সংবাদ বিজ্ঞপ্তি :

কক্সবাজারের টেকনাফ শামলাপুর পুলিশ চেকপোস্টে গত ৩১ জুলাই রাতে সেনাবাহিনীর অবসরপ্রাপ্ত মেজর ও মুক্তিযোদ্ধার সন্তান সিনহা মোহাম্মদ রাশেদ খানকে গুলি করে নৃশংসভাবে খুন করে পুলিশ। অপরদিকে চট্টগ্রাম প্রেসক্লাবে আয়োজিত মানববন্ধনে মুক্তিযোদ্ধা ও গণমাধ্যম কর্মীদের উপর ন্যক্কারজনক হামলা চালায় বাঁশখালীর এমপি মোস্তাফিজুর রহমানের লেলিয়ে দেয়া মাস্তান বাহিনী। কক্সবাজারের মুক্তিযোদ্ধা পরিবার এই দু’টি ঘটনায় খুবই উদ্বিগ্ন ও মর্মাহত। বৃহস্পতিবার ২৭ আগস্ট বেলা ২ টায় কক্সবাজার জেলা প্রশাসক কার্যালয় চত্ত্বরে কক্সবাজার মুক্তিযোদ্ধা পরিবার কল্যাণ সোসাইটির ব্যানারে আয়োজিত মানববন্ধনে বক্তারা এই দু’টি ন্যক্কারজনক ঘটনার নিন্দা জানিয়ে বলেন, পেশী শক্তি স্বাধীনতা বিরোধী চক্র এখনো মুক্তিযোদ্ধা ও তাদের প্রজন্মের বিরুদ্ধে ষড়যন্ত্রে লিপ্ত রয়েছে। ষড়যন্ত্রের বিরুদ্ধে ঐক্যবদ্ধ আন্দোলনের বিকল্প নেই। বক্তারা বলেন, মেজর সিনহা ছিলেন একজন গর্বিত বীর মুক্তিযোদ্ধার সন্তান। তিনি সম্পূর্ণ পেশাদারীত্ব ও দেশপ্রেমে উজ্জীবিত হয়ে দীর্ঘদিন মাননীয় প্রধামন্ত্রীর নিরাপত্তার দায়িত্ব পালন করেছেন। কিন্তু এই দেশপ্রেমিক সেনা অফিসার ও বীর মুক্তিযোদ্ধার সন্তানকে পরিকল্পিতভাবে হত্যা করা হয়েছে। মুক্তিযোদ্ধার সন্তান হিসেবে আমরা এই নৃশংস হত্যাকান্ডে জড়িতদের ফাঁসির দাবী জানায়। পাশাপাশি চট্টগ্রামে মুক্তিযোদ্ধা ও গণমাধ্যম কর্মীদের উপর ন্যক্কারজনক হামলায় জড়িত এমপি মোস্তাফিজুর রহমান ও তার দোসরদের দৃষ্টান্তমূলক শাস্তির দাবি জানান বক্তারা। সংগঠনের সভাপতি সাইফুর রহিম শাহীনের সভাপতিত্বে ও সাধারণ সম্পাদক নুরুল হাকিম নূকীর পরিচালনায় অনুষ্টিত মানববন্ধনে প্রধান অতিথির বক্তব্য রাখেন কক্সবাজার জেলা আওয়ামীলীগের সাংগঠনিক সম্পাদক বীর মুক্তিযোদ্ধার সন্তান নাজনীন সরওয়ার কাবেরী। এতে উপস্থিত ছিলেন, সংগঠনের সহ সভাপতি শহিদুল ইসলাম, সাংগঠনিক সম্পাদক এম আলা উদ্দিন, নুরুল আজিম, চকরিয়া উপজেলা উপজেলা সভাপতি ফজলুল কাদের কাজল প্রমুখ। এছাড়া মানববন্ধনে বিভিন্ন উপজেলা থেকে মুক্তিযোদ্ধার সন্তানরা অংশগ্রহন করে।

  •  
  •  
  •  
  •  
  •   
  •  
  •