আব্বাস সিদ্দিকী , কুতুবদিয়া :

পানি উন্নয়ন বোর্ড (পাউবো) ৭১ পোল্ডারের কক্সবাজারের দ্বীপ উপজেলা কুতুবদিয়ার লেমশীখালী ইউনিয়নে ছিদ্দিক হাজি পাড়ার এলাকায় বেড়িবাঁধ ভেঙ্গে জোয়ারে ব্যাপক এলাকা প্লাবিত হয়েছে। এতে বিভিন্ন এলাকায় প্রায় ৫০০ মিটার বেড়িবাঁধ গেল অমাবস্যার জোয়ারের পানি বৃদ্ধি পেয়ে প্রবল স্রোতের ঢেউয়ে বাঁধ ভেঙ্গে যায়। এসব ভাঙ্গা এলাকা দিয়ে সমুদ্রের নোনা জল লোকালয়ে প্রবেশ করে শতাধিক কাঁচা ঘর-বাড়ী, শত শত একর ফসলী জমি, মৎস্য ঘের তলিয়ে ব্যাপক ক্ষয়ক্ষতি হয়। এসময় তাৎক্ষণিকভাবে স্হানীয় লেমশীখালী ইউপি চেয়ারম্যান আলহাজ আকতার হোছাইনসহ অন্যান্য নেতৃত্ববৃন্দদের নিয়ে ঘটনাস্হল পরিদর্শন করেন।

এসব ক্ষতিগ্রস্থ এলাকার কাঁচা ঘর বাড়ী, ফসলী জমি, মৎস্য ঘের রক্ষার্থে আসন্ন পূণির্মার জোয়ার ঠেকাতে লেমশীখালীর ইউপি চেয়ারম্যান আলহাজ আকতার হোছাইনের পরিষদের রাজস্ব খাত ও নিজস্ব অর্থায়নে ক্ষতিগ্রস্ত প্রায় ৫০০ মিটার বেড়িবাঁধ গত ২৬ আগস্ট হতে মেরামতের জন্য এস্কেলেবেলেটর গাড়ি দিয়ে জোয়ার ঠেকানোর কাজ চলমান। আগামী এক সপ্তাহের মধ্যে জোয়ার ঠেকানো বাঁধ সম্পন্ন হবে বলে স্হানীয় চেয়ারম্যান আলহাজ আকতার হোছাইন নিশ্চিত করেন।

এবিষয়ে স্থানীয় বাসিন্দা আব্দুল করিম বলেন, গেল বেশ কয়েকটি  পূর্ণিমা ও অমাবস্যার জোয়ারে বৈরী আবহাওয়ার কারণে সাগরের পানি বৃদ্ধি পেয়ে প্রবল স্রোতের ঢেউয়ে লেমশীখালী ইউনিয়নে প্রায় ৫০০ বেড়ীবাঁধ বিলিন হয়ে জোয়ার লোকালয়ে প্রবেশ করে ব্যাপক ক্ষয়ক্ষতি হয়। আসন্ন পূণির্মার জোয়ারের পানি ঠেকাতে চেয়ারম্যান পরিষদের রাজস্ব খাত ও নিজস্ব অর্থায়নে ছিদ্দিক হাজি পাড়ায় প্রায় ৫০০ মিটার বেড়িবাঁধ নির্মাণ কাজ করে যাচ্ছেন।

এব্যাপারে লেমশীখালী ইউপি চেয়ারম্যান আলহাজ আকতার হোছাইন বলেন, গত পূর্ণিমা ও অমাবস্যার জোয়ারে বৈরী আবহাওয়ায় সাগরের পানি বৃদ্ধি পেয়ে লেমশীখালী ইউনিয়নে ছিদ্দিক হাজির পাড়াসহ বিভিন্ন এলাকা দিয়ে বেড়ীবাঁধ ভেঙ্গে সাগরের নোনা জল লোকালয়ে প্রবেশ করে মলমচর, শাহাজীর পাড়া, হাবীব হাজীর পাড়া, বসিরউল্লাহ সিকদার পাড়াসহ কয়েকটি গ্রামের শতাধিক কাঁচা ঘর-বাড়ী, প্রায় কয়েকশত একর আউস ফসলী জমি, মৎস্য ঘের পুকুর তলিয়ে গিয়ে ব্যাপক ক্ষয়ক্ষতি হয়। আসন্ন পূণির্মার জোয়ার ঠেকাতে পরিষদের রাজস্ব ও ব্যক্তিগত উদ্যোগে প্রায় ৫০০মিটার বেড়ীবাঁধ নির্মাণ করা হচ্ছে। অন্যান্য ভাঙ্গা বাঁধ অতিশীঘ্রই মেরামত করা হবে বলে নিশ্চিত করেন

  •  
  •  
  •  
  •  
  •   
  •  
  •