সংবাদদাতা :

কুতুবদিয়ায়  জমির মুন্সির বিরুদ্ধে থানায় মামলা করলেন  মহিলা আওয়ামী লীগ নেত্রী, শিক্ষিকা রোজিনা আক্তার রোজী।

জানা যায়, কুতুবদিয়ায় সদর ইউনিয়নের উত্তর বড়ঘোপ মাজেদা কিন্ডার গার্ডেনের প্রধান শিক্ষিকা ও কুতুবদিয়া বড়ঘোপ ইউনিয়ন মহিলা আওয়ামী লীগের সভানেত্রী রোজিনা আক্তার রোজীকে বিয়ের পর থেকে অমানুষিক নির্যাতন চালিয়ে আসছে তার মাদকাসক্ত  জুয়াড়ি স্বামী জমির উদ্দিন মুন্সি।

শুক্রবার সকালে নারী ও শিশু নির্যাতন দমন আইনে মামলাটি করেন নারী নেত্রী রোজিনা আক্তার রোজী। থানায় তার পক্ষে হাজির হয়ে এজাহার কপিটি দায়ের করেন তার ছোট ভাই। এ সময় কুতুবদিয়া থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা যথাযথ আইনানুগ ব্যবস্থা গ্রহণ করবে বলে জানান।

কুতুবদিয়া উপজেলার বড়ঘোপ ইউনিয়নের ৫নং ওয়ার্ডের মৃত নূরুল ইসলামের পুত্র মো. জমির উদ্দিন (৪০) কে একমাত্র আসামী করা হয়। মামলার বাদী রোজিনা বলেন, জমির উদ্দিন মুন্সি আমাকে বিয়ের পর থেকে যৌতুকের জন্য শারীরিক ও মানসিকভাবে নির্যাতন করে আসছে।

আহত মহিলা আওয়ামী লীগ নেত্রী রোজিনা আক্তার রোজী এ প্রতিবেদককে আরো বলেন, গতকাল রাত ৮.২০ মিনিটের দিকে বড়ঘোপ ইউনিয়নের উত্তর বড়ঘোপ স্কুল সংলগ্ন ভাড়া বাসায় এসে হাতুড়ি ও লাঠি দিয়ে যৌতুকের জন্য পুরো শরীরে বেধড়ক মারধর করেন। তিনি আরো জানান, জমির একজন মুখোশধারী মাদকাসক্ত ইয়াবা কারবারী ও উপজেলার সেরা জুয়াড়ি। তিনি বিয়ের পর থেকে বিভিন্ন সময় আমাকে বেধড়ক মারধর সহ অমানুষিক নির্যাতন চালিয়ে আসছে। প্রায় সময় ২ লক্ষ টাকা যৌতুক এনে দেয়ার জন্য মারধর করত। বহুবার ঘুমের মধ্যে মুখে বালিশ চেপে ধরে শ্বাসরোধ করে হত্যা করতে চেয়েছিল। আমি আমার পরিবারের সম্মান ও এক ছেলে একমেয়ের দিকে তাকিয়ে কখনো তার বিরুদ্ধে মামলা মোকদ্দমা করিনি। কিন্তু দেয়ালে আমার পিঠ ঠেকে গেছে।

আমি তার বর্বরোচিত নির্যাতন আর সইতে পারছি না। তার নির্যাতনের ফলে আমি আজ সারা শরীরের ব্যথা নিয়ে হাসপাতালের বেডে কাতরাচ্ছি। আমাকে ও আমার মা ভাইবোনদেরকে হত্যা করার হুমকি দিয়ে যাচ্ছে প্রতিনিয়ত।

  •  
  •  
  •  
  •  
  •   
  •  
  •