মিছবাহ উদ্দিন, ঈদগাঁও:
কক্সবাজার সদরের ঈদগাঁও পূর্ব দরগাপাড়া বাইতুস সালাম জামে মসজিদে মুসল্লী বাড়াতে ব্যতিক্রমী উদ্যোগ নিয়েছেন মসজিদ কমিটির সভাপতি। ফলে আগের তুলনায় কয়েকগুণ বেড়েছে মুসল্লী। এ ঘটনায় প্রশংসায় ভাসছেন সভাপতি কফিল মাহমুদ। জানা যায় এ মসজিদে কয়েকমাস আগে তিন, চারজন মুসল্লী হতো। সম্প্রতি মসজিদ কমিটির নতুন সভাপতি নির্বাচিত হওয়ার পরে ফজর নামাজ পড়তে ডাকার জন্যে পুরস্কার ঘোষণা করা হয়। স্থানীয় যে যুবক প্রথমে ওঠে সভাপতিকে ফোন দিবে তাকে ১ম পুরস্কার, যিনি সর্বপ্রথম সভাপতির মোবাইল রিসিভ করবেন তাকে ২য় পুরস্কার, যিনি মসজিদে ১ম উপস্থিত হবেন তাকে ৩য় পুরস্কার এভাবে করে নীয়ম করে দেওয়া হয়। তিনমাস পরে তিন থেকে চার কাতার মানুষ বেড়ে যায়। এতে সন্তুষ্ট প্রকাশ করেছেন স্থানীয় ধর্মপ্রাণ মুসল্লীরা। তার ধারাবাহিকতায় এক পুরস্কার বিতরণী সভা অনুষ্ঠিত হয়েছে। জুমাবার (২৮ আগষ্ট) জুমার নামাজের পর উক্ত মসজিদে এ সভা অনুষ্ঠিত হয়। এতে উদ্বোধক হিসাবে উপস্থিত ছিলেন ঈদগাহ ৭নং ওয়ার্ড আওয়ামিলীগের সাধারণ সম্পাদক নুরুল হাকিম নুকি। প্রধান অতিথি বিশিষ্ট শিল্পপতি রেজাউল করিম সিকদার। সভাপতিত্ব করেন বাইতুস সালাম জামে মসজিদের সভাপতি কফিল মাহমুদ। বিশেষ অতিথি হিসাবে উপস্থিত ছিলেন, বিশিষ্ট সমাজ সেবক জয়নাল আবেদীন, আলীবিন আবি তালিব মাদরাসার পরিচালক সাইফুল ইসলাম, মাস্টার সালাহ উদ্দিন। অন্যদের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন, মসজিদ কমিটির সেক্রেটারি নুরুচ্ছফা কামাল, সহ-সভাপতি শহিদুল ইসলাম শহিদ, সহ সেক্রেটারি মুহাম্মদ আলি জিসান, ইউনুস ড্রাইভার, উপদেষ্টা সবুজ ফকির, আলি আকবর ড্রাইভার, রাইয়ান, রাকিব প্রমুখ। এসময় নুরুল আলমকে ১ম পুরস্কার, মো: বাবুকে ২য় পুরস্কার, আব্দুল মালেককে ৩য় পুরস্কার তুলে দেওয়া হয়। পুরস্কার বিতরণে আর্থিক সহায়তা করেন একে মোটরস কক্সবাজার। সভাপতি কফিল মাহমুদ বলেন দেশের সকল মসজিদে মুসল্লী বাড়াতে এ ধরনের উদ্যোগ নেওয়া প্রয়োজন। এ মসজিদে পুরস্কার বিতরণের ধারাবাহিকতা অব্যাহত থাকবে।

  •  
  •  
  •  
  •  
  •   
  •  
  •