ইমাম খাইর :
আমরা প্রতিটি সত্য বলবো। সবকিছু জানাবো। শুধু একটু সময় দেন। এই ঘটনার বিচারের শেষ পর্যন্ত আমরা দেখতে চাই।
সোমবার (১০ আগস্ট) রাতে কক্সবাজারে সংবাদ সম্মেলন করে এসব কথা বলেন মেজর সিনহা হত্যা মামলার একমাত্র প্রত্যক্ষ্যদর্শী সাহেদুল ইসলাম সিফাত ও তাদের সঙ্গী শিপ্রা দেবনাথ।
তারা বলেন, সারা দেশের মানুষ যেভাবে আমাদের পাশে দাঁড়িয়েছেন সেজন্য আমরা কৃতজ্ঞ।
শিপ্রা দেবনাথ বলেন, প্লিজ। প্রে ফর আস। সিফাত এবং আমি আপনাদের প্রতি অনেক কৃতজ্ঞ। আপনারা আমাদের পাশে ছিলেন, পাশে থাকবেন। আপাতত এতটুকুই বলার আছে। আমরা প্রত্যেকটা কথা বলব। প্রত্যেকটা সত্যি বলব। একটু সময় দেন। প্রচুর গুজব শোনা যাচ্ছে। আমরা বিভ্রান্তিমূলক নিউজ চাই না।
তিনি বলেন, আশাকরি দেশবাসী শেষ পর্যন্ত আমাদের পাশে থাকবেন।
তিনি আরো বলেন, কিছু গুজব ছড়ানো হচ্ছে। আজেবাজে নিউজ হচ্ছে।
সকলের প্রতি অনুরোধ করে শিপ্রা বলেন, আপনারা যেহেতু এতোদিন অপেক্ষা করতে পেরেছেন। আরো কিছু দিন অপেক্ষা করেন। আমরা প্রত্যেকটা সত্য ঘটনা দেশবাসীকে জানাবো।
সংবাদ সম্মেলনে সাহেদুল ইসলাম সিফাত বলেন, আজ কারাগার থেকে বের হয়ে আমি পরিবারের সাথে রয়েছি। আমি সুস্থ আছি।
মেজর সিনহা নিহতের ঘটনার সুষ্ঠু তদন্ত হবে এবং দোষীদের শাস্তি হবেই।
সংবাদ সম্মেলনে শিপ্রা ও সিফাতের পরিবারের সদস্যরা উপস্থিত ছিলেন।
উল্লেখ্য, মেজর সিনহা হত্যার ঘটনা তদন্তে ‘মূল শক্তি’ বা অন্যতম সাক্ষি হিসেবে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রাখবে কারামুক্ত সাহেদুল ইসলাম সিফাত ও শিপ্রা রানী দেব।
বিশেষ করে নিহত সিনহার গাড়িতে থেকে ঘটনার প্রত্যক্ষকারী সিফাত কি তথ্য দিচ্ছে, সে তথ্যের ভিত্তিতে র‌্যাবের তদন্ত প্রক্রিয়া এগুবে। বের হবে চাঞ্চল্যকর হত্যাকাণ্ডটির আসল রহস্য -এমনটি মনে করছে বিশ্লেষকরা।
আদালতের আদেশে শিপ্রা রবিবার (৯ আগস্ট) ও সিফাত সোমবার (১০ আগস্ট) কক্সবাজার জেলা কারাগার থেকে মুক্ত হন।
মেজর (অব.) সিনহা মো. রাশেদ খান হত্যাকাণ্ডের পর পুলিশ তিনটি মামলা দায়ের করে। এর মধ্যে মাদক নিয়ন্ত্রণ ও পুলিশের কাজে বাধা দেওয়ার অভিযোগে দুটি মামলা হয়েছে টেকনাফ থানায়। মাদক আইনে অন্য মামলাটি দায়ের হয়েছে রামু থানায়। পুলিশের এই তিন মামলায় ঢাকার স্টামফোর্ড বিশ্ববিদ্যালয়ের দুই শিক্ষার্থী সাহেদুল ইসলাম সিফাত ও শিপ্রা রাণী দেবকে আসামী করা হয়েছে।
সাবেক সেনা কর্মকর্তা সিনহা প্রামাণ্যচিত্র তৈরির জন্য ৩ জুলাই কক্সবাজার এসেছিলেন। এই কাজে তার সহযোগী ছিলেন সিফাত, শিপ্রা এবং তাদের সহপাঠী তাহসিন রিফাত নুর। প্রামাণ্যচিত্রের প্রযোজক ছিলেন সিনহা। তারা সবাই উঠেছিলেন হিমছড়ি সৈকত তীরের নীলিমা রিসোর্টে।