গত ৭ সেপ্টেম্বর দৈনিক কক্সবাজার পত্রিকায় ‘অনিয়মের অভিযোগ জানারঘোনা মসজিদ কমিটির সাধারণ সম্পাদকের বিরুদ্ধে’ শিরোনামে প্রকাশিত সংবাদের প্রতিবাদ জানিয়েছেন সভাপতি আলহাজ্ব আকতার আহমদ সওদাগর।
বিবৃতিতে তিনি বলেন, মসজিদ কমিটি নিয়ে প্রকাশিত সংবাদটি আমার দৃষ্টিগোচর হয়েছে। যা খুবই দুঃখজনক। সংবাদটিতে যেসব বক্তব্য উপস্থাপন করা হয়েছে তা সম্পূর্ণ মিথ্যা, ভিত্তিহীন ও উদ্দেশ্যপ্রণোদিত। মসজিদের সুন্দর একটি কমিটিকে বিতর্কিত করার হীন উদ্দেশ্যে এ সংবাদটি প্রকাশ করা হয়েছে।
এই সংবাদটি রাজনৈতিক হীন উদ্দেশ্য চরিতার্থ করার পাশাপাশি এলাকাবাসীর মধ্যে ধর্মীয় বিভেদ সৃষ্টির অপচেষ্টার অংশমাত্র।
সংবাদে জাফর আলম ও নুরুল আলম নামক যে দুই ব্যাক্তির বক্তব্য ছাপানো হয়েছে তারা দুইজনই এলাকায় বিতর্কিত। মসজিদ কমিটির সাথে তাদের কোন সম্পর্ক নাই। কমিটিতে অনুপ্রবেশের কুলালসা থেকে তারা সুপরিকল্পিতভাবে অপপ্রচার চালাচ্ছেন।
মসজিদের যে কোনো কার্যক্রম পরিচালনার ক্ষেত্রে কমিটির ১৭ সদস্যের মতামতের ভিত্তিতে সিদ্ধান্ত নেয়া হয় এবং সবার সাক্ষরে রেজুলেশন আকারে তা প্রকাশিত হয়। সাধারণ সম্পাদক বা ব্যক্তিগত কারো সিদ্ধান্ত নেয়ার সুযোগ নাই। মসজিদের জমি থেকে প্রাপ্ত সমস্ত অর্থ সুনির্দিষ্ট ব্যাংক একাউন্টেই জমা আছে। গত জুন-২০২০ ইংরেজি পর্যন্ত মসজিদের সমস্ত হিসাব বিবরণী কমিটির সদস্যদের সাক্ষরে নোটিশ বোর্ডে টাঙিয়ে দেয়া হয়েছে। চাইলে যে কেউ দেখে আসতে পারেন। এরপরও আল্লাহর ঘর মসজিদ নিয়ে এসব অপপ্রচার সাধারণ মানুষের মাঝে ধর্মীয় বিদ্বেষ ছড়ানোর অপচেষ্টা ছাড়া আর কিছুই নয়। তাতে কেউ বিভ্রান্ত হবেন না।
পত্রিকায় প্রকাশিত সংবাদের বিষয়ে সোমবার বাদে আসর জরুরী ভিত্তিতে মসজিদ কমিটির বৈঠক ডাকা হয়। বৈঠকে উপস্থিত সবাই মসজিদ কমিটির সাধারণ সম্পাদক বেলাল আহমদকে নিয়ে পত্রিকায় প্রকাশিত সংবাদের নিন্দা ও প্রতিবাদ জানিয়েছেন। সেই সঙ্গে ধর্মীয় উন্মাদনা সৃষ্টির কুমানসে অপপ্রচারের বিরুদ্ধে আইনগত ব্যবস্থা নেয়ার সিদ্ধান্ত হয়েছে।

  •  
  •  
  •  
  •  
  •   
  •  
  •