চকরিয়া সংবাদদাতা#
চকরিয়ায় দেশীয় তৈরি ধারালো অস্ত্র-শস্ত্র নিয়ে পূর্ব পরিকল্পিতভাবে শতোর্ধ বৃদ্ধের দীর্ঘদিনের পৈত্রিক ভোগদখলীয় ক্ষেতের জায়গা জবরদখলের চেষ্টা চালিয়েছে দুর্বৃত্তরা।
এ সময় বাধা দিতে গেলে ধারালো অস্ত্র দিয়ে কুপিয়ে ও বেদড়ক মারধর করে শতোর্ধ বৃদ্ধসহ ৩ ব্যক্তিকে গুরুতর আহত করা হয়।
ঘটনাস্থল থেকে আহতদের উদ্ধার করে উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নিয়ে ভর্তি করা হয়েছে।
ঘটনায় আহতরা হলেন- উপজেলার বিএমচর ইউনিয়ের দক্ষিণ বহদ্দার কাটা এলাকার মৃত অজি উল্লাহ’র ছেলে আবুল হোছন (৯৫) তার ছেলে জহির আলম (৫৮) ও জহির আলমের ছেলে আবু ইউসুফ (৩০)।
শুক্রবার (৯অক্টোবর) সকালে উপজেলার বিএমচর ইউনিয়নের দক্ষিণ বহদ্দার কাটাস্থ রশিদিয়া কাটায় এ হামলার ঘটনা ঘটে। এ নিয়ে বৃদ্ধা আবুল হোছনের নাতি আবু ইউসুফ বাদি হয়ে শুক্রবার রাতে ৭জনকে আসামি করে চকরিয়া থানায় একটি এজাহার দায়ের করেছে।

অভিযোগ সূত্রে জানা গেছে, উপজেলার বিএমচর ইউনিয়নের ৪ নম্বর ওয়ার্ডের দক্ষিণ বহদ্দার কাটা এলাকার মৃত অজি উল্লাহর ছেলে আবুল হোছনের পৈত্রিক ৬০শতক জমি তিনি দীর্ঘকাল ধরে ভোগদখল করে আসছিল। শুক্রবার সকালে বৃদ্ধার পৈত্রিকসুত্রে দখলীয় ভেওলা মানিকচর মৌজার বিএস ৬০৩ নম্বর খতিয়ানের ৯১০, ৯১১ ও ৯১২ দাগের ৬০শতক ক্ষেতের জমি জবর দখলে নিতে চেষ্টা চালায় একই এলাকার মৃত হেদায়েত আলীর ছেলে জাকের হোছন, বারেক হোছন, নাদের হোছনের ছেলে মৌলভী মিজানুর রহমানের নেতৃত্বে ১০/১২জন জবর-দখলকারী সন্ত্রাসীরা। এ সময় বৃদ্ধা আবুল হোছনের নাতি ইউসুফ দখলবাজ সন্ত্রাসীদের বাঁধা দিতে গেলে তাকে দেশীয় তৈরি ধাঁরালো অস্ত্রদিয়ে কুপিয়ে ও বেদড়ক পিঠিয়ে গুরুতর জখম করেন। খবর পেয়ে তার বাবা ও বৃদ্ধ দাদা নাতি আবু ইউসুফকে হামলাকারী থেকে উদ্ধার করতে গেলে তাদের ওপর হামলা চালিয়ে বেদড়ক পিঠিয়ে ও মারধর করে গুরুতর জখম করা হয়। স্থানীয়রা ঘটনাস্থল থেকে আহতদের উদ্ধার করে উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নিয়ে ভর্তি করা হয়েছে। পরে আহতের পরিবারের সদস্যকে ওই দখলবাজ সন্ত্রাসীরা অশ্লীল গালি-গাঁলাজ করে প্রাঁণনাশের হুমকি প্রদর্শণ করেছে বলে সূত্রে জানায়।

মামলার বাদি ও হামলার শিকার আবু ইউসুফ বলেন, আমার বৃদ্ধ দাদার তার পৈত্রিকসূত্রে প্রাপ্ত ভোগদখলীয় ৬০শতক জমি তিনি দীর্ঘ কয়েকযুগ ধরে ভোগদখল করে আসছে। বর্তমানে ওই জায়গায় চলতি মৌসুমে ক্ষেতের চাষাবাদের জন্য স্থানীয় উত্তর বহদ্দার কাটা এলাকায় জৈনক হেলাল উদ্দিনকে বর্গাচাষী হিসেবে লাগিয়ত করেন। ওই বর্গাচাষী তার লাগিয়ত নেয়া জমিতে শুক্রবার সকালে চলতি মৌসুমে বেগুনের ক্ষেতের চারা লাগালে এতে জবর-দখলকারীরা এসে অকাথ্য গালিগালাজ করে বাঁধা দিয়ে জমি দখলের চেষ্টা চালায়। এসময় তাদের ক্ষেতের জমি থেকে আমি চলে যেতে বললে ১০/১২ জনের জবরদখলকারী সন্ত্রাসীরা এসে পূর্ব পরিকল্পিত ভাবে আমাকে কিরিচ দিয়ে কুপিয়ে ও মারধর করে গুরতর আহত করে। এসময় তাদের কাছ থেকে আমাকে বাঁচাতে আমার বাবা ও বৃদ্ধ দাদা এগিয়ে আসলে তাদের ওপরও হামলা চালিয়ে বেদড়ক মারধর করে গুরুতর আহত করা করেন জবরদখলকারীরা। ওই সময় তারা আমার পরিবারকে প্রাঁণনাশের হুমকিও প্রদান করে। এঘটনায় থানায় এজাহার দায়ের করা হয়েছে বলেও জানান মামলার বাদি আহত আবু ইউসুফ।

ঘটনার বিষয়ে জানতে চাইলে বিএমচর ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান এস এম জাহাঙ্গীর আলম বলেন, সকালে জায়গা সংক্রান্ত বিরোধে নিয়ে এক বৃদ্ধাসহ তিনজনকে মারধর করে গুরুতর আহত কবার খবর পয়েছি। আহতদের চিকিৎসার জন্য হাসপাতালে নেওয়া হয়েছে। মূলত কি কারণে ঘটনাটি হয়েছে সেই বিষয়ে খোঁজ নেয়া হচ্ছে বলে তিনি জানান।

চকরিয়া থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) শাকের মোহাম্মদ যুবায়ের কাছে জানতে চাইলে তিনি বলেন, ঘটনার বিষয়ে থানায় একটি এজাহার দেয়া হয়েছে। বিষয়টি তদন্তপূর্বক আইনগত ব্যবস্থা নেয়া হবে বলে তিনি জানান।

  •  
  •  
  •  
  •  
  •   
  •  
  •