মুহাম্মদ আবু সিদ্দিক ওসমানী :

মেজর (অব:) সিনহা মোঃ রাশেদ খান হত্যাকান্ডের তদন্তে গঠিত উচ্চ পর্যায়ের কমিটি বুধবার ৫ আগস্ট সকাল ১০ টার দিকে ঘটনাস্থল টেকনাফ-কক্সবাজার মেরিন ড্রাইভ রোডের বাহারছরা ইউনিয়নের শামলাপুর পরিদর্শন যাচ্ছেন। তদন্ত কমিটি বাহারছরা ইউনিয়নের মারিশবনিয়া পাহাড়ি এলাকাতেও যাবেন। যেখানে গত ৩১ জুলাই রাত্রে আলো জ্বালিয়ে মেজর (অব:) সিনহা মোঃ রাশেদ খান ও তার সঙ্গী সাহেদুল ইসলাম সিফাত ডকুমেন্টারি তৈরির জন্য শুটিং করছিলেন।সেখানে প্রত্যক্ষদর্শীসহ যাদের সাক্ষ্য নেওয়া প্রয়োজন, তাদের কাছ থেকে সাক্ষ্য নেবেন তদন্তদল।

বিষয়টি বিশ্বস্ত সুত্র সিবিএন-কে এ তথ্য জানিয়েছেন।
পরিদর্শনকালে তদন্ত কমিটির আহবায়ক চট্টগ্রামের অতিরিক্ত বিভাগীয় কমিশনার (উন্নয়ন) মোঃ মিজানুর রহমান ছাড়াও সদস্য লে: কর্নেল মোহাম্মদ সাজ্জাদ, পুলিশের চট্টগ্রাম রেঞ্জের অতিরিক্ত ডিআইজি (ক্রাইম এন্ড অপারেশন্স) মো. জাকির হোসেন এবং কক্সবাজারের অতিরিক্ত জেলা ম্যাজিস্ট্রেট (এডিএম) মোহাঃ শাজাহান আলি উপস্থিত থাকবেন।

মঙ্গলবার ৪ আগস্ট কক্সবাজার হিলডাউন সার্কিট হাউজে তদন্ত কমিটির প্রথম বৈঠক হয়। বৈঠকে স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের বেঁধে দেয়া আগামী ৭ কার্যদিবসের মধ্যে তদন্ত প্রতিবেদন জমা দেয়ার টার্গেট নিয়ে কাজ শুরু করা হয়েছে বলে জানিয়েছিলেন-স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের গঠিত তদন্তদলের আহবায়ক, যুগ্মসচিব মোঃ মিজানুর রহমান। কক্সবাজার শরনার্থী ত্রাণ ও প্রত্যাবাসন কমিশনার কার্যালয়ের সাবেক অতিরিক্ত আরআরআরসি মোঃ মিজানুর রহমান এখন কক্সবাজারে অবস্থান করছেন।

মেজর রাশেদ এর মা’কে প্রধানমন্ত্রীর সান্তনা :

সেনাবাহিনী থেকে স্বেচ্ছায় অবসর নেওয়া পুলিশের গুলিতে খুন হওয়া মেজর সিনহা মো: রাশেদ খানের মা নাসিমা আক্তার’কে মোবাইল ফোনে কল করে সান্তনা দিয়েছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। মেজর (অবঃ) সিনহা মো: রাশেদ খানের মা’কে তাঁর সন্তানের নিরপেক্ষ ও ন্যায় সুনিশ্চিত করা হবে বলে আশ্বাস দেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। মেজর (অবঃ) সিনহা মো: রাশেদ খানের পরিবারের সদস্যরাও প্রধানমন্ত্রী তাদের খোঁজ খবর নেওয়ায় প্রধানমন্ত্রীকে ধন্যবাদ জানান।

প্রসঙ্গত, গত ৩১ আগস্ট রাত্রে কক্সবাজার-টেকনাফ মেরিন ড্রাইভ রোডে সেনাবাহিনী থেকে স্বেচ্ছায় অবসর নেওয়া মেজর সিনহা মো: রাশেদ খান (৩৬) তাঁর কক্সবাজারমূখী প্রাইভেট কারটি নিয়ে টেকনাফের বাহারছরা শামলাপুর পুলিশ তদন্তকেন্দ্রের চেকপোস্টে পৌঁছালে গাড়িটি পুলিশ থামিয় দেয়। তখন মেজর (অবঃ) সিনহা মো: রাশেদ উপর দিকে তার হাততুলে তার প্রাইভেট কার থেকে বের হওয়ার সাথে সাথে তাঁর কোন কথা কর্ণপাত না করে তাঁকে বাহারছরা পুলিশ তদন্ত কেন্দ্রর ইনচার্জ ইন্সপেক্টর লিয়াকত আলী পর পর ৪রাউন্ড গুলি করে হত্যা করে বলে সেনা সদর থেকে গণমাধ্যমে প্রেরিত বক্তব্যে উল্লেখ করা হয়।

  •  
  •  
  •  
  •  
  •   
  •  
  •