প্রেস বিজ্ঞপ্তি :

১৫ আগষ্ট জাতীয় শোক দিবসে বাংলাদেশ আওয়ামী লীগ কক্সবাজার জেলা শাখার দিনব্যাপী বিভিন্ন কর্মসূচী যথাযোগ্য মর্যাদায় জেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি এড. সিরাজুল মোস্তফা ও সাধারণ সম্পাদক মেয়র মুজিবুর রহমানের নেতৃত্বে পালন করেছে। কর্মসূচীর মধ্যে সূর্যদ্বয়ের সাথে সাথে জাতীয় ও দলীয় পতাকা অর্ধনমিত করণ ও কালো পতাকা উত্তোলন করা হয়। দলীয় কার্যালয়ে সকাল ৮ ঘটিকায় কালোব্যাজ ধারণ ও বঙ্গবন্ধুর প্রতিকৃতিতে মাল্যদান করা হয় এবং ঐতিহাসিক ৭ই মার্চের ভাষণ প্রচার করা হয়। সকাল ৯ ঘটিকায় ১৫ আগষ্টে জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানসহ সকল শহীদের আত্মার মাগফেরাত কামনা করে, কোরান খানি, মিলাদ, দোয়া মাহফিল ও মোনাজাত অনুষ্ঠিত হয়। দুপুর ১২ ঘটিকায় কক্সবাজার পৌরসভায় ১২টি ওয়ার্ড, ১টি সাংগঠনিক ওয়ার্ড ও খুরুশকুল আশ্রয় প্রকল্পে স্বাস্থ্যবিধি মেনে যথাযোগ্য মর্যাদায় কর্মসূচী পালন ও গরীব, দুস্থ এতিমদের মাঝে খাবার বিতরণ করা হয়।

বিকাল ৩ ঘটিকায় জেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি এড. সিরাজুল মোস্তফার সভাপতিত্বে ও সাধারণ সম্পাদক মেয়র মুজিবুর রহমানের সঞ্চালনায় কক্সবাজার পৌরসভার হল রুমে এক আলোচনা সভা অনুষ্ঠিত হয়। আলোচনা সভায় বক্তরা বলেন, ১৫আগষ্ট জাতীয় শোক দিবস বাঙালী জাতির শোকের দিন, ইতিহাসের কলংকিত কালো দিন। ১৯৭৫ সালের ১৫ আগষ্টের কালো রাতে সংঘঠিত হয়েছিল এ কলংকিত অধ্যায়। ৪৫ বছর আগে এ দিনে স্বাধীন বাংলাদেশের স্থপতি বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান কে স্বপরিবারে হত্যা করেছিল ক্ষমতালোভী নরপিশাচ কুচক্রী মহল ইতিহাসের এ জগন্যতম হত্যাকান্ড বাঙালী জাতি কখনো ভুলে যেতে পারে না। পাশাপাশি বাঙালী জাতী কখনো হত্যাকারীদের ক্ষমা করবে না। হত্যাকারীরা শুধু বঙ্গবন্ধু কে নয় বঙ্গবন্ধুর সহধর্মীনী বঙ্গমাতা বেগম ফজিলুতুন্নেছা মুজিব, শেখ কামাল, শেখ জামাল, শেখ রাসেল, সুলতানা কামাল, রোজি কামাল, শেখ নাসের, আবদুর রব, সেরানিয়াবাত, আরিফ, বেবি, যুবনেতা মুক্তিযুদ্ধের সংগঠক শেখ ফজলুল হক মনি তার অন্তঃসত্ত্বা স্ত্রী আরজু মনিসহ ঘনিষ্ঠজনদের হত্যা করে বাঙালী জাতির ইতিহাসে কলংকজনক অধ্যায় রচনা করে। সে সময়ে বঙ্গবন্ধুর দুই কন্যা দেশের বাইরে থাকায় প্রাণে বেঁচে গিয়েছিল।

পৃথিবীর ইতিহাসে এরকম জঘন্যতম হত্যাকান্ড বিরল। আজ জাতীর জনকের সুযোগ্য কন্যা মাননীয় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার বলিষ্ট নেতৃত্বে বাংলাদেশ বিশ্ব দরবারে মাথা উচু করে দাঁড়িয়েছে। তাই শোক কে শক্তিতে পরিণত করে দেশের উন্নয়নের অগ্রযাত্রা অব্যাহত রাখার আহবান জানান সকলকে।

আলোচনা সভায় বক্তব্য রাখেন-সালাহ উদ্দিন আহমদ সিআইপি, সায়মুম সরওয়ার কমল এমপি, অধ্যাপিকা এথিন রাখাইন, রেজাঊল করিম, রনজিত দাশ, এড. তাপস রক্ষিত, নজিবুল ইসলাম, হামিদা তাহের, আব্দুর রহিম প্রমুখ।

দিনব্যাপী কর্মসূচীতে উপস্থিত ছিলেন-মোস্তাক আহমদ চৌধুরী, কানিজ ফাতেমা মোস্তাক, লেঃ কর্ণেল অবঃ ফোরকান আহমদ, মাহবুবুল হক মুকুল, এড. আব্বাস উদ্দিন চৌধুরী, নাজনীন সরওয়ার কাবেরী, এড. ফরিদুল আলম, আব্দুল খালেক, ইঞ্জিনিয়ার বদিউল আলম, এড. আয়াছুর রহমান, খালেদ মিথুন, খোরশেদ কুতুবী, হেলাল উদ্দিন কবির, কমর উদ্দিন আহমদ, কাজী মোস্তাক আহমেদ শামীম, এম. এ. মনজুর, আবু তাহের আজাদ, ড. নুরুল আবছার, এড. সুলতানুল আলম, এ.টি.এম. জিয়া উদ্দিন জিয়া, মিজানুর রহমান, সুপ্ত ভুষণ বড়–য়া, মিজানুর রহমান, বদরুল হাসান মিল্কি, হামিদা তাহের, মিজানুর রহমান, মাহামুদুল করিম মাদু, সোহেল আহমদ বাহাদুর, শহীদুল হক সোহেল, তাহমিনা চৌধুরী লুনা, মোর্শেদ হোসাইন তানিম প্রমুখ।

  •  
  •  
  •  
  •  
  •   
  •  
  •