মোহাম্মদ হোসেন, হাটহাজারী:
হাটহাজারী পৌর সদরের আধা কিলোমিটার জুড়ে ছিল জানাজায় উপস্থিত লক্ষাধিক মানুষ। প্রধান মাদরাসা,মসজিদ,মাদরাসার আশপাশে ও অলিগলিতে ছিল জানাজায় অংশ মানুষের ভীড়। শনিবার দুপুর ২টার সময় জানাজা শেষ হলে মাদরাসা নিজস্ব কবরস্থানে তাকে দাফন করা হয়। জানাজায় আল-জামিয়াতুল আহলিয়া দারুল উলূম মঈনুল ইসলাম মাদ্রাসা সংলগ্ন হাটহাজারী এলাকা লোকে লোকারণ্য হয়ে ওঠে।

আহমদ শফীর বড় ছেলে পাখিয়ারটিলা কওমি মাদ্রাসার পরিচালক মাওলানা মোহাম্মদ ইউসুফ জানাজা পড়িয়েছেন৷ স্থানীয় সংসদ সদস্য জাতীয় পার্টির আনিসুল ইসলাম মাহমুদ, পুলিশের চট্টগ্রাম রেঞ্জের ডিআইজি আনোয়ার হোসেন, র‌্যাব-৭ এর অধিনায়ক লেফটেনেন্ট কর্নেল মশিউর রহমান, চট্টগ্রামে পুলিশ সুপার রাশেদুল হক, অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক বদিউল আলম জানাজায় অংশ নেন বলে উল্লেখ করেছে

মাদ্রাসার ভেতরের কবরস্থানেই আহমদ শফীকে দাফন করা হয়৷ টানা ৩৪ বছর তিনি এই মাদ্রাসার মহাপরিচালকের দায়িত্ব পালন করে এসেছেন৷ জানাজাকে ঘিরে পুলিশ, র‌্যাবের পাশাপাশি মোতায়েন করা হয় বিজিবি সদস্যদের৷
জেলা প্রশাসনের পক্ষ থেকে হাটহাজারী, রাঙ্গুনিয়া ও পটিয়া উপজেলায় সাতজন নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেটকে নিয়োগ দেয়া হয় বলেও জানিয়েছে সংবাদ মাধ্যমটি।

  •  
  •  
  •  
  •  
  •   
  •  
  •