প্রেস বিজ্ঞপ্তি :

আশেক উল্লাহ রফিক এমপি বলেছেন, খালেদা জিয়ার নেতৃত্বাধীন তৎকালীন ৪ দলীয় জোট সরকারের মদদে তারেক জিয়ার পরিকল্পনায় ২০০৪ সালের ২১ আগষ্ট বর্তমান প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনাসহ আওয়ামী লীগের শীর্ষনেতাদের হত্যা করতে হামলা হয়েছিল। এটি ছিল আওয়ামী লীগকে একেবার নিশ্চিহ্ন করা পরিকল্পনা। মহান রাব্বুল আলামিনের অশেষ রহমতে প্রাণে রক্ষা পেয়েছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। এ হামলায় আমরা হারিয়েছি নারী নেত্রী আইবি রহমানসহ ২৪ জনকে। তিনি নিহতদের আত্মার মাগফিরাত কামনা করে তিনি আরো বলেন এই হামলার মাধ্যমে জাতিকে স্তব্ধ করে দিতে চেয়েছিল তৎকালীন চার দলীয় জোটের নেতারা। এতেই প্রমান হয় ৭৫ এর ১৫ আগষ্ট ও ২০০৪ সালের ২১ আগষ্ট একই সুত্রে গাঁথা। আমরা এই খুনিদের আর ক্ষমতায় দেখতে চাইনা। দেশকে এগিয়ে নিতে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার বিকল্প নেই। তিনি গতকাল বিকাল ৩টায় মহেশখালী উপজেলা আওয়ামী লীগ কার্যালয়ে প্রতিবাদ সমাবেশে প্রধান অতিথি’র বক্তব্যে তিনি এ কথা বলেন। উপজেলা আওয়ামী লীগের সহসভাপতি ফরিদুল আলমের সভাপতিত্বে ও উপ-প্রচার সম্পাদক এহছানুল করিমের সঞ্চালনায় অনুষ্ঠিত সভায় বক্তব্য রাখেন উপজেলা আওয়ামী লীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক ব্রজ গোপাল ঘোষ, উপদেষ্ঠা বশির উদ্দিন খান, ত্রাণ ও সমাজ কল্যাণ বিষয়ক সম্পাদক নাছির উদ্দিন, সাংস্কৃতিক সম্পাদক মাহবুবুল আলম, উপ-দপ্তর সম্পাদক এম আবদুল মান্নান, সদস্য মোস্তাক আহমদ তালুকদার, যুগ্ম আহবায়ক এম. রফিকুল ইসলাম, ছোট মহেশখালীর সাধারণ সম্পাদক এনামুল করিম, উপজেলা মহিলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক সেলিনা আক্তার, উপজেলা যুবলীগের আহবায়ক সাজেদুল করিম, যুগ্ম আহবায়ক এডঃ শেখ কামাল, উপজেলা শ্রমিক লীগের সাধারণ সম্পাদক সরওয়ার আলম ও উপজেলা ছাত্রলীগের সভাপতি হালিমুর রশিদ। উপস্থিত ছিলেন উপদেষ্ঠা মৌঃ ওসমান গণী, প্রণব কুমার দে, শ্রমিক লীগের আবদু শুক্কুর, আবদু সামাদ, মৎসজীবী লীগের মিজানুর রহমান, শ্রমিক লীগের রিপন উদ্দিন, পৌর যুবলীগের নেওয়াজ কামাল, বেলাল উদ্দিন, জিল্লুর রহমান মিন্টু ও হেফায়ত উল্লাহ।

  •  
  •  
  •  
  •  
  •   
  •  
  •