আন্তর্জাতিক ডেস্ক:

কাশ্মীরের এলইটি (লস্কর-ই্ তায়্যিবা) যোদ্ধাদের আক্রমনে আজ ভারতীয় নিরাপত্তা বাহিনীর তিনজন সদস্য নিহত ও একজন গুরুতর আহত হয়েছে। উভয়পক্ষের সংর্ঘষে এলইটি’র তিনজন সদস্যও নিহত হয়েছে।

উত্তর কাশ্মীরের বারমুল্লা জেলার ক্রেরী এলাকায় এ সংঘর্ষ ঘটে বলে গ্রেটার কাশ্মীর অনলাইন পত্রিকা খবর দিয়েছে। সোমবার সন্ধ্যায় সর্বশেষ খবর পাওয়া পর্যন্ত, নিরাপত্তা বাহিনী এলাকাটি ঘেরাও করে রেখেছে; উভয় পক্ষের মধ্যে থেমে থেমে গুলি বিনিময় চলছে।

পুলিশ জানিয়েছে, এলইটি’র একজন শীর্ষস্থানীয় কমান্ডারকে তারা ঘেরাও করে রেখেছে এবং তাকে পরাস্ত করার জন্য সেনা-পুলিশ ও রিজার্ভ ফোর্স যৌথভাবে অভিযান চালাচ্ছে। সকালের হামলায় পুলিশের কাছ থেকে ছিনিয়ে নেওয়া একটি আগ্নেয়াস্ত্র উদ্ধার হবার কথা জানিয়েছে পুলিশ।

পরে জম্মু কাশ্মীরের পুলিশের ডিজি দিলবাগ সিং আজ সন্ধ্যায় সংবাদ সম্মেলন করে জানিয়েছেন, নিরাপত্তা বাহিনীর সাথে সংঘাতে নিহত তিনজন এলইটি সদস্যের মধ্যে একজন লস্করই্ তায়্যিবার শীর্ষ স্থানীয় কমান্ডার সাজাদ হায়দার। ইতোপূর্ব নিরাপত্তাবাহিনীর হাতে নিহত হিজবুত কমান্ডা বুরহান ওয়ানী’র অনুসারী এই সাজাদ হায়দার স্থানীয় কাশমীরি যুবকদের যোদ্ধাদলে রিক্রুট করার কাজে নিয়োজিত ছিল।

এর আগে আজ সকালে পুলিশের একটি টহল দলের ওপর এলইটি যোদ্ধারা অতর্কিতে হামলা চালালে একজন স্পেশাল পুলিশ অফিসার ঘটনাস্থলে নিহত হয় এবং সেন্ট্রাল রিজার্ভ পুলিশ ফোর্স (সিআরপিএফ) –এর দুজন সদস্য আহত হয়ে হাসপাতালে মারা যায়।

তাৎক্ষনিকভাবে নিরাপত্তা বাহিনী এলাকাটি ঘিরে ফেলে এবং অতিরিক্ত ফোর্স মোতায়েন করে তল্লাশি অভিযান শুরু করে। বিকেল নাগাদ আর একদফা গোলাগুলিতে পড়ে একজন সেনা সদস্য গুরুতর আহত হয়েছে।

উল্লেখ্য, আজকের হামলা ছিল গত চারদিনের মধ্য দ্বিতীয় দফার প্রাণঘাতি হামলা। এর আগে গত শুক্রবার শ্রীনগরের উপকন্ঠে নওগাম এলাকায় টহল পুলিশের ওপর এক হামলায় দু’জন পুলিশ সদস্য নিহত ও অপর একজন আহত হয়।

নবীর অবমাননার প্রতিবাদ

ওদিকে একজন হিন্দু পুরোহিত ইসলাম ধর্মের নবীকে নিয়ে অবমানাকর ভিডিও সামাজিক মাধ্যমে প্রচার করায় প্রতিবাদে সোচ্চার হয়েছে কাশ্মীরের মুসলমানগন। আজ জম্মু কাশ্মীরের বিভিন্ন স্থানে দ্বীতিয় দিনের মতো রাস্তায় নেমে তারা বিক্ষোভ দেখায়।

কয়েকটি ইসলাসী সংগঠনের ডাকা এ বিক্ষোভ দমাতে কারফিউ জারী করা হলেও কাশ্মীরবাসী তা অমান্য করে ঘরের বাইরে এসে প্রতিবাদে সোচ্চার হয়।

ওদিকে জম্মু-কাশ্মীর সিভিল সোসাইটি ফোরাম আজ এক বিবৃতিতে হিন্দু পুরোহিতের বিরুদ্ধে আইনানুগ শাস্তিমূলক ব্যবস্থা গ্রহনের দাবী জানিয়েছে।

  •  
  •  
  •  
  •  
  •   
  •  
  •