টেকনাফ উপজেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ও টেকনাফ উপজেলা ছাত্রলীগের সাবেক সভাপতি আলহাজ্ব নুরুল বশর টেকনাফ উপজেলায় মাদক ও সকল অন্যায়ের বিরুদ্ধে সাহসিকতার সহিত প্রতিবাদ করে যাচ্ছেন।

কিন্তু অতীব দুঃখের বিষয়, গত ২৫ই সেপ্টেম্বর /২০ ইং টেকনাফ উপজেলা আওয়ামী লীগ এর অধীন টেকনাফ পৌর শাখার সাধারণ সম্পাদক মোহাং আলম বাহাদুর তার নিজস্ব Facebook আইডি (M.A. Bahadur) থেকে নুরুল বশরের বিরুদ্ধে ষড়যন্ত্রমূলক ও হিংসাত্বক মানহানিকর ভাষা ব্যবহার করে শতভাগ মিথ্যাচার করেছেন, যা আওয়ামী লীগের গঠনতন্ত্রের শৃঙ্খলা পরিপন্থী।

তার অশালীন ভাষা প্রয়োগ (ভন্ড পীর) টেকনাফের আওয়ামী পরিবার ও ধর্মপ্রান মুসলিম জনতার ধর্মীয় অনুভূতীতে মারাত্মক আাঘাত হেনেছে।

আমরা সদর আওয়ামী লীগ এর পক্ষ থেকে উধর্তন কমিটির নেতার বিরুদ্ধে এহেন মানহানিকর ও ধর্মীয় অনুভূতীতে আঘাত করে Facebook এ স্টাটাস প্রদানকারী মোহাং আলম বাহাদুরের বিরুদ্ধে সাংগঠনিক শৃঙ্খলা ভঙ্গের অপরাদে দৃষ্টান্তমূলক শাস্তির দাবী জানাচ্ছি পাশাপাশি আইনি ব্যবস্থা গ্রহনের জন্য প্রশাসনের দৃষ্টি আকর্ষণ করছি।

উল্লেখ্য যে, মোহাং আলম বাহাদুর ১৯৯৬ সালে দলীয় শৃঙ্খলা ভঙ্গের দায়ে বহিঃস্কৃত হয়ে ছিলেন।

অতি সম্প্রতি টিভি চ্যানেল, চ্যানেল 24 এ সম্প্রচারিত খুনী প্রদীপের সহযোগী ৫৪ জন শীর্ষ দালালের তালিকায় তার নাম ৩য় স্থানে রয়েছে। তার পরিবারের একাধিক সদস্যের নাম স্বরাষ্ট্র মন্ত্রনালয়ের প্রকাশিত মাদকের তালিকায় রয়েছে। মোহাং আলম বাহাদুর সরাসরি তাদের আশ্রয় প্রশ্রয় দিয়ে এলাকায়ও বহুল সমালোচিত হয়েছে।

এই ধরণের বিতর্কিত ব্যক্তি দলীয় পদবীতে থাকায় দলের এবং মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর ভাবমূর্তী দারুণ ভাবে ক্ষুন্ন হচ্ছে।

সমালোচিত- মোহাং আলম বাহাদুর পৌর আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক পদ ব্যবহার করে টেকনাফ উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি অধ্যাপক মোহাঃ আলী ও সাধারণ সম্পাদক আলহাজ্ব নুরুল বশরের নেতৃত্বাধীন কমিটির বিভিন্ন সাংগঠনিক কর্মকাণ্ডে প্রায় ৮ বছর ধরে হাইব্রীড নেতাদের ইন্ধনে অসহযোগিতা করে আসছে।

বর্তমানে অধ্যাপক মোহাঃ আলী ও আলহাজ্ব নুরুল বশরের নেতৃত্বে টেকনাফ উপজেলা আওয়ামী লীগের আওয়াতাধীন সকল ইউনিয়ন ও ওয়ার্ডের সফল সাংগঠনিক কর্মকান্ডের কারণে পূর্বের তুলনায় দল অনেক শক্তিশালী অবস্থায় রয়েছে।

প্রতিবাদকারী
সভাপ‌তি_ খ‌লিলুর রহমান
সাধারন সম্পাদক- অলিউল আলম
টেকনাফ সদর আ.লীগ।

  •  
  •  
  •  
  •  
  •   
  •  
  •