মোঃ ফারুক ,পেকুয়া (কক্সবাজার):

কক্সবাজারের পেকুয়া উপজেলার টইটং ইউপির বহিস্কৃত চেয়ারম্যান জাহেদুল ইসলাম চৌধুরীর আগাম জামিন মঞ্জুর করেছে হাইকোর্ট বিভাগ।

গতকাল বিচারপতি এনায়েতুর রহিমের দ্বৈত বেঞ্চ ৬ সপ্তাহের আগাম জামিন মঞ্জুর করেন।

চেয়ারম্যান জাহেদুল ইসলাম চৌধুরীর পক্ষে বিজ্ঞ আইনজীবী খোরশেদ আলমের নেতৃত্বে একটি আইনজীবী প্যানেল মামলাটি পরিচালনা করেন।

সূত্রে জানা যায়, গত ৩ সেপ্টেম্বর হাইকোর্টের ১৭নং বেঞ্চে ৩১ নং সিরিয়ালে ছিল জাহেদের মামলাটি। বিজ্ঞ আদালত শুনানি শেষে বিচারপতি এনায়েতুর রহিমের দ্বৈত বেঞ্চ ৬ সপ্তাহের আগাম জামিন মঞ্জুর করেন। যার টেন্ডার নং ৩০০৯৭।

নিজেকে নির্দোষ দাবী করে চেয়ারম্যান জাহেদু্ল ইসলাম চৌধুরী মুঠোফোনে বলেন, বিজ্ঞ আদালত সব কিছু বিচার বিশ্লেষণ করে ৬ সপ্তাহের জামিন মঞ্জুর করেছে। নিম্ন আদালতেও সুবিচার পাবো এ আশা করি। জনগণের ভালবাসা ও দোয়া নিয়ে সব বিপদ কাটিয়ে ফিরবো ইনশাআল্লাহ।

তিনি আরো বলেন, চকরিয়া-পেকুয়া আসনের সাংসদ জাফর আলম মহোদয়ের প্রতি কৃতজ্ঞতা যার ঐকান্তিক প্রচেষ্টায় জনগণের মাঝে ফিরে আসতে পেরেছি। সর্বাত্মক সহযোগিতা পেয়েছি পেকুয়া উপজেলা ও ইউনিয়ন আ’লীগসহ অঙ্গসংগঠনের নেতৃবৃন্দদের কাছ থেকে। তাদের প্রতি আমি কৃতজ্ঞতা প্রকাশ করছি।

উল্লেখ্যঃ ১৫ টন ত্রাণের চাল আত্মসাতের অভিযোগে টইটং ইউপির চেয়ারম্যান জাহেদুল ইসলাম চৌধুরীর বিরুদ্ধে বিশেষ ক্ষমতা আইনে ২৮ এপ্রিল রাতে পেকুয়া উপজেলা প্রকল্প বাস্তবায়ন কর্মকর্তা আমিনুল ইসলাম বাদী হয়ে একটি মামলা দায়ের করেছেন। যার মামলা নং ৪/২০ ইং।

ওই ঘটনায় জেলা প্রশাসক কক্সবাজারের সুপারিশক্রমে স্থানীয় সরকার বিভাগ গত ২৯ এপ্রিল ৪২৮ নং স্মারকে চেয়ারম্যান জাহেদুল ইসলাম চৌধুরীকে সাময়িক বরখাস্ত করা হয়। পাশাপাশি স্থানীয় সরকার (ইউনিয়ন পরিষদ) আইন ২০০৯ এর ধারা ৩৪(৪) (ঘ) অনুযায়ী তাকে কেন চূড়ান্ত অপসারণ করা হবেনা তার ব্যাখ্যা চাওয়া হয়।

একই আইনের ৩৪ (৫) ধারায় তাকে চেয়ারম্যান পদ থেকে অপসারণ/ স্থায়ী বহিষ্কার করা হয়। সে সাথে পেকুয়া উপজেলার টইটং ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান পদ শূন্য ঘোষণা করা হয়।

তবে এসব ঘটনাগুলোতেও তিনি নির্দোষ দাবী করে আইনগতভাবে মোকাবেলা করবেন বলে এ প্রতিনিধিকে জানিয়েছেন।

  •  
  •  
  •  
  •  
  •   
  •  
  •