ছবি :  কর্মশালায় প্রধান অতিথি’র বক্তব্য রাখছেন জেলা প্রশাসক মোঃ কামাল হোসেন।

প্রেস বিজ্ঞপ্তি :
কক্সবাজার পৌর আওয়ামী লীগ স্বেচ্ছাসেবক টিম (স্বাস্থ্য) সার্ভিক সহযোগীতায় কক্সবাজার করোনা ভাইরাস সংক্রমণ প্রতিরোধ ও কন্টাক্ট ট্রেসিং কমিটি আয়োজনে কন্টাক্ট ট্রেসিং মধ্যবর্তী তথ্য পর্যাআলোচনা ও ভবিষ্যত কর্মপরিকল্পনা সংক্রান্ত সভা অনুষ্টিত হয়। গতকাল কক্সবাজার সাংস্কৃতিক কেন্দ্রে সকাল ১০টা থেকে বেলা ২টা পর্যন্ত এ সভা চলে। গতকাল ২৫ আগষ্ট দুই পর্বে অনুষ্ঠান সম্পন্ন হয়। প্রথম পর্বে ছিল করোনা প্রতিরোধে নিয়োজিত ৭০ জন স্বেচ্ছাসেবকদের প্রশিক্ষণ কর্মশালা। স্বেচ্ছাসেবকদের প্রশিক্ষণ দেন বিশেষজ্ঞ চিকিৎসক ডাক্তার শাহজাহান নজির ও ডাক্তার মোহাম্মদ আরিফ হোছাইন।
এতে ডাক্তার শাহজাহান নজির সীমিত সম্পদের মধ্যে কন্টাক্ট ট্রেসিং এর মাধ্যমে কিভাবে সংক্রমন কমানো যায় এর গবেষণা তথ্য উপস্থাপন করেন। ডাক্তার মোহম্মদ আরিফ হোছাইন করোনা পরিস্থিতি মোকাবেলার কৌশল নিয়ে আলোচনা করেন। সহকারী সিভিল সার্জন মোহাম্মদ আলমগীরের সভাপতিত্বে ও পৌর আওয়ামী লীগের সভাপতি মোহাম্মদ নজিবুল ইসলামের সঞ্চালনায় অনুষ্টিত হয় কর্মশালা। দুপুর
সাড় ১২ টায় শুরু হয় কন্ট্রাক ট্রেসিং এর বর্তমান পরিস্থিতি পর্যালোচনা ও ভবিষ্যৎ পরিকল্পনা নিয়ে আলোচনা সভা। এতে সভাপতিত্ব করেন কক্সবাজার মেডিকেল কলেজের অধ্যক্ষ অধ্যাপক ডাঃ অনুপম বড়ুয়া। পৌর আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক উজ্জল করের পরিচালনায় অনুষ্টিত সভায় প্রধান অতিথি ছিলেন কক্সবাজার জেলা প্রশাসক মোঃ কামাল হোসেন। বিশেষ অতিথি ছিলেন কক্সবাজার জেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি এড সিরাজুল মোস্তফা ও সাধারণ সম্পাদক পৌর মেয়র মুজিবুর রহমান। বক্তব্য রাখেন কক্সবাজার সহকারী সিভিল সার্জেন মোহাম্মদ আলমগীর, কক্সবাজার সরকারি কলেজের অধাপক মোঃ গিয়াস উদ্দিন, ল্যাবরেটরী স্কুল এন্ড কলেজের অধ্যক্ষ মোহাম্মদ আমির উদ্দিন। সভার শুরুতে স্বাগত বক্তব্য রাখেন ও স্বেচ্ছাসেবকদের কর্মপন্থা নিয়ে পর্যালোচনা করেন কক্সবাজার পৌর আওয়ামী লীগের সভাপতি মোহাম্মদ নজিবুল ইসলাম। সভায় প্রধান অতিথি কক্সবাজারের জেলা প্রশাসক মোঃ কামাল হোসেন বলেন, কক্সবাজার পৌর আওয়ামী লীগ এই করোনা পরিস্থিতিতে লকডাউন থেকে শুরু করে কন্টাক্ট ট্রেসিং ও ভবিষ্যৎ কর্মপন্থা নিয়ে যেকোন পরিস্থিতি মোকাবেলায় এগিয়ে যাচ্ছে যা দেশে স্মরণীয় অধ্যায় হয়ে থাকবে। প্রশাসনের সাথে রাজনৈতিক ও সামাজিক সহযোগীতা না পেলে কক্সবাজারের করোনা মহামারি প্রতিরোধ করা দুরহ হয়ে পড়ত। বর্তমানে সকলের ঐক্যবদ্ধ প্রচেষ্ঠায় কক্সবাজারে করোনা পরিস্থিতি স্বাভাবিক হয়েছে এছাড়া চিকিৎসা ব্যবস্থাও সহজ হয়েছে এবং বিভিন্ন ব্যবস্থাপনার উন্নতি হয়েছে। এই টিমকে সাথে নিয়ে যে পরিকল্পনা তা প্রশাসনের মাধ্যমে আরো সমন্বিত ভাবে আগামীতে চালিয়ে যাব। তার জন্য জেলা প্রশাসকের নেতৃত্বে একটি শক্তিশালী কমিটি গঠন করে এই কার্যক্রমকে এগিয়ে নেওয়া হবে। এই কার্যক্রমের মধ্যে থাকবে কন্টাক্ট ট্রেসিং, টুরিষ্টদের স্বাস্থ্যবিধি মেনে চলার জন্য প্রচার-প্রচারণা, বর্জ্য ব্যবস্থাপনা ও কোভিড-১৯ বর্জ্য অপসারণের জন্য পাইলট প্রকল্প গ্রহন করা হবে। বিশেষ অতিথি’র বক্তব্যে জেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি এডঃ সিরাজুল মোস্তফা বলেন, পৌর আওয়ামী লীগ একটি সুশৃংখল রাজনৈতিক সংগঠন হিসাবে এই করোনা পরিস্থিতিতে ব্যাপক ভুমিকা রেখেছে যা আওয়ামী লীগের নেতাকর্মীদেরকে
মানুষের মাঝে আরো গ্রহনযোগ্য করে তুলেছে।
জেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ও পৌর মেয়র মুজিবুর রহমান বলেন, শুরু থেকে পৌর আওয়ামী লীগের এই কার্যক্রমকে আমি সহযোগীতা করে যাচ্ছি ভবিষ্যতেও আমি এবং কক্সবাজার পৌরসভা এই কার্যক্রমের সাথে থাকবে। সভাপতির বক্তব্যে ডাঃ অনুপম বড়ুয়া বলেন, আমরা কন্ট্রাক ট্রেসিং, এন্টিবডি চেস্ট, এই পরিস্থিতি মোকাবেলায় গবেষণা কার্যক্রম চালিয়ে যাচ্ছি। যাতে পরিস্থিতিতে চিকিৎসা ব্যবস্থাসহ জনসেবা দিতে পারি। এই কার্যক্রমে প্রশাসন ও রাজনৈতিক নেতৃবৃন্দের সহযোগীতা কামনা করছি।

 

  •  
  •  
  •  
  •  
  •   
  •  
  •