শাহিদ মোস্তফা শাহিদ:
কক্সবাজার সদরের ঈদগাঁও-ঈদগড় সড়কের হিমছড়ি ঢালায় ডাকাত দলের চাইনিজ কুড়ালের কোপে নিহত হয়েছেন জনপ্রিয় শিশু শিল্পী জনি দে রাজ (১৮)।
বৃহস্পতিবার (৮ অেক্টাবর) সকাল সোয়া ৮ টার দিকে এ ঘটনা ঘটে। এসময় সিনএনজি থাকা আরো ২ জন যাত্রী আহত এবং দুইজন ব্যক্তি অপহৃত হয়েছে স্থানীয়রা জানিয়েছে। তবে,তাদের বিস্তারিত পরিচয় জানা যায়নি। আহতরা বিভিন্ন হাসপাতালে চিকিৎসাধীন।
নিহত জনি ঈদগড় ৪নং ওয়ার্ডের চরপাড়া এলাকার তপন দের পুত্র।
ঈদগাঁও তদন্ত কেন্দ্রের টু আইসি এসআই শামীম আল মামুন জানান, ঈদগাঁও থেকে ঈদগড় যাওয়ার পথে হিমছড়ি ঢালায় সিএনজিবাহী যাত্রীরা ডাকাতির শিকার হন। এসময় ডাকাতের উপর্যোপুরী চাইনিজ কুড়ালের কোপে কণ্ঠশিল্পী জনি আহত হয়। পরে স্থানীয়রা উদ্ধার করে ঈদগাঁওস্থ একটি বেসরকারি হাসপাতালে নিয়ে গেলে কর্তব্যরত চিকিৎসক তাকে মৃত ঘোষণা করেন। অন্য যাত্রীদেরও আঘাত করা হয়েছে।
তিনি জানান, ঘটনার পর পুলিশ ঘটনাস্থল পৌঁছে ঘটনার বিস্তারিত নেন। স্থানীয় হাসপাতাল থেকে মৃতদের উদ্ধার করে ময়না তদন্তের জন্য কক্সবাজার সদর হাসপাতালের মর্গে পাঠানো হয়। নিহত জনির পিতা তপন দে জানান, তিনিসহ ছেলে জনি গত কয়েকদিন ধরে চট্টগ্রামের পটিয়া উপজেলায় কয়েকটি অনুষ্ঠান শেষে করে ঘটনার দিন ভোরে পটিয়া থেকে শ্যামলী পরিবহনের বাসে করে ঈদগাঁও বাসস্টেশনে নামেন সাড়ে ৭ টার দিকে। স্টেশনে নেমে পিতা পুত্র এক সাথে নাস্তা করে। তারপর একটি সিএনজি করে জনি আগে চলে যায়। যাওয়ার পথেই এ মর্মান্তিক ঘটনাটি ঘটে।
খবর পেয়ে কক্সবাজার সদর মডেল থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা শেখ মনিরুল গিয়াসসহ পিবিআইয়ের একটি দল ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেন।
ঈদগড় ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান ফিরোজ আহমদ ভুট্টা খবর পেয়ে ঈদগাঁও তদন্ত কেন্দ্র ছুটে যান।
সকাল ৮ টার সময় ঈদগাঁও ঈদগড় সড়কে চৌকিতে পুলিশ থাকার কথা থাকলেও কয়েকদিন ধরে সেই নিয়ম মানছে না পুলিশ। যার কারণেই আজকে এই মর্মান্তিক ঘটনাটি ঘটেছে বলে জানিয়েছে স্থানীয় বাসিন্দারা।

  •  
  •  
  •  
  •  
  •   
  •  
  •