এম, রিদুয়ানুল হক, চকরিয়াঃ
চকরিয়া উপজেলার বদরখালী ইউনিয়নের ২ নং ব্লক অর্থাৎ ৩ নং ওয়ার্ডের নতুন ঘোনার একটি জামে মসজিদ।

১৯৯২ সালে স্থানীয় কিছু ধর্মপ্রাণ মুসল্লীদের প্রচেষ্টায় প্রতিষ্ঠা হয়েছিল এই মসজিদটি।

মসজিদটির নাম দেয়া হয়েছিল হযরত ওমর বিন খাত্তাব (র) জামে মসজিদ। প্রতিষ্ঠালগ্ন থেকে কোনো জনপ্রতিনিধি বা সরকারের পক্ষ থেকে সামান্যতমও অনুদান পায়নি।

প্রায় ৫ শতাধিক পরিবারযুক্ত সমাজের একমাত্র মসজিদ এটি। বদরখালী বাজারের ১ মাইল উত্তরে ওয়াপদা রোড়ের পাশে এই মসজিদটির অবস্থান।

গ্রীষ্মকালে তীব্রগরমে মুসল্লিরা খুবই কষ্ট করে নামাজ আদায় করেন। বর্ষাকালে বৃষ্টির পানিতে ডুবে থাকে এই মসজিদটি। পাশে প্রবাহিত হয়েছে ছোট্ট একটি খাল। ঐ খালের প্রবাহিত পানিতে ভেঙ্গে যাচ্ছে মসজিদের জায়গা। ঐ এলাকায় কোনো ধণী ব্যক্তি না থাকায় মসজিদের কাজে কেউ এগিয়ে আসতে সাহস পাচ্ছে না।

কিছু কিছু পরিবার থেকে মাসিক ২০/৩০ টাকা চাঁদা নিয়ে কোনো মতেই ঈমাম ও মুয়াজ্জিমের সম্মানি দেয়া হয়। তাও একেবারেই নগণ্য। বর্তমানে এই মসজিদটির অবস্থা খুবই নাজুক।

৩১ জুলাই জুমার নামাজের সময় মসজিদ কমিটির কিছু সদস্য এব্যাপারে স্থানীয় জনপ্রতিনিধি, উপজেলা পরিষদ, উপজেলা প্রশাসন ও এমপি মহোদয়ের সার্বিক সহযোগিতা কামনা করেছেন। তারা বলেছেন- স্থানীয় সংসদ সদস্য আলহাজ্ব জাফর আলম চাইলে এই মসজিদটি দ্রুত নির্মাণ করা সম্ভব হবে।

মুসল্লিরা জানিয়েছেন, বর্তমানে এই মসজিদে নামাজ আদায় করতে মুসল্লিদের সীমাহীন কষ্ট হচ্ছে। মসজিদটির দৃশ্য হয়ত স্থানীয় এমপি জাফর আলমের নজরে আসে নি। নজরে পড়লে হয়তঃ তিনি দ্রুত ব্যবস্থা গ্রহণ করবেন। এইভাবে আল্লাহর ঘর মসজিদ পড়ে থাকতে পারে না।

জনপ্রতিনিধি ছাড়াও অন্যকোনো দানশীল ব্যক্তি মসজিদটি নির্মাণ করতে এগিয়ে আসলে তাকে স্বাগত জানাবেন বলে জানিয়েছেন উক্ত মসজিদ কমিটি।

  •  
  •  
  •  
  •  
  •   
  •  
  •