের মধ্যে সাধারণ সম্পাদক গোলাম আরিফ লিটন, সহ-সভাপতি আলিম উদ্দিন, নুর মোহাম্মদ চৌধুরী, সাহেদ চৌধুরী, তোফায়েল আহমদ, উপদেষ্টা মাওলানা আনোয়ার, শহীদুল্লাহ্ প্রমুখ বক্তব্য রাখেন। এতে উপস্থিত ছিলেন, ফয়সাল, সুমন, শামীম, কেফায়েত উল্লাহ্, রেজাউল, খোরশেদ, রহিম, সাইফুল, জিয়া প্রমুখ।
সভায় সমিতির সভাপতি ও সাধারণ সম্পাদকের বিরুদ্ধে দায়েরকৃত সাধারণ ডায়েরি (জিডি)’র নিন্দা জানিয়ে বক্তারা বলেন, ১২ অক্টোবর সমিতির পক্ষ থেকে ইমরান হোসাইন কর্তৃক হয়রাণির প্রতিবাদে শহরে বিক্ষোভ প্রদর্শন করা হয়। পরদিন ১৩ অক্টোবর বিষয়টি সুরাহা করতে অতিরিক্ত জেলা ম্যাজিস্ট্রেট জনাব মোঃ শাহজাহান আলী সমিতির নেতৃবৃন্দের সঙ্গে আলোচনায় বসেন। বৈঠকে ইমরান হোসাইনও উপস্থিত ছিলেন। সেই বৈঠকের অতিরিক্ত জেলা ম্যাজিস্ট্রেট মহোদয় সকল ভুল বুঝাবুঝির অবসান ঘটিয়ে ৭৫০ টাকা গ্যাসের খুচরো মূল্য নির্ধারণ করেন। যা ব্যবসায়ীরা মেনে নেয়।
কিন্তু পরদিন হঠাৎ করেই ইমরান হোসাইন সমিতির সভাপতি ও সাধারণ সম্পাদকের নামে কক্সবাজার সদর মডেল থানায় জিডি দায়ের করেন। কক্সবাজার জেলা প্রশাসনের সিদ্ধান্ত অমান্য করেই এই জিডি দায়ের করা হয়। যা অত্যন্ত দুঃখজনক।
সমিতির সাধারণ সম্পাদক গোলাম আরিফ লিটন বলেন, আমাদের পিঠ দেয়ালে ঠেকে গেছে। ইমরান হোসাইনকে প্রত্যাহারের পাশাপাশি তাঁর জিডিও প্রত্যাহার করে নিতে হবে। এই দাবি আদায় না হলে ধর্মঘট অব্যাহত থাকবে বলেও জানান তিনি।

  •  
  •  
  •  
  •  
  •   
  •  
  •