সংবাদদাতা:
অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক (সাধারণ) মাসুদুর রহমান মোল্লা বলেছেন, ধর্মীয়ভাবে বৃক্ষরোপন একটি মহান কাজ। আর পৃথিবীর জন্য সর্বোত্তম কাজ হচ্ছে বৃক্ষরোপন। ব্যক্তি, সমাজ আর রাষ্ট্রের প্রধান কর্ম বৃক্ষরোপন। এর কারনে হচ্ছে পৃথিবীতে প্রাণের অস্তিত্ব ঠিকিয়ে রাখতে হলে বৃক্ষরোপনের বিকল্প নেই। গাছ আছেতো প্রাণ আছে। গাছ না থাকলে শুধুই পৃথিবী নামের গ্রহটি থাকবে, প্রাণ থাকবেনা। তাই পৃথিবীতে সব মানুষের উচিত গাছ লাগানো। সরকারি দায়িত্ব না থাকলেও সামাজিক দায়বোধ থেকে প্রতিবছর বৃক্ষরোপন ও চারা বিতরণ করে মানবের জন্য মহৎ কাজ করে যাচ্ছেন কক্সবাজার বন ও পরিবেশ সংরক্ষণ পরিষদ। অবশ্যই সকলের তাদের পাশে থেকে এমন মহৎ কাজে সহযোগিতা করা প্রয়োজন।

২৮ সেপেটম্বর সকালে কক্সবাজার বন ও পরিবেশ সংরক্ষণ পরিষদের উদ্যোগে কক্সবাজার কেন্দ্রিয় মহাশশ্মান ও কস্তুরাঘাট এলাকায় বৃক্ষরোপন ও চারা বিতরণ অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তব্যে তিনি একথা বলেন। কক্সবাজার কেন্দ্রিয় মহাশশ্মান কমিটির সহযোগিতায় অনুষ্ঠিত এ অনুষ্ঠানে বিশেষ অতিথির বক্তব্য রাখেন হিন্দু ধর্মী কল্যাণ ট্রাষ্ট্রের ট্রাষ্টি বাবুল শর্মা, দক্ষিণ বন বিভাগের সহকারি বন সংরক্ষক আবদুল্লাহ আল মামুন, কক্সবাজার পরিবেশ অধিদপ্তরের সহকারি পরিচালক সংযুক্তা দাশগুপ্তা। কক্সবাজার বন ও পরিবেশ সংরক্ষণ পরিষদের সভাপতি সাংবাদিক দীপক শর্মা দীপুর সভাপতিত্বে ও সাধারণ সম্পাদক সাংবাদিক মোহাম্মদ জুনাইদের পরিচালনায় অনুষ্ঠিক সভায় বক্তব্য রাখেন, জেলা পূজা উদযাপন পরিষদের সহ সভাপতি রতন দাশ, সাবেক পৌর কাউন্সিলর উদয় শংকর পাল মিঠু, বন ও পরিষদ সংরক্ষণ পরিষদের কর্মকর্তা ডা: চন্দন কান্তি দাশ, কামাল উদ্দিন, পৌর পূজা কমিটির সাধারণ সম্পাদক মিটুন দে।

সৌন্দর্য্যবন্ধনকারি, ফুল, ফলজ, বনজ ও ঔষুধি গাছসহ দুই শতাধিক বৃক্ষরোপন করা হয় এবং দুই শতাধিক চারা বিতরণ করা হয়।

  •  
  •  
  •  
  •  
  •   
  •  
  •