নীতিশ বড়ুয়া :
বৌদ্ধ ধর্মাবলম্বীদের অন্যতম ধর্মীয় উৎসব শুভ প্রবারণা পূর্ণিমায় কক্সবাজার সদর, শহর, ঈদগাঁহ ও রামুসহ সকল বৌদ্ধ সম্প্রদায়কে মৈত্রীময় শুভেচ্ছা জানিয়েছেন, তথ্য মন্ত্রণালয় সম্পর্কিত সংসদীয় স্থায়ী কমিটির সদস্য, কক্সবাজার-৩ (সদর-রামু) আসনের জাতীয় সংসদ সদস্য আলহাজ্ব সাইমুম সরওয়ার কমল।
এক শুভেচ্ছা বার্তায় এমপি কমল বলেছেন, বাংলাদেশ সাম্প্রদায়িক সম্প্রীতির দেশ। আবহমানকাল থেকে এ দেশে প্রত্যেক ধর্মের মানুষ উৎসবমুখর পরিবেশে নিজ নিজ ধর্ম নির্বিঘেœ পালন করে আসছেন। এই সৌহার্দ্য ও সম্প্রীতির বন্ধনকে সমুন্নত রাখতে বৌদ্ধদেরও তাৎপর্যপূর্ণ ভূমিকা রয়েছে। তিনি বলেন, মহামতি গৌতমবুদ্ধ মানুষের কল্যাণ এবং শান্তি প্রতিষ্ঠায় অহিংসা, সাম্য ও মৈত্রীর বাণী প্রচার করেছেন। শান্তি ও সম্প্রীতির মাধ্যমে আদর্শ সমাজ গঠনই ছিলো তাঁর অন্যতম লক্ষ্য। শুভ প্রবারণা- শীল, সমাধি, প্রজ্ঞার অনুশীলনের মাধ্যমে আত্মশুদ্ধি, শুভ, সত্য ও সুন্দরকে গ্রহণ বা বরণ করে অসত্য ও অসুন্দরকে বর্জন করে। তথাগত গৌতম বুদ্ধ বুদ্ধত্ব লাভের পর আষাঢ়ী পূর্ণিমা হতে আশ্বিনী পূর্ণিমা তিথি পর্যন্ত ভিক্ষু সংঘের ত্রৈমাসিক বর্ষাবাস শেষে প্রবারণা উৎসব এবং পরদিন হতে একমাস বৌদ্ধ বিহারগুলোতে কঠিন চীবর দানোৎসব পালন নীতি প্রচলন করেন।
প্রবারণা পূর্ণিমায় কক্সবাজারের রামুতে শতবছর ধরে কল্পজাহাজ ভাসানো উৎসব উদযাপন হয়ে আসছে। কিন্তু করোনা ভাইরাস সংক্রমণে বর্তমান বিশ্ব বিপর্যস্ত। ইতোমধ্যে বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা এই ভাইরাসের প্রাদুর্ভাবকে মহামারি হিসেবে আখ্যায়িত করায় রামুর বৌদ্ধ সম্প্রদায় এ বছর জাহাজ ভাসানো উৎসব আয়োজন করছে না। জনসমাগম এড়িয়ে, স্বাস্থ্যবিধি মেনে এবারের প্রবারণা পূর্ণিমা উদযাপন করছে।
সাইমুম সরওয়ার কমল এমপি বৌদ্ধদের অন্যতম ধর্মীয় উৎসব শুভ প্রবারণা পূর্ণিমায় কক্সবাজার-রামুসহ দেশ ও বিদেশের সকল মানুষের জীবনে সুখ, শান্তি ও সমৃদ্ধি বয়ে আনুক এ কামনা করে প্রবারণা পুর্ণিমার শুভেচ্ছা জানিয়েছেন।

  •  
  •  
  •  
  •  
  •   
  •  
  •