কক্সবাজারবাসীর বিশ্বাস ও আস্থা অর্জন করাই হবে প্রথম কাজ : নবাগত এসপি মো: হাসানুজ্জামান

প্রকাশ: ১ অক্টোবর, ২০২০ ০২:৫৬ , আপডেট: ১ অক্টোবর, ২০২০ ০৫:২৪

পড়া যাবে: [rt_reading_time] মিনিটে


এসপি হাসানুজ্জামান- ফাইল ছবি

বলরাম দাশ অনুপম


পুলিশের গুলিতে সেনাবাহিনীর অবসরপ্রাপ্ত মেজর সিনহা মোঃ রাশেদ নিহত হওয়ার পর দেশজুড়ে আলোচনা সমালোচনার মুখে পড়ে কক্সবাজার জেলা পুলিশ। এই ঘটনার পর গত ৫ আগস্ট নিহত মেজর সিনহার বোন শারমিন শাহরিয়ার ফেরদৌস বাদি হয়ে টেকনাফ থানার সাবেক ওসি প্রদীপ কুমারসহ বেশ কয়েকজন পুলিশ সদস্যের বিরুদ্ধে হত্যা মামলা দায়ের করেন। মামলা দায়েরের পর সাময়িক বহিস্কার করা হয় টেকনাফ থানার ওসি প্রদীপ কুমার দাশসহ ৭ পুলিশ সদস্যকে। এরপর গত ১৬ সেপ্টেম্বর পুলিশ সুপার এবিএম মাসুদ হোসেনকে বদলী করা হয় রাজশাহীতে। আর ২৩ সেপ্টেম্বর কক্সবাজার জেলার পুলিশ সুপার হিসেবে দায়িত্বগ্রহণ করেন ঝিনাইদহের এসপি মোঃ হাসানুজ্জামান পিপিএম। যোগদানের পর বৃহস্পতিবার (১ অক্টোবর) সকালে নিজ কার্যালয়ে নতুন পুলিশ সুপার মোঃ হাসানুজ্জামান মুখোমুখি হন কক্সবাজারনিউজ ডটকম সিবিএনের। সিবিএনের এই প্রতিবেদকের কাছে দেন একান্ত সাক্ষাৎকার।

সিবিএন : কি বার্তা নিয়ে শুরু হবে নতুন যাত্রা ?
পুলিশ সুপার : পুলিশ জনগণের। প্রথম কাজ হল পারস্পরিক আস্থা ও বিশ্বাসের ভিত্তিতে জেলার সকল জনসাধারণ এবং সব শ্রেণী-পেশার মানুষের সাথে নিবীড় সর্ম্পক গড়ে তোলা। পাশাপাশি জেলাবাসির আস্থা ও বিশ্বাস অর্জন করাই হবে প্রধান কাজ। কক্সবাজার জেলার মানুষের জানমাল রক্ষা, অপরাধ দমন এবং আইন শৃংখলা রক্ষায় আমিসহ জেলা পুলিশের সকল সদস্যদের উপর যে পবিত্র দায়িত্ব অর্পণ করা হয়েছে তা সম্পূর্ণ পেশাদারিত্ব, আন্তরিকতা, নিষ্টা ও সততার মাধ্যমে পালন করে যাব।

সিবিএন : গণবদলীতে কোনো চ্যালেঞ্জ তৈরি হচ্ছে কিনা?
পুলিশ সুপার : পুলিশ দেশের বড় এবং ঐতিহ্যবাহি একটি পেশাদার সংগঠন। আর এই পুলিশের বদলী জনস্বার্থে। কিন্তু এত বড় বদলী অবশ্যই চ্যালেঞ্জ। তবে এটি সাময়িক চ্যালেঞ্জ। যেকোন পরিস্থিতি মানিয়ে নেয়ার অভিযোজন ক্ষমতা পুলিশের রয়েছে। যে অভিযোজন ক্ষমতাকে কাজে লাগিয়ে কক্সবাজার জেলার ধারণা নিয়ে কাজ করে যাবে পুলিশ। পাশাপাশি জেলার ভৌগলিক অবস্থা সম্পর্কে একটি ধারণা, যোগাযোগ ব্যবস্থা সম্পর্কে একটা স্বচ্ছ ধারণা নেয়া এবং আনুসাঙ্গিক বিষয় মাথায় রেখে এ চ্যালেঞ্জ মোকাবেলায় আমরা প্রস্তুত রয়েছি।

সিবিএন : মাদক দমনে কিভাবে ভূমিকা পালন করবেন?
পুুলিশ সুপার : মাদক একটি জাতীয় সমস্যা। মাদক দমন বা নিমূল এ বিষয়টি অত্যন্ত গুরুত্বের সাথে দেখা হবে। প্রথমত: আমরা যেটা করবো মাদক দমনের ক্ষেত্রে মাদকের যারা খুচরা বিক্রেতা, পাইকারি বিক্রেতা, মাদকের পেছনে যারা টাকা বিনিয়োগ করেন এসকল ব্যক্তির তথ্য সংগ্রহ করা হবে। তাদের শনাক্ত করে উপযুক্ত স্বাক্ষী প্রমাণের ভিত্তিতে আটক করে আইনের কাঠগড়ায় দাঁড় করানো হবে। পাশাপাশি তাদের শাস্তি নিশ্চিতের ব্যবস্থা করা হবে।

সিবিএন : সিনহা হত্যাকান্ড পুলিশের হারানো সম্মান ফেরাতে কি ভূমিকা রাখবেন?
পুলিশ সুপার : ১৯৭১ সালের মহান মুক্তিযুদ্ধে সম্মুখ যোদ্ধা হিসেবে পুলিশ সদস্যরা অগ্রণী ভূমিকা পালন করেছিল। পুলিশ একটি ঐতিহ্যবাহি বাহিনী। কিছু ঘটনার জন্য এই বাহিনীর গৌরব বা ভাবমূর্তি নষ্ট হয়ে যায় না। যদি কেউ এধরণের অপরাধ করে থাকে তাহলে সেই দায়-দায়িত্ব পুরো বাহিনীর না, সেটা নিছক ব্যক্তিগত। সেই ব্যক্তির দায় পুলিশ বাহিনী বহন করবে না। আর দায়িত্ব পালনের ক্ষেত্রে পুলিশের কোন সদস্য অপরাধ করলে কঠোর ব্যবস্থা গ্রহনের হুঁশিয়ারি উচ্চারণ করে নবাগত পুলিশ সুপার মোঃ হাসানুজ্জামান বলেন আমার ম্যাসেজ পরিষ্কার, আমি এখানে সততা, নিষ্টা এবং আন্তরিকতার সর্বোচ্চ পেশাদারিত্ব দিয়ে জেলাবাসির সেবার প্রত্যয় নিয়ে যোগদান করেছি। এখানে যদি আমার কোন সদস্য কোন ধরণের শৃঙ্খলা পরিপন্থি কাজ করে কিংবা কোন অনৈতিক কাজে সাথে যুক্ত থাকে তাহলে সে যেই ক্যাটাগরির অফিসার বা সদস্য হোক তাকে ছাড় দেবো না।

সিবিএন : ক্রসফায়ার নিয়ে নিজের অবস্থান কি?
পুলিশ সুপার : ক্রসফায়ার শব্দ কিংবা এর সাথে আমি পরিচিত না।

সিবিএন : এতক্ষণ সময় দেয়ার জন্য আপনাকে ধন্যবাদ।
পুুলিশ সুপার : আপনি এবং সিবিএন পরিবারকে অনেক ধন্যবাদ ও কৃতজ্ঞতা।

  •  
  •  
  •  
  •  
  •   
  •  
  •