মুহাম্মদ আবু সিদ্দিক ওসমানী :

মেজর (অবঃ) সিনহা মোঃ রাশেদ হত্যা তদন্তে চট্টগ্রামের অতিরিক্ত বিভাগীয় কমিশনারের নেতৃত্ব তদন্ত কমিটি জেলে থাকা টেকনাফ মডেল থানার ওসি প্রদীপ কুমার দাশ, ইন্সপেক্টর লিয়াকত আলী, এসআই নন্দলাল রক্ষিত, মেজর (অবঃ) সিনহা মোঃ রাশেদ খান এর ডকুমেন্টারি ফ্লিম তৈরি টিমের সদস্য জেলে থাকা সাহেদুল ইসলাম সিফাত ও শিফ্রা রানী দেব এর বক্তব্য নেওয়া প্রয়োজন বলে মনে করছেন। যথাযথ আদালতের অনুমতি নিয়ে তদন্ত কমিটি তাদের জেল গেটে এনে জিজ্ঞাসাবাদ করতে পারেন। বিশ্বস্ত একটি সুত্র এ তথ্য জানিয়েছে। এছাড়াও জেলে থাকা আরো কয়েকজনের বক্তব্যও আদালতের অনুমতি সাপেক্ষে নেওয়া হতে পারে।

এদিকে, গত ৩ দিনে তদন্ত কমিটির কার্যক্রম অনেকদূর এগিয়েছে এবং মন্ত্রণালয়ের বেঁধে দেওয়া সময়ের মধ্যেই কমিটি তদন্ত প্রতিবেদন দিতে চেষ্টা চালাচ্ছেন বলে সুত্রটি জানিয়েছে।

গত ৩১ মার্চ টেকনাফের বাহারছরা পুলিশ তদন্ত কেন্দ্রের সামনে পুলিশের গুলিতে নিহত মেজর (অবঃ) সিনহা মোঃ রাশেদ খান হত্যাকান্ড তদন্তে চট্টগ্রামের অতিরিক্ত বিভাগীয় কমিশনার (উন্নয়ন) মোঃ মিজানুর রহমানকে আহবায়ক এবং লে: কর্নেল মোহাম্মদ সাজ্জাদ, পুলিশের চট্টগ্রাম রেঞ্জের অতিরিক্ত ডিআইজি মোঃ জাকির হোসেন ও কক্সবাজারের অতিরিক্ত জেলা ম্যাজিস্ট্রেট (এডিএম) মোহাঃ শাজাহান আলিকে সদস্য করে ৪ সদস্য বিশিষ্ট একটি তদন্ত কমিটি গত ২আগস্ট গঠন করে দেওয়া হয়। ৭কর্ম দিবসের মধ্যে তদন্ত প্রতিবেদন দাখিল করার শর্তে স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের জননিরাপত্তা বিভাগ থেকে এই কমিটি গঠন করে দেওয়া হয়। কমিটি গত ৪ আগস্ট থেকে পুরোদমে তদন্ত কাজ শুরু করে।

  •  
  •  
  •  
  •  
  •   
  •  
  •