এতদ্বারা সর্ব সাধারণের অবগতির জন্য জানানো যাচ্ছে যে, আমি বিগত ০৮/০৬/১৯৮৮ সাল হতে কক্সবাজার সদর উপজেলার ঝিলংজা, চৌফলদন্ডী ও ভারুয়াখালী মৌজার সরকার কর্তৃক নির্ধারিত কাজী। বাংলাদেশ সরকারের আইন বিচার ও সংসদ বিষয়ক মন্ত্রণালয়ের হতে আমাকে কাজী হিসেবে নিয়োগ প্রদান করেন। কিন্তু আমি দায়িত্ব পালনকালে বিভিন্ন সময় একটি প্রভাবশালী পক্ষ পেশী শক্তি ব্যবহার করলে পেশাগত নিরাপত্তার স্বার্থে আমি ওই প্রভাবশালীদের বিরুদ্ধে কয়েকটি মামলা দায়ের করি। তারমধ্যে মহামান্য হাইকোর্টে বিচারাধীন মামলায় সিভিল রিভিশন ১০৮৯/২০০৫ ইংরেজী উল্লেখ্যযোগ্য। উক্ত মামলার আক্রোশের বশবর্তী হয়ে ওই প্রভাবশালীরা আমার বিরুদ্ধে থানা কোর্টে একাধিক মামলা দায়ের করেন। উক্ত মামলায় গত ৭ সেপ্টেম্বর বিজ্ঞ আদালত আমার পক্ষের কাগজপত্র নিয়ে হাজির হলে আদালত যাচাই-বাচাই করে আমাকে মামলা হতে স্ব-সম্মানে জামিনে মুক্তি দেন।
সর্ব সাধারণকে আমি আরও জানাতে চাই যে, আমাকে আইন বিচার ও সংসদ বিষয়ক মন্ত্রণালয়ের স্বারক নং ১৮৫ বি: ৭/২ এন ১০৩/৭৮ তারিখ ০৮/০৬/১৯৮৮ ইংরেজী মূলে কক্সবাজার সদর উপজেলার ১ নং হতে ৭ নং (মোট-৭টি) ইউনিয়নের জন্য নিকাহ রেজিস্টার নিয়োগ করেন। এতে আমি সুনামের সাথে দায়িত্ব পালন করে আসছি।
পরবর্তীতে আমার অধিক্ষেত্রভুক্ত নিকাহ রেজিষ্ট্রি এলাকা ৭টি ইউনিয়নকে ১০টি ইউনিয়নে রুপান্তরিত করা হয়। উক্ত ইউনিয়ন সমূহের জন্য আমাকে তৎকালীন আইন মোতাবেক স্থায়ী নিকাহ রেজিস্টার ঘোষণা মর্মে মাননীয় আদালতে অপর ১৬৫/৯৪ মামলা দায়ের করি। বর্তমানে উক্ত মামলার ধারাবাহিকতায় মহামান্য হাইকোর্টে সিআর ১০৮৯/২০০৫ ইংরেজী মামলায় সংশ্লিষ্ট বিবাদীগণের উপর স্থিতি আদেশসহ বিচারাধীন।
আমার নিকাহ রেজিষ্ট্রি এলাকার বিষয়ে সিআর ১০৮৯/২০০৫ ইংরেজী মামলা মাননীয় আদালতে স্থিতি আদেশসহ বিচারাধীন থাকা অবস্থায় বর্তমানে মামলার বাদী আমার অধিক্ষেত্রভুক্ত ১০ নং ঝিলংজা ইউনিয়নের অংশ নিয়ে কক্সবাজার পৌরসভার ১১ ও ১২ নং নব সৃষ্ট ওয়ার্ডে নিয়োগ প্রাপ্ত হয়। অতএব এ বিষয়ে কাউকে বিভ্রান্ত না হওয়ার জন্য আমি বিশেষভাবে আহবান জানাচ্ছি।

বিজ্ঞপ্তি দাতা-
কাজী মাওলানা নছির শাহ মোহাম্মদ ইকবাল

কক্সবাজার সদর, কক্সবাজার।

  •  
  •  
  •  
  •  
  •   
  •  
  •