এম.মনছুর আলম, চকরিয়া :

চকরিয়া উপজেলার উপকূলীয় বদরখালী জনপদের বরণ্য ব্যক্তিত্ব শ্রেষ্ট সমবায়ী ও সাবেক চেয়ারম্যান, মুক্তিযুদ্ধের সংগঠক, প্রথিতযশা রাজনীতিবীদ আব্দুল হানান এর প্রথম মৃত্যুবার্ষিকী উপলক্ষে স্মরণসভা অনুষ্ঠিত হয়েছে।
বৃহস্পতিবার (১৭সেপ্টেম্বর) বিকালে এশিয়ার বৃহত্তম বদরখালী সমবায় কৃষি ও উপনিবেশ সমিতি মিলনায়তনে মরহুম আবদুল হান্নান স্মৃতি ফাউন্ডেশনের আয়োজনে এ স্মরণসভা অনুষ্ঠিত হয়।
মরহুম আবদুল হান্নানের ঘনিষ্ঠ সহচর ও প্রবীণ আওয়ামীলীগনেতা মাষ্টার আব্দুল জলিলের সভাপতিত্বে ও বিশিষ্ট সমবায়ী সাংবাদিক এস,এম আকতার কামালের সঞ্চালনায় আয়োজিত স্মরন সভায় উপস্থিত থেকে মরহুম হান্নান মিয়া’র স্মরণে স্মৃতি চারণ করে রক্তব্য রাখেন কক্সবাজার জেলা আওয়ামীলীগের সাধারণ সম্পাদক ও কক্সবাজার পৌরসভার মেয়র মুজিবুর রহমান। এছাড়াও বক্তব্য রাখেন, চকরিয়া উপজেলা পরিষদের সাবেক চেয়ারম্যান ও জেলা আওয়ামীলীগের সহসভাপতি রেজাউল করিম, চকরিয়া উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান ও উপজেলা আওয়ামীলীগের সহসভাপতি আলহাজ্ব ফজলুল করিম সাঈদী, চকরিয়া উপজেলা পরিষদের ভাইস চেয়ারম্যান ও মাতামুহুরী সাংগঠনিক থানা আওয়ামীলীগের সহসভাপতি মকছুদুল হক ছুট্টু, মাতামুহুরী সাংগঠনিক উপজেলা আওয়ামীলীগের সাধারণ সম্পাদক ও সাহারবিল ইউপি চেয়ারম্যান মহসিন বাবুল, মরহুম আবদুল হান্নান স্মৃতি ফাউন্ডেশনের সভাপতি রশিদ আহমদ, বিশিষ্ট শিক্ষানুরাগী জুবাইর আহমদ বিএসসি, মরহুম আব্দুল হান্নানের ছোট ছেলে বদরখালী ইউনিয়ন আওয়ামীলীগের সভাপতি ও সাবেক চেয়ারম্যান আলহাজ্ব নুরে হোছাইন আরিফ, বদরখালী সমবায় কৃষিও উপনিবেশ সমিতির সভাপতি আলহাজ্ব নুরুল আলম সিকদার, সাধারণ সম্পাদক নুরুল আমিন জনি, সহ-সভাপতি আলী মোহাম্মদ কাজল।
স্মরণ সভায় উপস্থিত ছিলেন বদরখালী ইউনিয়ন আওয়ামীলীগের সাধারণ সম্পাদক এ কে ভুট্টো সিকদার, মাতামুহুরি সাংগঠনিক উপজেলা ছাত্রলীগের সাবেক আহবায়ক এ্যাডভোকেট রবিউল এহেছান লিটন প্রমুখ।
স্মরণ সভায় বক্তারা বলেন, উপকূলীয় বদরখালীর এ জনপদ একদিনে সৃষ্টি হয়নি। অজপাড়া গাঁয়ের এই জনপদকে উন্নত ও অগ্রসর হতে কাজ করে গেছেন সমাজের কৃর্তিমান ব্যক্তিরা। এই জনপদের একজন শ্রেষ্ট্র মানুষ ছিলেন প্রয়াত আবদুল হান্নান মিয়া। তিনি জীবন সায়ানে এসেও জনপদের মানুষের কল্যাণে ও সমবায়ীদের স্বার্থরক্ষায় অত্যান্ত অবিচল ছিলেন। সমবায়ী প্রতিষ্ঠানকে কীভাবে দেড় হাজার সভ্য ও ৪০ হাজার পোষ্যদের প্রাণের ঠিকানা হিসেবে গড়তে হয় তিনি তার কর্মের মাধ্যমে সেটি করে দেখিয়েছেন। আজকের প্রেক্ষাপটে আবদুল হান্নানের মতো সমাজহিতেষী মানুষের বড়ই প্রয়োজন। তাই এশিয়া মহাদেশের বাংলাদেশ নামের একটি ভূখণ্ডে উপনিবেশ শাসন সংরক্ষনে এখনো দেশসেরা সমবায়ী প্রতিষ্ঠান চকরিয়ার উপকূলীয় জনপদের বদরখালী সমিতি।
তারা আরও বলেন, বদরখালী সমিতি গ্রামীণ এই জনপদের ও সমিতির সভ্য পোষ্যদের জীবন মানন্নোয়নে যেমন যুগের পর যুগ আস্থার ঠিকানা হিসেবে কাজ করবেন, তেমনি ভালো কাজের মাধ্যমে আবদুল হান্নানের মতো সমাজহিতৈষী ব্যক্তিরা এই জনপদের মানুষের কাছে স্বরণীয় হয়ে থাকবেন। যারা দেশ ও জাতির কল্যাণে নিজেদের সবকিছু উৎসর্গ করে দিয়েছে সেইসব গুনীদেরকে সম্মান জানাতে হবে। তাহলেই দেশ এগিয়ে যাবে। সমাজ ও রাষ্ট্র উপকৃত হবে।
বরণ্যে রাজনীতিবিদ আবদুল হান্নানের মৃত্যুবার্ষিকী উপলক্ষে মরহুমের পরিবারের পক্ষথেকে এদিন দিনব্যাপী নানা কর্মসূচী পালন করেছেন। কর্মসূচীর মধ্যে রয়েছে- বৃহস্পতিবার সকালে মরহুম আব্দুল হান্নানের বাসভবনে খতমে কোরআন, বাদে মাগরিব ইছালে সওয়াব উপলক্ষে মিলাদুনবী (সঃ) মাহফিল।
মরহুম আবদুল হান্নানের স্মরণসভা ও ইছালে সওয়াব উপলক্ষে মিলাদুনবী (সঃ) মাহফিলের সার্বিক ব্যবস্থাপনা ও পরিচালনা করেন মরহুমের বড় ছেলে বিশিষ্ট আওয়ামীলীগ নেতা ও সমাজসেবক নুরে হাবিব তছলিম।
উক্ত অনুষ্ঠানে আওয়ামীলীগ, যুবলীগ, ছাত্রলীগ, সেচ্ছাসেবকলীগ, কৃষকলীগসহ সহযোগী সংগঠনের নেতাকর্মীরা উপস্থিত ছিলেন। এছাড়াও স্মরণসভায় জেলা-উপজেলা ও ইউনিয়ন নেতৃবৃন্দ এবং সমিতির সাবেক ও বর্তমান কমিটির নেতৃবৃন্দরা মরহুমের স্মরণে তার কর্মময় জীবনী নিয়ে স্মৃতি চারণমূলক বক্তব্য রাখবেন।

  •  
  •  
  •  
  •  
  •   
  •  
  •