মুহাম্মদ আবু সিদ্দিক ওসমানী :

কক্সবাজার জেলাবাসী ও কক্সবাজার জেলার চিকিৎসক, নার্স, টেকনিশিয়ান, ওয়ার্ড বয়, স্বাস্থ্য বিভাগীয় স্টাফ সহ সকল স্বাস্থ্যকর্মীকে ঈদুল আযাহার শুভেচ্ছা জানিয়েছেন, কক্সবাজারের সিভিল সার্জন ডা. মোঃ মাহবুবুর রহমান।

এক শুভেচ্ছা বার্তায় তিনি বলেন, বৈশ্বিক মহামারী করোনা সংকটের মাঝেই ফিরে এসেছে পবিত্র ঈদুল আযাহা। সরকার কর্তৃক গৃহীত সময়োপযোগী পদক্ষেপে চিকিৎসক, স্বাস্থ্যকর্মী, মাঠ প্রশাসন, ব্যাংকার, গণমাধ্যমকর্মী, পুলিশ বাহিনীর সদস্য, সশস্ত্র বাহিনীর সদস্য, স্বেচ্ছাসেবী সহ যাঁরা ফ্রন্ট লাইনে থেকে জীবনের ঝুঁকি উপেক্ষা করে নিরন্তর সেবা প্রদান করছেন, তাঁদের প্রতি তিনি আন্তরিক কৃতজ্ঞতা জানিয়েছেন।

সিভিল সার্জন ডা. মোঃ মাহবুবুর রহমান বলেন, চলমান করোনাযুদ্ধে প্রধান অগ্রসেনানী সকল চিকিৎসক, স্বাস্থ্যকর্মী ও স্বাস্থ্য বিভাগীয় স্টাফ। এ কারণে ভয়ংকর করোনা যুদ্ধে অনেক ঘাত-প্রতিঘাত সবার আগে চিকিৎসক, স্বাস্থ্যকর্মী ও স্বাস্থ্য বিভাগীয় স্টাফদের মোকাবিলা করতে হচ্ছে। তবুও একবিন্দু দমে না গিয়ে শক্ত মনোবল আর পূর্ণ উদ্যমে এগিয়ে চলছে পুরো বাংলাদেশের ন্যায় কক্সবাজার জেলার সকল চিকিৎসক, স্বাস্থ্যকর্মী ও স্বাস্থ্য বিভাগীয় স্টাফেরা। চরম ঝুঁকির পাশাপাশি সর্বোচ্চ আন্তরিকতা ও পেশাদারিত্ব নিয়ে কক্সবাজার স্বাস্থ্য বিভাগের সকল চিকিৎসক ও স্বাস্থ্য বিভাগীয় কর্মকর্তা ও কর্মচারীরা অবিরাম চিকিৎসা সেবা দিয়ে যাচ্ছে। করোনা ভাইরাসে আক্রান্ত হয়ে কক্সবাজার জেলায় মৃত্যুবরণ করা ৬১ জনের পরিবারের প্রতি সিভিল সার্জন ডা. মোঃ মাহবুবুর রহমান সমবেদনা জ্ঞাপন করেন।

তিনি বলেন, গত ৫ মাসে কক্সবাজারের স্বাস্থ্য ব্যবস্থার আশাতীত উন্নয়ন হয়েছে। জেলার স্বাস্থ্য ব্যবস্থার প্রতি মানুষের দৃঢ় আস্থার জায়গা তৈরী হয়েছে। তিনি বলেন, এরই মাঝে তিনি তাঁর জন্মদাতা জননীকে হারিয়েছেন। তারপরও চলমান কোভিড-১৯ যুদ্ধে তিনি মনোবল হারাননি।

এ অবস্থায় সবাইকে সামাজিক ও শারীরিক দুরত্ব বজায় রেখে স্বাস্থ্য নির্দেশনা মেনে ঈদুল আযাহা উদযাপনের জন্য তিনি সকলের প্রতি অনুরোধ জানান। শুভেচ্ছা বার্তায় সিভিল সার্জন ডা. মাহবুবুর রহমান বলেন, সামাজিক দুরত্বে সম্প্রীতি ও সৌহার্দ্যের মেল বন্ধনে নিশ্চিত হউক আগামীর নিরাপত্তা। ঈদুল আযাহার ত্যাগের মহিমায় উদ্ভাসিত হোক সবার জীবন।

  •  
  •  
  •  
  •  
  •   
  •  
  •